PIB Headquarters

কোভিড-১৯ সংক্রান্ত পিআইবি’র প্রাত্যহিক সংবাদ

Posted On: 23 SEP 2020 6:43PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০

 

 

ভারতে উচ্চহারে আরোগ্য লাভ অব্যাহত রয়েছে; পরপর পাঁচ দিন ধরে আরোগ্য লাভের পরিমাণ নতুন সংক্রমণের থেকে বেশী; কোভিড মুক্তর হার ক্রমবর্ধমান, ৮১ শতাংশ ছাড়ালো

নির্দিষ্ট কৌশল এবং কার্যকর, সমন্বিত ও সক্রিয় ব্যবস্থা নিয়ে ভারতে কোভিড মুক্তির হার ক্রমবর্ধমান। পরপর পাঁচ দিন ধরে আরোগ্য লাভের পরিমাণ নতুন সংক্রমণের থেকে বেশী। গত চব্বিশ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন, ৮৯,৭৪৬ জন। অন্য দিকে নতুন করে ৮৩,৩৪৭ জন সংক্রমিত হয়েছে। এর ফলে মোট ৪৫, ৮৭, ৬১৩ জন আরোগ্য লাভ করলেন। আজ সুস্থতার হার ৮১.২৫%। সারা বিশ্বে সবথেকে বেশী সংক্রমিত ভারতে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। মোট কোভিড মুক্ত হওয়ার হিসেবে ১৯.৫% ভারতে থাকেন। বিভিন্ন রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলি যথাযথ নিয়ম পালনের ফলে এটি সম্ভব হয়েছে। ১৭টি রাজ্য এবং কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে আরোগ্য লাভের পরিমাণ নতুন সংক্রমণের থেকে বেশী। মহারাষ্ট্র, কর্ণাটক, অন্ধ্র প্রদেশ, উত্তর প্রদেশ, তামিলনাড়ু, ওড়িশা, দিল্লি, কেরালা, পশ্চিমবঙ্গ এবং হরিয়ানা এই রাজ্যগুলিতে সুস্থ হয়ে ওঠার মোট ৭৫% থাকেন। মহারাষ্ট্রে এক দিনে ২০ হাজারের বেশী এবং অন্ধ্রপ্রদেশে এক দিনে ১০ হাজারের বেশী সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1658011 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 

কোভিড-১৯-এর বিষয়ে সর্বশেষ তথ্য; ১৪টি রাজ্য কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে জাতীয় হারের থেকে বেশি পরিমানে নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে এবং সংক্রমণের হার কম; নতুন সংক্রমণের ৭৪ শতাংশই হচ্ছে ১০টি রাজ্য কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে

ভারতের দৈনিক নমুনা পরীক্ষার হার ১২ লক্ষেরও বেশি। দেশে এ পর্যন্ত ৬.৬ কোটির বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। বেশি পরিমানে নমুনা পরীক্ষা হলে দ্রুত সংক্রমিতদের শনাক্ত করা যাবে, এরফলে সংক্রমণের হারও কমবে। ভারতে ১৪টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে প্রতি ১০ লক্ষ জনের হিসেবে নমুনা পরীক্ষার হার বেশি এবং সংক্রমণের হার জাতীয় হারের তুলনায় কম। আজকের হিসেবে দেশে মোট সংক্রমিতের হার ৮.৫২ শতাংশ। প্রতি ১০ লক্ষ জন পিছু ৪৮ হাজার ২৮ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে।

বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1658089 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 

আয়ুষ্মান ভারতপ্রধানমন্ত্রী জন আরোগ্য যোজনার দ্বিতীয় বার্ষিকীতে আরোগ্য মন্থন অনুষ্ঠানে পৌরহিত্য করলেন ডঃ হর্ষ বর্ধন

