PIB Headquarters

কোভিড-১৯ সংক্রান্ত পিআইবি’র প্রাত্যহিক সংবাদ

Posted On: 28 AUG 2020 6:18PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ২৮ অগাস্ট, ২০২০

 

 

মোট কোভিড সংক্রমিতের মধ্যে মাত্র ২২% চিকিৎসাধীন; কোভিড মুক্ত ২৬ লক্ষ; সংক্রমিত চিকিৎসাধীনের থেকে ১৮ লক্ষের বেশী বর্তমানে সুস্থ হয়ে উঠেছেন
কেন্দ্রের সমন্বিত কৌশল এবং ‘টেস্ট, ট্র্যাক ট্রিট’ নীতির কারণে বর্তমানে দেশে কোভিড সংক্রমিতরা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠছেন। একই সঙ্গে সংক্রমিতদের মৃত্যুর হার হ্রাস পাচ্ছে। গত পাচমাসে তিন-চতুর্থাংশর বেশী কোভিড সংক্রমিত সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এখন এক-চতুর্থাংশের কম সংক্রমিত চিকিৎসাধীন।
সংক্রমণ কম থাকার কারণে যারা বাড়িতে নিভৃতাবাসে ছিলেন, এবং যাঁদের সংক্রমণ বেশী থাকার কারণে যারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন, তাঁরা অনেক বেশী সংখ্যায় আরোগ্য লাভ করছেন। বর্তমানে কোভিড মুক্ত প্রায় ২৬ লক্ষ। গত চব্বিশ ঘন্টায় ৬০,১৭৭ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। আরোগ্য লাভের জাতীয় হার ৭৬.২৮%।
চিকিৎসাধীনের থেকে বর্তমানে ৩.৫ গুণ বেশী সংক্রমিত সুস্থ হয়ে উঠেছেন। মোট ২১.৯% সংক্রমিত এখন চিকিৎসাধীন। সর্বশেষ হিসেবে চিকিৎসাধীন সংক্রমিতদের থেকে ১৮,৪১,৯২৫ জন বেশী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। নমুনা পরীক্ষার পরিমাণ বৃদ্ধির ফলে সংক্রমিতদের দ্রুত শনাক্তকরণ, বাড়ি বাড়ি সমীক্ষার ফলে সংক্রমিতদের সংস্পর্শে যারা যারা এসেছেন, তাঁদের চিহ্নিতকরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এর ফলে শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে বাড়িতে নিভৃতাবাসের ব্যবস্থা করা অথবা যাঁদের হাসপাতালে পাঠানো দরকার, তাঁদের জন্য সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা করা হচ্ছে।
কোভিড চিকিৎসার জন্য দেশ জুড়ে ত্রিস্তরীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যাঁদের অবস্থা সংকটজনক, তাঁদের জন্য আইসিইউ-এর শয্যা, ভেন্টিলেটরের ব্যবস্থা সম্বলিত নির্ধারিত কোভিড হাসপাতালের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এই ধরণের হাসপাতাল বর্তমানে ১৭২৩টি। এছাড়াও কোভিড নির্ধারিত স্বাস্থ্য কেন্দ্র রয়েছে ৩৮৮৩টি। এইই সব কেন্দ্রগুলিতে সংক্রমিতদের অক্সিজেন দেবার ব্যবস্থা রয়েছে। এখানে ফোন করে চিকিৎসকের থেকে পরামর্শ নেওয়া যায়। এছাড়াও রয়েছে আইসোলেশনে থাকার জন্য ১১,৬৮৯টি কোভিড কেয়ার কেন্দ্র। সব মিলিয়ে দেশে ১৫,৮৯,১০৫টি আইসোলেশন বেড, অক্সিজেন দেওয়া যাবে এ ধরণের ২,১৭,১২৮টি বেড ও ৫৭,৩৮০টি আইসিইউ বেড রয়েছে। যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের ফলে দেশে কোভিড সংক্রমিতদের মধ্যে মৃত্যুর হার কমে ১.৮২% হয়েছে।
বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1641947 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

