প্রধানমন্ত্রীরদপ্তর

রাষ্ট্রসঙ্ঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদের সভায় উচ্চস্তরীয় অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীর মূল ভাষণ

Posted On: 17 JUL 2020 8:46PM by PIB Kolkata

নতুন দিল্লি, ১৭ জুলাই, ২০২০

 



প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী আজ নিউইয়র্কে রাষ্ট্রসঙ্ঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদ(ইকোসক)এর সভায় এ বছরের উচ্চস্তরীয় অধিবেশনে মূল ভাষণ দিয়েছেন।

 ২০২১-২২ পর্যন্ত নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য হিসাবে গত ১৭ই জুন ভারতের প্রতি বিপুল সমর্থনের প্রেক্ষিতে রাষ্ট্রসঙ্ঘের বৃহত্তর সদস্য দেশগুলির উদ্দেশে এই প্রথমবার ভাষণ দিলেন  প্রধানমন্ত্রী।

এবছর ইকোসকের উচ্চস্তরীয় সভার মূল ভাবনা হ’ল – "কোভিড-১৯ এর পর বহুপাক্ষিকতা : ৭৫তম বার্ষিকীতে আমাদের কেমন রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রয়োজন"।


রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রতিষ্ঠার ৭৫তম বার্ষিকীতে উচ্চস্তরীয় ইকোসক অধিবেশনের মূল ভাবনার সঙ্গে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে ভারতের অগ্রাধিকারের বিষয়গুলি প্রতিফলিত হয়। প্রধানমন্ত্রী কোভিড-১৯ পরবর্তী বিশ্বে 'বহুপাক্ষিক সংস্কার'এর পক্ষে পুনরায়  ভারতের আহ্বানের কথা তুলে ধরেন যা,সমসাময়িক বিশ্বের বাস্তবতাকে প্রতিফলিত  করে।


 প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে সুস্থায়ী উন্নয়নের লক্ষ্য সহ ইকোসক এবং রাষ্ট্রসঙ্ঘের উন্নয়নমূলক কাজের সঙ্গে ভারতের দীর্ঘ সম্পর্কের কথা স্মরণ করেন। তিনি উল্লেখ করেন যে, ‘সবকা সাথ, সাবকা বিকাশ, সবকা বিশ্বাস’ - ভারতের এই উন্নয়নমূলক নীতিটি কাউকে পিছনে না রেখে সুস্থায়ী উন্নয়নের লক্ষ্যে অনুরণিত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন যে ভারতের এই বিশাল জনসংখ্যার আর্থ-সামাজিক সূচককের উন্নতির সাফল্য বিশ্বে সুস্থায়ী উন্নয়নের লক্ষ্যে উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলেছে। অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশগুলির সুস্থায়ী উন্নয়নের লক্ষ্য পূরণে ভারতের প্রতিশ্রুতির কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

 তিনি "স্বচ্ছ ভারত অভিযানের" মাধ্যমে সাফাই কার্যকলাপে উন্নতি, নারীর ক্ষমতায়ন, আর্থিক অন্তর্ভুক্তি সুশ্চিতকরণ এবং "সকলের আবাসন" ও "আয়ুষ্মান ভারত" প্রকল্প মতো জন কল্যাণমুখী কর্মসূচির  মাধ্যমে আবাসন ও স্বাস্থ্য পরিষেবা প্রদানের মতো একাধিক উন্নয়নমূলক প্রয়াস চালানো হচ্ছে বলেও জানান।

প্রধানমন্ত্রী পরিবেশগত স্থায়িত্ব এবং জীব-বৈচিত্র্য সংরক্ষণের বিষয়ে ভারতের দৃষ্টিভঙ্গির বিষয়ে আলোকপাত করেন এবং আন্তর্জাতিক সৌর জোট ও বিপর্যয় প্রতিরোধ পরিকাঠামো প্রতিষ্ঠায় ভারতের অগ্রণী ভূমিকার কথা স্মরণ করেন।


নিজের পাশ্ববর্তী অঞ্চলকেই সর্বপ্রথম গুরুত্ব দেওয়া, এই প্রসঙ্গে ভারতের ভূমিকার কথা বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন দেশকে ওষুধ সরবরাহ নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে ভারত সরকার এবং ভারতীয় ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলির দেওয়া সহায়তা প্রদান ও সার্কগোষ্ঠী ভুক্ত  দেশগুলির মধ্যে একটি যৌথ কৌশলগত  প্রতিক্রিয়া সমন্বিত করার কথাও স্মরণ করেন।

 এই নিয়ে  দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী ইকোসকে সম্বোধন করলেন।  তিনি এর আগে ২০১৬ সালে জানুয়ারি মাসে ইকোসকে ৭০তম বার্ষিকীতে মূল ভাষণ দিয়েছিলেন।

 

 


CG/SS



(Release ID: 1639541) Visitor Counter : 243