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডঃ হর্ষ বর্ধন গতকাল আয়ুষ্মান ভারত – প্রধানমন্ত্রী জনআরোগ্য যোজনার দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত আরোগ্য মন্থন ২.০ অনুষ্ঠানে পৌরহিত্য করেন। বিভাগীয় প্রতিমন্ত্রী শ্রী অশ্বিনী কুমার চৌবে অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এক ঐতিহাসিক পদক্ষেপ হিসাবে আয়ুষ্মান ভারত প্রধানমন্ত্রী জনআরোগ্য যোজনার প্রশংসা করে ডঃ হর্ষ বর্ধন বলেন, বিশ্বের সর্ববৃহৎ জনস্বাস্থ্য সুরক্ষা বিমা কর্মসূচি হিসাবে আয়ুষ্মান ভারত ৫৩ কোটিরও বেশি আর্থ-সামাজিক দিক থেকে পিছিয়ে পড়া মানুষকে ৫ লক্ষ টাকার স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদান করেন। কর্মসূচির আওতায় ১৫ হাজার ৫০০ কোটি টাকার বেশি অর্থের বিনিময়ে সাধারণ মানুষকে চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া হয়েছে। গত দু’বছরে ১ কোটি ২৬ লক্ষেরও বেশি সুফলভোগী এই কর্মসূচির আওতায় নিখরচায় চিকিৎসা পরিষেবা পেয়েছেন। এমনকি, কর্মসূচির আওতায় নথিভুক্ত হাসপাতালের সংখ্যা এখনও পর্যন্ত ২৩ হাজারেরও বেশি এবং ১২ কোটি ৫০ লক্ষেরও বেশি ই-স্বাস্থ্য কার্ড প্রদান করা হয়েছে।

বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1657981 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 

ভারতে প্রতিষ্ঠানগুলির মধ্যে গড় সর্বাধিক কম সময়ে লক্ষ্ণৌর একটি পরীক্ষাগার কোভিড-১৯ নমুনা পরীক্ষা পরিচালনা করেছে

কোভিড-১৯ এ আক্রান্তের সংখ্যা যখন রেকর্ড সংখ্যায় পৌঁছেছে তখন লক্ষ্ণৌয়ের একটি পরীক্ষাগার দেশে নমুনা পরীক্ষাকারী প্রতিষ্ঠানগুলির মধ্যে গড় সর্বাধিক কম সময়ে কোভিড নমুনা পরীক্ষা পরিচালনা করেছে। লক্ষ্ণৌর বীরবল সাহানী ইন্সটিটিউট অফ প্যালেও সায়েন্সেস দৈনিক ১ হাজার থেকে ১ হাজার ২০০টি পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করেছে। এখনও পর্যন্ত এই পরীক্ষাগারে ৫০ হাজারেরও বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে, যার মধ্যে ১ হাজার ৬০০ নমুনা পরীক্ষায় ভাইরাসের উপস্থিতির প্রমাণ পাওয়া গেছে।

বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1658124 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 

প্রতিবেশী দেশগুলিতে ক্লিনিকাল ট্রায়াল রিসার্চ ক্যাপাসিটি আরও সুদৃঢ় করতে জৈব প্রযুক্তি দপ্তরের পক্ষ থেকে কর্মসূচির সূচনা

কেন্দ্রীয় জৈব প্রযুক্তি দপ্তর দ্রুত টিকা আবিষ্কার ও টিকা উদ্ভাবনের সঙ্গে যুক্ত ভারতীয় সংস্থাগুলির প্রচেষ্টাকে সহায়তা দিতে এক কর্মসূচির সূচনা করেছে। এই কর্মসূচির উদ্দেশ্য হ’ল – ভারতে সম্ভাব্য মহামারীজনিত রোগব্যাধির প্রতিকারে প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি ও সহায়তা দিয়ে প্রতিষেধক টিকা উদ্ভাবনের প্রচেষ্টাগুলিকে আরও জোরদার করা। বর্তমান কোভিড-১৯ মহামারী পরিস্থিতিতে টিকার ক্লিনিকাল ট্রায়ালের জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা অত্যন্ত জরুরি হয়ে উঠেছে। এই লক্ষ্যে জৈব প্রযুক্তি দপ্তর প্রতিবেশী দেশগুলিতেও ক্লিনিকাল ট্রায়াল রিসার্চ ক্যাপাসিটি আরও মজবুত করতে প্রশিক্ষণ কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। বিদেশ মন্ত্রকের সঙ্গে সহযোগিতায় দক্ষিণ এশিয়া, আসিয়ান এবং আফ্রিকা অঞ্চলের দেশগুলিতে এই কর্মসূচি রূপায়ণের পরিকল্পনা করা হয়েছে।

বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1658123 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 

অভ্যন্তরীণ পরিবহণের জন্য তরল অক্সিজেন সরবরাহে আইএসও ট্যাঙ্ক কন্টেনার ব্যবস্থার প্রচলনে কোভিড-১৯ মহামারীর প্রেক্ষিতে পেট্রোলিয়াম বিস্ফোরক সুরক্ষা সংগঠনকে অনুমতি দেওয়া হয়েছে

কোভিড-১৯ মহামারীর প্রেক্ষিতে এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে দ্রুত অক্সিজেন সরবরাহের বিষয়টিকে বিবেচনায় রেখে স্বল্প সময়ের মধ্যে যে সমস্ত এলাকায় অতিরিক্ত অক্সিজেনের যোগান রয়েছে, সেখান থেকে ঘাটতিপূর্ণ এলাকাগুলিতে অক্সিজেন সরবরাহের জন্য আইএসও কন্টেনার ব্যবহার করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় শিল্প ও অভ্যন্তরীণ বাণিজ্য প্রসার দপ্তর দেশে তরল অক্সিজেন সরবরাহে আইএসও ট্যাঙ্ক কন্টেনার ব্যবহারের জন্য পেট্রোলিয়াম ও বিস্ফোরক সুরক্ষা সংগঠনকে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। নোভেল করোনা ভাইরাস মহামারীর মধ্যেই সড়কপথে আইএসও কন্টেনারের মাধ্যমে অক্সিজেন সরবরাহ কয়েকগুণ বেড়েছে।

বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1658008 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 

শিল্পের বিকাশ হার বাড়াতে ব্যবস্থা গ্রহণ

বিকাশ হার একাধিক বিষয়, যেমন - উপযুক্ত পরিকাঠামো, অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি, অর্থ ব্যবস্থা ও অন্যান্য শিল্প সংক্রান্ত বিষয়গুলির ওপর নির্ভরশীল। ভারতের শিল্প সংস্থায় বিকাশ হারের সঙ্গে স্বাভাবিকভাবেই বিশ্বব্যাপী শিল্প সংস্থার অগ্রগতির বিষয়টিও জড়িয়ে রয়েছে। অপ্রত্যাশিত কোভিড-১৯ এর প্রকোপ বিশ্বের প্রধান অর্থনীতিগুলিতেও বিরূপ প্রভাব ফেলেছে। এই প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় সরকার শিল্প সংস্থার অগ্রগতিতে মন্থরতা দূর করতে একাধিক ব্যবস্থা নিয়েছে। আত্মনির্ভর ভারত প্যাকেজের অঙ্গ হিসাবে কৃষি সহ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প সংস্থাগুলির জন্য কাঠামোগত সংস্কারের কথা ঘোষণা করা হয়েছে, যাতে প্রতিরক্ষা ও মহাকাশ ক্ষেত্রের মতো অন্যান্য শিল্পেও প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগের পরিমাণ বাড়ানো যায়। রাজ্যসভায় আজ লিখিত জবাবে এই তথ্য দেন বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রী শ্রী পীযূষ গোয়েল।

বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1658136 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 