ভারতে পরপর দু'দিন লক্ষের বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে; মোট নমুনা পরীক্ষা প্রায় কোটি;
দেশে গত দু'সপ্তাহে ১ লক্ষের বেশি নমুনা পরীক্ষা
ভারতে পরপর দুই দিন দৈনিক ভিত্তিতে ৯ লক্ষের বেশি কোভিড-১৯ নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। 'টেস্ট, ট্র্যাক ও ট্রিট' রণকৌশল অবলম্বন করে কেন্দ্রীয় সরকার ইতিমধ্যেই দেশে দৈনিক ভিত্তিতে ১০ লক্ষ নমুনা পরীক্ষার ব্যবস্থা গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছে। দেশে গত ২৪ ঘন্টায় ৯ লক্ষ ১ হাজার ৩৩৮টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে।
দৈনিক ভিত্তিতে নমুনা পরীক্ষায় ক্রমাগত বৃদ্ধির ফলে দেশে এখনও পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৩ কোটি ৯৪ লক্ষ ৭৭ হাজার ৮৪৮। গত দুই সপ্তাহে ১ কোটির বেশি কোভিড-১৯ নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। দেশে প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় নমুনা পরীক্ষার হার বেড়ে হয়েছে ২৮,৬০৭। ব্যাপক হারে নমুনা পরীক্ষার নীতি গ্রহণ করার ফলেই আক্রান্তদের চিহ্নিতকরণ সম্ভব হচ্ছে। এমনকি, আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা অন্যান্যদেরও দ্রুত চিহ্নিত করে তাঁদের আইসোলেশনে পাঠানো হচ্ছে এবং সময়োপযোগী চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া হচ্ছে।
ব্যাপক হারে নমুনা পরীক্ষার যে কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে তার ফলে দেশে নমুনা পরীক্ষাগারের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। দেশে আজ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষাগারের সংখ্যা ১,৫৬৪। এর মধ্যে সরকারি নমুনা পরীক্ষাগার রয়েছে ৯৯৮টি এবং বেসরকারি পরীক্ষাগারের সংখ্যা ৫৬৬।
বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1649171 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

ডঃ হর্ষ বর্ধন ইন্দোরে ডিজিটাল উপায়ে এমজিএম মেডিকেল কলেজের সুপার স্পেশালিটি ব্লকের উদ্বোধন করলেন
কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডঃ হর্ষ বর্ধন এবং মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শ্রী শিবরাজ সিং চৌহান ডিজিটাল উপায়ে ইন্দোরে মহাত্মা গান্ধী মেমোরিয়াল মেডিকেল কলেজে সুপার স্পেশালিটি ব্লকের উদ্বোধন করেছেন। প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্য সুরক্ষা যোজনার আওতায় ২৩৭ কোটি টাকা খরচ করে এই সুপার স্পেশালিটি ব্লককে গড়ে তোলা হয়েছে। এই উপলক্ষে ডঃ হর্ষ বর্ধন জানান, কোভিড-১৯ মোকাবিলায় রাজ্য সরকারের প্রয়াসকে আরও জোরদার করতে কেন্দ্রীয় সরকার প্রায় ১৪ লক্ষ এন-৯৫ মাস্ক, ৭ লক্ষ ৯৭ হাজার পিপিই কিট, ৫৪ লক্ষ হাইড্রোঅক্সিক্লোরোকুইন এবং ৬৬৯টি ভেন্টিলেটর মধ্যপ্রদেশকে দিয়েছে।
বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1649276 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদনে আত্মনির্ভর ভারত গড়ার বিষয়ে আয়োজিত একটি আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য
প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী আজ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদনে আত্মনির্ভর ভারত গড়ার বিষয়ে আয়োজিত এক সেমিনারে বক্তব্য রেখেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদনে আত্মনির্ভর হয়ে উঠতে নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন করে প্রতিরক্ষা সরঞ্জামে উৎপাদন বাড়িয়ে এবং প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে বেসরকারী সংস্থাগুলির অংশগ্রহণ বাড়িয়ে এই লক্ষ্য অর্জন করতে হবে।
প্রতিরক্ষামন্ত্রী শ্রী রাজনাথ সিং এবং তাঁর সহযোগীরা প্রতিরক্ষা সরঞ্জামে আত্মনির্ভর হয়ে ওঠার জন্য নিরলসভাবে যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন, প্রধানমন্ত্রী তার প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেছেন, আজকের এই আলোচনা সভা লক্ষ্য অর্জনে নিশ্চিতভাবে পথ দেখাবে।
ভারত যখন স্বাধীনতা লাভ করেছিল, সেই সময়ই প্রতিরক্ষা সামগ্রী উৎপাদনে প্রয়োজনীয় পরিবেশ গড়ে তুলতে যথেষ্ট সুযোগ ছিল বলে প্রধানমন্ত্রী মনে করেন। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে এই বিষয়ে যথাযথ কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, পরিস্থিতি এখন বদলাচ্ছে, প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে সংস্কার আনার জন্য নিয়মিত উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে। তিনি বলেছেন, লাইসেন্স প্রদান প্রক্রিয়ার সরলীকরণ, বিভিন্ন সংস্থার এই ক্ষেত্রে যোগদান নিশ্চিত করার জন্য উপযুক্ত পরিবেশ গড়ে তোলা এবং রপ্তানী বাণিজ্যকে উৎসাহিত করার মতো বিভিন্ন পদক্ষেপ সরকার নিয়েছে।
বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1649031 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

পিএম-জেডিওয়াই-এর সফল ষষ্ঠ বর্ষ পূর্তিতে প্রধানমন্ত্রীর সন্তোষ প্রকাশ
প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী জন ধন যোজনার সফল ষষ্ঠ বর্ষ পূর্তিতে সন্তোষ ব্যক্ত করেছেন। পিএম-জেডিওয়াই-কে সফল করে তুলতে যারা নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন, প্রধানমন্ত্রী তাঁদের সকলের প্রশংসা করেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, “ছয় বছর আগে, আজকের দিনে যারা ব্যাঙ্কিং পরিষেবার বাইরে ছিলেন, তাঁদের এই পরিষবায় নিয়ে আনার জন্য প্রধানমন্ত্রী জন ধন যোজনার সূচনা করা হয়। এই উদ্যোগের ফলে কোটি কোটি মানুষ উপকৃত হয়েছেন, তাঁদের জীবনে পরিবর্তন এসেছে, দারিদ্র দূরীকরণের অনেক প্রয়াসের ক্ষেত্রে এটি ভিত্তি হিসেবে কাজ করেছে।
বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1649133 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