জি-২০ দেশগুলির বাণিজ্য বিনিয়োগ মন্ত্রীদের বৈঠকে অংশ নিলেন শ্রী পীযূষ গোয়েল

কেন্দ্রীয় শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রী শ্রী পীযূষ গোয়েল জি-২০ দেশগুলির বাণিজ্য ও বিনিয়োগ মন্ত্রীদের এক ভার্চ্যুয়াল বৈঠকে গতকাল অংশ নেন। বৈঠকে শ্রী গোয়েল কোভিড-১৯ এর প্রভাব থেকে অর্থ ব্যবস্থাকে পুনরুদ্ধারের জন্য এক কার্যকর ভূমিকা পালনের জন্য জি-২০ দেশগুলির নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানান। এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, সমস্ত দেশের কাছে কোভিডের সময় যে বিষয়টি সবচেয়ে বেশি শিক্ষণীয় হয়েছে, তা হ’ল – অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্দেশীয় আর্থিক নীতিগুলির মধ্যে সঠিক সামঞ্জস্য বজায় রাখা, যাতে সুস্থায়ী ও সুষম উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখা যায়। তিনি আরও বলেন, ভারত সামগ্রিক ও উন্নয়নমূলক প্রয়াসগুলিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে জি-২০ সদস্য দেশগুলির সঙ্গে গঠনমূলক ভূমিকা পালনে প্রস্তুত রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীর সুদক্ষ নেতৃত্বে ভারত বর্তমান সঙ্কটকে সুযোগ হিসাবে কাজে লাগিয়ে প্রতিটি ক্ষেত্রেই সাহসী ও তাৎপর্যপূর্ণ সংস্কারমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করছে।

বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1657874 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 

তফশিলভুক্ত ৮৭১টি অত্যাবশ্যক ওষুধপত্রের ফর্মুলেশন বা ৎপাদন প্রণালীকে মূল্য নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে

কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, জাতীয় ফার্মাসিউটিকাল প্রাইসিং অথরিটি ২০১৫’র অত্যাবশ্যক ওষুধপত্রের জাতীয় তালিকার আওতায় তফশিলভুক্ত ৮৭১টি ওষুধ উৎপাদন প্রাণালীকে স্থায়ী মূল্য নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। রাজ্যসভায় আজ এক লিখিত জবাবে এই তথ্য দেন রসায়ন ও সার মন্ত্রী শ্রী ডি ভি সদানন্দ গৌড়া। তিনি আরও জানান, কার্ডিয়াক স্টেন্ট, হাঁটু প্রতিস্থাপন, ১০৬টি অ্যান্টিডায়াবেটিক এবং হৃদরোগের ওষুধ সহ ৪২টি তফশিল বহির্ভূত ক্যান্সার প্রতিরোধী ওষুধকেও মূল্য নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার আওতায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1658160 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 

লকডাউনের সময় অত্যাবশ্যক পণ্য সামগ্রী সরবরাহ অব্যাহত

কোভিড-১৯ মহামারীজনিত লকডাউনের প্রেক্ষিতে আর্থিক সহায়তার অঙ্গ হিসাবে কেন্দ্রীয় সরকার প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ অন্ন যোজনার আওতায় ২০১৩’র জাতীয় খাদ্য সুরক্ষা আইনের সুফলভোগীদের এপ্রিল থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত ৮ মাসের জন্য ব্যক্তি পিছু প্রতি মাসে ৫ কেজি করে খাদ্যশস্য এবং পরিবার পিছু ১ কেজি করে ডালশস্য সম্পূর্ণ বিনামূল্যে সরবরাহ করেছে। প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ অন্ন যোজনার প্রথম পর্যায়ে এপ্রিল থেকে জুন মাস পর্যন্ত ১৮ কোটি ২৭ লক্ষ সুফলভোগী পরিবারের মধ্যে ৫ লক্ষ ৪৮ হাজার ১৭২ মেট্রিক টনেরও বেশি ডালশস্য বন্টন করা হয়েছে। গরিব কল্যাণ অন্ন যোজনার দ্বিতীয় পর্যায় আগামী নভেম্বর মাস পর্যন্ত সম্প্রসারিত করা হয়েছে। রাজ্যসভায় আজ এক লিখিত জবাবে এই তথ্য দেন গ্রাহক বিষয়ক, খাদ্য ও গণবন্টন মন্ত্রী শ্রী দানভে রাওসাহেব দাদারাও।

বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1658098 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 