প্রধানমন্ত্রী জন ধন যোজনা (পিএমজেডিওয়াই) – আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকরণের জাতীয় স্তরের এই কর্মসূচির সফল রূপায়ণের ষষ্ঠ বর্ষ পূর্তি পিএমজেডিওয়াই মোদী সরকারের নাগরিক-কেন্দ্রিক আর্থিক পদক্ষেপের মূল ভিত্তি – অর্থমন্ত্রী
কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রক সার্বিক আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকরণে এবং প্রান্তিক মানুষের সহায়তায় অঙ্গীকারবদ্ধ। মন্ত্রক আর্থ-সামাজিক দিক থেকে পিছিয়ে পড়া শ্রেণীকে অগ্রাধিকার দেয়। আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকরণের বিষয়টিকে সরকার জাতীয় স্তরে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে কারণ, এই উদ্যোগ সামগ্রিক বিকাশের এক অন্যতম চালিকাশক্তি। আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকরণের বিষয়টি দরিদ্র মানুষকে প্রচলিত অর্থ ব্যবস্থার মাধ্যমে তাঁদের সঞ্চয়ের সুযোগ করে দেয়। সেইসঙ্গে, গ্রামাঞ্চলে দরিদ্র পরিবারগুলির জন্য আর্থিক নিশ্চয়তার পথ দেখায়। এর ফলে, গ্রামাঞ্চলের দরিদ্র মানুষ মহাজনদের আগ্রাসী মনোভাব থেকে রক্ষা পান। সরকারের আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকরণের প্রতিশ্রুতি পূরণের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ একটি উদ্যোগ হল প্রধানমন্ত্রী জন ধন যোজনা (পিএমজেডিওয়াই)। এই কর্মসূচি বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকরণের উদ্যোগ।
প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী ২০১৪-র ১৫ আগস্ট স্বাধীনতা দিবসের ভাষণে পিএমজেডিওয়াই কর্মসূচির কথা ঘোষণা করেন। ঐ বছরেরই ২৮ আগস্ট কর্মসূচির সূচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দরিদ্র মানুষের দৈনন্দিন সমস্যার জীবনচক্র থেকে মুক্তির উপায় হিসেবে সূচনার এই মুহূর্তটি উদযাপিত হতে পারে।
বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1649091 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।


কোভিড-১৯ মহামারীর সময় ‘এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত’ কর্মসূচির আওতায় সেন্ট্রাল ইন্সটিটিউট অফ হোটেল ম্যানেজমেন্ট এবং ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অফ ট্যুরিজম ট্রাভেল ম্যানেজমেন্ট একাধিক কর্মসূচির আয়োজন করেছে
কেন্দ্রীয় পর্যটন মন্ত্রক ‘এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত’ কর্মসূচিকে তুলে ধরতে একাধিক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এমনকি, কোভিড মহামারী পরিস্থিতিতেও এনসিএইচএমসিটি অ্যান্ড ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অফ ট্যুরিজম অনুমোদিত ভারত সেন্ট্রাল ইন্সটিটিউট অফ হোটেল ম্যানেজমেন্ট ও ট্রাভেল ম্যানেজমেন্ট সংস্থা যৌথভাবে ‘এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত’ কর্মসূচির আওতায় গত ৮ই মে থেকে ২৪শে অগাস্ট পর্যন্ত একাধিক কর্মসূচির আয়োজন করেছে। এই কর্মসূচির মাধ্যমে ‘এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত’ উদ্যোগকেই তুলে ধরা হয়েছিল। গত মে মাসে এই কর্মসূচির আওতায় ২০টি সেন্ট্রাল ইন্সটিটিউট অফ হোটেল ম্যানেজমেন্ট ২৭টি কর্মসূচির আয়োজন করেছিল। সেখানে ৩২টি রাজ্য থেকে ৬ হাজার ১৪১ জন প্রতিনিধি অংশ নিয়েছিলেন। জুন মাসে ৫২টি কর্মসূচি আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে ২৬টি রাজ্যের ৪ হাজার ১৬৭ জন প্রতিনিধি অংশ নিয়েছিলেন। জুলাই মাসে ২০টি সেন্ট্রাল ইন্সটিটিউট অফ হোটেল ম্যানেজমেন্ট ১৭টি কর্মসূচির আয়োজন করেছিল। এই কর্মসূচিতে ২৬টি রাজ্য থেকে ২ হাজার ৯৬৬ জন প্রতিনিধি অংশ নিয়েছিলেন।
বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1649132 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রী আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের জওহরলাল নেহরু মেডিকেল কলেজ পরীক্ষা কেন্দ্রের উদ্বোধন করেছেন
কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রী শ্রী রমেশ পোখরিয়াল ‘নিশাঙ্ক’ গতকাল ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আলগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের জওহরলাল নেহরু মেডিকেল কলেজের পরীক্ষা কেন্দ্রের উদ্বোধন করেছেন। এই পরীক্ষা কেন্দ্রটি গড়ে তুলতে ২ কোটি টাকা সহায়তা দেওয়া হয়েছে। এই উপলক্ষে শ্রী নিশাঙ্ক বলেন, সমগ্র বিশ্ব যখন কোভিড-১৯ এর দরুণ অপ্রত্যাশিত বাধা-বিপত্তির সম্মুখীন, ঠিক তখন কেন্দ্রীয় সরকার ছাত্রছাত্রীদের পঠন-পাঠনে যাতে কোনও রকম বিঘ্ন না ঘটে তা সুনিশ্চিত করতে সর্বাত্মক প্রয়াস নিয়েছে। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের ভূমিকার প্রশংসা করে বলেন, করোনা ভাইরাস মহামারীর প্রেক্ষিতে প্রতিকূল পরিস্থিতি সত্ত্বেও উপাচার্য প্রতিষ্ঠানের সার্বিক উন্নয়ন সুনিশ্চিত করতে যথাসম্ভব উদ্যোগী হয়েছেন।
বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1649056 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 