ঐতিহাসিক যুগান্তকারী পদক্ষেপ হিসাবে শ্রম আইনগুলি কার্যকর করার জন্য সংসদে ৩টি শ্রমবিধি পাস হয়েছে

রাজ্যসভায় আজ ৩টি শ্রমবিধি পাস হয়েছে। এগুলি হ’ল – ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিলেশন কোড, কোড অন অক্যুপেশনাল সেফটি, হেলথ অ্যান্ড ওয়ার্কিং কন্ডিশন কোড, ২০২০ এবং সোশ্যাল সিকিউরিটি কোড, ২০২০। এই তিনটি বিধি পাস হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তা একপ্রকার কার্যকর হওয়া সুনিশ্চিত হ’ল। এই বিল ৩টি গতকালই লোকসভার অনুমোদন পায়। বিল ৩টি আলোচনার সময় শ্রী গাঙ্গোয়ার বিধি তিনটি পাস হওয়ার ঘটনাকে এক ঐতিহাসিক সংস্কারের নজির হিসাবে বর্ণনা করে বলেন, এর ফলে শ্রমিক, শিল্প ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্য পক্ষের মধ্যে সমন্বয় ও সৌহার্দ্যের পরিবেশ আরও মজবুত হবে।

বিস্তারিত বিবরণের জন্য https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1658197 – এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

 

 

 

পিআইবি আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে প্রাপ্ত তথ্য

 

চন্ডীগড় : কেন্দ্রশাসিত এই অঞ্চলের প্রশাসক মুখ্য স্বাস্থ্য সচিবকে নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, হোম আইসোলেশনে থাকা রোগীদের জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যায় অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করতে। স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিশেষ সচিবকে চন্ডীগড়ের তিনটি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান এবং ট্রাই সিটির অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলির সঙ্গে সমন্বয় বজায় রাখার নির্দেশ দিয়েছেন।

 

পাঞ্জাব : রাজ্যে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাওয়ার দরুণ রাজ্য সরকার যে ১৩টি জেলায় মৃত্যু হার সর্বাধিক সেখানে অক্সিজেন সরবরাহ সহ অন্যান্য চিকিৎসা সংক্রান্ত সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

 

 

আসাম : রাজ্যে গতকাল আরও ২ হাজার ৭৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর ফলে, মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ৬১ হাজার ছাড়িয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৫৮৬ জনের।

 

মিজোরাম : রাজ্যে গতকাল আরও ২২ জনের সংক্রমিত হওয়ার খবর মেলায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১ হাজার ৭১৩ হয়েছে।

 

নাগাল্যান্ড : রাজ্যে গতকাল আরও ৬০ জনের করোনায় সংক্রমিত হওয়ার খবর মিলেছে।

 

সিকিম : রাজ্যে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ১ জনের মৃত্যুর খবর মেলায় করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩০ হয়েছে। নিশ্চিতভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৬৭৫।

 

মহারাষ্ট্র : রাজ্যে পর পর ৪ দিন আক্রান্তের তুলনায় সুস্থ হওয়া ব্যক্তির সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। মঙ্গলবার ২০ হাজারেরও বেশি রোগী করোনা মুক্ত হয়েছেন। রাজ্যে বর্তমানে ২ লক্ষ ৭২ জনের চিকিৎসা চলছে। এদিকে রাজ্যের বিদ্যালয় শিক্ষা মন্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

 

গুজরাট : রাজ্যে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার মধ্যে হাসপাতালগুলিতে রোগীদের শুশ্রূষাকারী কর্মীর অভাব মেটাতে রাজ্য সরকার সমস্ত এমবিবিএস স্তরের ছাত্রছাত্রীদের সরকার পরিচালিত মেডিকেল কলেজগুলিতে চিকিৎসার কাজে নিয়োজিত করার নির্দেশ জারি করেছে।

 

রাজস্থান : রাজ্যে গতকাল এ যাবৎ একদিনেই সর্বাধিক ১ হাজার ৯১২ জনের নতুন করে সংক্রমিত হওয়ার খবর মিলেছে। রাজ্যে মোট করোনায় আক্রান্তের ৬৬ শতাংশই জয়পুর, যোধপুর ও কোটা জেলা থেকে।