পিআইবি’আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে প্রাপ্ত তথ্য

অরুণাচল প্রদেশ : রাজ্যে নিশ্চিতভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১ হাজার ৭। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে ৭৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। রাজ্যে সুস্থতার হার ৭২ শতাংশেরও বেশি।

আসাম : রাজ্যে গত ২৪ ঘন্টায় ২ হাজার ৩৪৫ জন করোনা আক্রান্ত রোগী আরোগ্য লাভের পর হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন। গতকাল পর্যন্ত ৭৯ হাজার ৩০৭ জন রোগী আরোগ্য লাভ করেছেন। রাজ্যে নিশ্চিতভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৯ হাজার ২১৯।

মণিপুর : রাজ্যে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ১৪০ জনের করোনায় সংক্রমিত হওয়ার খবর মিলেছে। সুস্থতার হার বেড়ে হয়েছে ৬৯ শতাংশ।

মেঘালয় : রাজ্যে নিশ্চিতভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১ হাজার ২২২। এখনও পর্যন্ত ৮৯৯ জন সুস্থ হয়েছেন।

মিজোরাম : রাজ্যে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা আজ ১ হাজার ছাড়িয়েছে।

নাগাল্যান্ড : রাজ্যের উপ-মুখ্যমন্ত্রী ওখা জেলার কোভিড-১৯ পরিস্থিতি পর্যালোচনা করেছেন। এই জেলার একাধিক গ্রাম ও কলোনীতে প্রবেশের ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করার প্রেক্ষিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। এদিকে কোহিমা জেলা প্রশাসন আরও ৫টি এলাকা সীল করে দিয়েছে।

মহারাষ্ট্র : রাজ্যে গতকাল আরও ১৪ হাজার ৭১৮ জনের সংক্রমণের খবর মেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৭ লক্ষ ৩৩ হাজার ছাড়িয়েছে। এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২৩ হাজার ৪৪৪ জন। এদিকে পুণে পুর নিগম এলাকায় সুস্থতার হার বেড়ে ৮০.৪৮ শতাংশ হয়েছে। মুম্বাইয়ে সুস্থতার হার ৮১.৩২ শতাংশ।

গুজরাট : রাজ্যে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ১ হাজার ১৯০ জনের সংক্রমিত হওয়ার খবর মেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৯১ হাজার ছাড়িয়েছে। এদিকে রাজ্যে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা ২০ লক্ষ অতিক্রম করেছে এবং বৃহস্পতিবার ৭৬ হাজারেরও বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে।

রাজস্থান : মুখ্যমন্ত্রীর কার্যালয়ে কর্মরত এবং মুখ্যমন্ত্রীর বাস ভবনের এক কর্মীর করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর মিলেছে। এই প্রেক্ষিতে মুখ্যমন্ত্রী পূর্বনির্ধারিত সমস্ত বৈঠক বাতিল করে দিয়েছেন। এদিকে রাজ্যে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৭৫ হাজার ছাড়িয়েছে।