 

মধ্যপ্রদেশ : রাজ্যে শাসক দলের দুই ক্যাবিনেট মন্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে এখনও পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রী সহ ১২ জন মন্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

 

ছত্তিশগড় : রাজ্যে কোভিড-১৯ এ আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাওয়ার মধ্যেই জাতীয় স্বাস্থ্য মিশনের আওতায় চুক্তিবদ্ধ কর্মচারীদের চলতি কর্মবিরতির দরুণ স্বাস্থ্য পরিচর্যা পরিষেবায় বিরূপ প্রভাব পড়েছে। এদিকে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে কর্মবিরতিতে যাওয়া কর্মীদের সতর্ক করে বলা হয়েছে তাঁরা যদি দু’দিনের মধ্যে কাজে না ফেরেন, সেক্ষেত্রে কঠোর শৃঙ্খলামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

কেরল : তিরুবনন্তপুরম জেলার পাশাপাশি, রাজ্যের অন্যত্র করোনার গোষ্ঠী সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। রাজ্যে নমুনা পরীক্ষার হার জাতীয় গড়ের তুলনায় বেশি। এদিকে রাজ্যের কৃষি মন্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁকে নিয়ে মোট ৩ জন মন্ত্রী ভাইরাসের শিকার। এদিকে রাজ্যে ৪০ হাজারেরও বেশি রোগীর চিকিৎসা চলছে। রাজ্যে করোনায় মৃত্যু বেড়ে ৫৭৩ হয়েছে।

 

তামিলনাডু : রাজ্যে বিদ্যালয়গুলি পাঠ্যসূচি হ্রাস করার ব্যাপারে এখনও কোনও নির্দেশিকা পায়নি। গতকাল আরও ৭৬ জনের মৃত্যুর খবর মেলায় রাজ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৮ হাজার ৯৪৭ হয়েছে।

 

কর্ণাটক : সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, কালাবুর্গী জেলায় গত ১০ই মার্চ থেকে ১৫ হাজারেরও বেশি ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এদিকে এই জেলাতেই করোনা সংক্রমণের ক্ষেত্রে এক অপ্রত্যাশিত প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

 

অন্ধ্রপ্রদেশ : রাজ্যের পূর্ব গোদাবরী ও ভিজিয়ানা গ্রাম জেলায় কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ধীরে ধীরে কমছে। দৈনিক ১৬ শতাংশ হারে আক্রান্তের সংখ্যা কমছে এবং ১.৫ শতাংশ হারে নিশ্চিতভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে। গত ২১ তারিখ থেকে বিদ্যালয়গুলি খোলার পর ছাত্রছাত্রীদের উপস্থিতির হার অতি নগণ্য। নবম, দশম ও ইন্টারমিডিয়েট স্তরের ছাত্রছাত্রীদের জন্য বিদ্যালয়ে নিয়মিত পঠন-পাঠন আগামী ৫ই অক্টোবর থেকে শুরু হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে রাজ্যের শিক্ষা মন্ত্রী জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

 

তেলেঙ্গানা : রাজ্যে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ২ হাজার ২৯৬ জন করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন এবং ১০ জন মারা গেছেন। এর ফলে, রাজ্যে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ৭৭ হাজার ছাড়িয়েছে এবং মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৬২ জনের। এদিকে হায়দরাবাদ-ভিত্তিক টিকা উৎপাদক সংস্থা ভারত বায়োটেক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ মেডিসিনের সঙ্গে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত এক ডোজ-বিশিষ্ট ইন্ট্রা নাজাল টিকা উদ্ভাবনের বিষয়ে এক চুক্তিতে সম্মত হয়েছে। ভারত বায়োটেক সংস্থা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জাপান ও ইউরোপ বাদে বিশ্বের অন্যত্র একক ডজ-বিশিষ্ট এই টিকাটি বন্টন ও সরবরাহের স্বীকৃতি পেয়েছে।

 

 

CG/BD/SB



(Release ID: 1658424) Visitor Counter : 6