মধ্যপ্রদেশ : রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কোভিড-১৯ মহামারী নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্য দপ্তর ও অন্যান্য কর্তৃপক্ষকে ১০টি জেলায় আরও বেশি গুরুত্ব দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। নিশ্চিতভাবে করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের সংখ্যার দিক থেকে দেশে মধ্যপ্রদেশ ষোড়শ স্থানে রয়েছে। রাজ্যে নিশ্চিতভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১২ হাজার ৪২২।

কেরল : রাজ্যে করোনা সংক্রমণ ক্রমাগত বৃদ্ধি পাওয়ায় স্বাস্থ্য দপ্তর নমুনা পরীক্ষার হার বাড়াতে উদ্যোগী হয়েছে। স্থানীয় স্বশাসিত প্রশাসনগুলিকে প্রতি সপ্তাহে নমুনা সংগ্রহ ও নমুনা পরীক্ষার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আজ আরও ১ জনের মৃত্যু হওয়ায় রাজ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২৬৮ হয়েছে।

তামিলনাডু : কেন্দ্রশাসিত পন্ডিচেরীতে গত ২৪ ঘন্টায় এ যাবৎ একদিনেই সর্বাধিক ৬০৪ জনের সংক্রমণের খবর মিলেছে এবং ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর ফলে, করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১৩ হাজার ২৪ হয়েছে। নিশ্চিতভাবে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৭৪৫ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১৯৯ জনের। এদিকে তামিলনাডুর মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, করোনা মহামারীর সময় সর্বাধিক বিনিয়োগ আকর্ষণের দিক থেকে রাজ্যগুলির মধ্যে তামিলনাডু সবার ওপরে রয়েছে।

কর্ণাটক : রাজ্যের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা মন্ত্রী জানিয়েছেন বিদ্যালয়গুলি পুনরায় খোলার অথবা নিয়মিত পঠন-পাঠনের ব্যাপারে এখনও কোনও নিশ্চয়তা নেই। এদিকে রাজ্যে গতকাল এ যাবৎ একদিনেই সর্বাধিক ৯ হাজার ৩৮৬ জন করোনায় সংক্রমিত হওয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লক্ষ ৯ হাজার ছাড়িয়েছে।

অন্ধ্রপ্রদেশ : কোভিড আক্রান্ত রোগীদের সেবায় সরকারি হাসপাতালগুলিতে যে সমস্ত চিকিৎসক জীবন উৎসর্গ করেছেন, তাঁদের পরিবারগুলিকে সবরকম সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। এই প্রেক্ষিতে রাজ্যের চিকিৎসা স্বাস্থ্য দপ্তর নির্দেশিকা জারি করেছে এবং বলা হয়েছে এক মাসের মধ্যেই শোকসন্তপ্ত পরিবারের একজনকে সরকারি চাকরি দেওয়া হবে। রাজ্যের কারা সংক্রান্ত ডিজিপি জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত রাজ্যে করোনায় কেবল একজন কারাবন্দীর মৃত্যু হয়েছে। রাজ্যে গতকাল পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লক্ষ ৯৩ হাজারেরও বেশি।

তেলেঙ্গানা : রাজ্যে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ২ হাজার ৯৩২ জনের করোনায় সংক্রমিত হওয়ার এবং ১১ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। রাজ্যে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ১৭ হাজার ছাড়িয়েছে। নিশ্চিতভাবে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৮ হাজার ৯৪১ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭৯৯ জনের। এদিকে রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর গত এক সপ্তাহ ধরে দৈনিক-ভিত্তিতে ৫০-৬০ হাজার নমুনা পরীক্ষা করছে।

 



CG/BD/SB



(Release ID: 1649359) Visitor Counter : 7