প্রধানমন্ত্রীরদপ্তর

প্রধানমন্ত্রী গোয়ায় কোভিড টিকাকরণ অভিযানে যুক্ত স্বাস্থ্য কর্মী ও সুবিধাভোগীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন
গোয়ার প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকদের টিকার প্রথম ডোজ ১০০ শতাংশ সম্পূর্ণ হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা
অনুষ্ঠানে শ্রী মনোহর পারিক্করের কর্মধারাকে স্মরণ করা হয়েছে
‘সবকা সাথ সবকা বিকাশ, সবকা বিশ্বাস ও সবকা প্রয়াস’ – এর যথাযথ ফলফল গোয়া উপস্থাপিত করেছে : প্রধানমন্ত্রী
আমি জীবনে অনেক জন্মদিন পালন করেছি এবং সব জন্মদিনই একই রকম ছিল কিন্তু গতকাল আড়াই কোটি মানুষের টিকা পাওয়ার খবরে আমি আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েছি : প্রধানমন্ত্রী
গতকাল প্রতি ঘণ্টায় ১৫ লক্ষেরও বেশি, প্রতি মিনিটে ২৬ হাজারেরও বেশি ও প্রতি সেকেন্ডে ৪২৫টিরও বেশি ডোজ দেওয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী
গোয়ার প্রতিটি সাফল্য ‘এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত’ – এর ধারণার উদাহরণ হয়ে ওঠায় আমি অত্যন্ত আনন্দিত : প্রধানমন্ত্রী
গোয়া শুধুমাত্র একটি রাজ্যই নয়, গোয়া হল ব্র্যান্ড ইন্ডিয়ার একটি শক্তিশালী অংশীদার : প্রধানমন্ত্রী

Posted On: 18 SEP 2021 12:40PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ১৮ সেপ্টেম্বর,  ২০২১

 

প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী গোয়ার কোভিড টিকাকরণ অভিযানের সঙ্গে যুক্ত স্বাস্থ্য কর্মী ও সুবিধাভোগীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মতবিনিময় করেছেন। এই রাজ্যের ১০০ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্কই টিকার প্রথম ডোজ পেয়েছেন।

স্বাস্থ্য কর্মী ও সুবিধাভোগীদের সঙ্গে মতবিনিময় :

মতবিনিময়ের সময় প্রধানমন্ত্রী গোয়া মেডিকেল কলেজের লেকচারার ডাঃ নীতিন ধূপডালেকে প্রশ্ন করেন, কিভাবে কোভিড টিকা নেওয়ার জন্য তিনি সকলকে পরামর্শ দিয়েছেন। কোভিড টিকাকরণ অভিযান এবং অন্যান্য টিকাকরণ অভিযানের মধ্যে পার্থক্য নিয়ে তিনি আলোচনা করেন। এই বিশেষ অভিযানটিকে অগ্রাধিকার দেওয়ায় ডাঃ ধূপডালে সরকারের  প্রশংসা করেন। বিরোধীদের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আড়াই কোটি মানুষ টিকা পাওয়ার পরও কিভাবে তাঁরা বিরূপ মন্তব্য করেন। শ্রী মোদী চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের গোয়ার প্রাপ্তবয়স্ক সকলের টিকার প্রথম ডোজ পাওয়ায় প্রশংসা করেন।  তিনি বলেন, সারা বিশ্বের কাছে এটি অনুপ্রেরণার উদাহরণ হয়ে থাকবে।

প্রধানমন্ত্রী কোভিড সুবিধাভোগী ও সমাজসেবী শ্রী নাজির শেখের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় জানতে পারেন, কিভাবে তিনি অন্যদের কোভিড টিকা নিতে উৎসাহিত করেন এবং টিকা কেন্দ্রে তাঁদের নিয়ে আসার সময় কি কি সমস্যার সম্মুখীণ হন। শ্রী মোদী শ্রী নাজিরকে টিকাকরণ অভিযানে তাঁর অভিজ্ঞতার কথা জিজ্ঞেস করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, শ্রী নাজিরের উদ্যোগের জন্য এ ধরনের গুরুত্বপূর্ণ অভিযান সাফল্যের মুখ দেখেছে, যা যথাযথ সবকা প্রয়াসের উদাহরণ। প্রধানমন্ত্রী দেশের সর্বত্র সচেতন সমাজসেবীদের উদ্যোগের প্রশংসা করেন। 

শ্রী মোদী,  শ্রীমতী সীমা ফার্নান্ডেজের সঙ্গে কথা বলার সময় টিকাকরণ নিয়ে মানুষের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর তিনি কিভাবে দেন, সে বিষয়ে বিস্তারিত খোঁজ-খবর নেন। শ্রীমতী ফার্নান্ডেজ কোল্ড চেনের বিষয়ে ব্যাখ্যা করেন। টিকাকরণে কিভাবে কোল্ড চেন বজায় রাখা হয় এবং টিকার অপচয় বন্ধ করা হয় -  সে বিষয়ে শ্রী মোদী তাঁর কাছে জানতে চান। শ্রীমতী ফার্নান্ডেজের পারিবারিক বিভিন্ন সমস্যার মধ্যেও যেভাবে তিনি কাজ করে চলেছেন, প্রধানমন্ত্রী তার প্রশংসা করেন। এই প্রসঙ্গে তিনি করোনা যোদ্ধাদের পরিবারের সদস্যদের ভূমিকার জন্য তাঁদের ধন্যবাদ জানান।

শ্রী শশীকান্ত ভগতের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় প্রধানমন্ত্রী তাঁর জন্মদিনের দিন পরিচিতদের সঙ্গে কিভাবে আলাপ-চারিতায় মেতে উঠেছিলেন, সেই প্রসঙ্গ উল্লেখ করেন। কেউ যখন তাঁকে তাঁর বয়স কত জানতে চান, তিনি তখন তাঁদের বলেছেন, ‘আরও ৩০ বাকি আছে’। শ্রী মোদী ৭৫ বছর বয়সী শ্রী ভগৎ-কে পরামর্শ দেন, পূর্বের ঘটনাবলীর উপর বেঁচে না থেকে আগামী ২৫ বছর তিনি কি করবেন, তা নিয়ে পরিকল্পনা করতে হবে। টিকা নেওয়ার সময় শ্রী ভগৎ কি কি সমস্যায় পড়েছিলেন, প্রধানমন্ত্রী সে বিষয়ে জানতে চান। শ্রী ভগৎ প্রবীণ নাগরিকদের টিকাকরণ অভিযানে অগ্রাধিকার দেওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন। টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে অহেতুক ভয় দূর করতে তিনি পরামর্শ দেন। অবসরপ্রাপ্ত এই সেলস্ ট্যাক্স অফিসার জানিয়েছেন, ডায়াবেটিস থাকা সত্ত্বেও তাঁর কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়নি। প্রধানমন্ত্রী শ্রী ভগতের সমাজসেবামূলক কাজের প্রশংসা করেন এবং বলেন, কর ব্যবস্থায় সরলীকরণের মধ্য দিয়ে সহজ জীবনযাত্রা নিশ্চিত করার বিষয়ে সরকার অঙ্গীকারবদ্ধ।

প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতী সুইটি এস এম ভেঙ্গুরলেকরের সঙ্গে কথা বলার সময় প্রত্যন্ত অঞ্চলে কিভাবে তিনি টিকা উৎসবের আয়োজন করেছিলেন, সে বিষয়ে জানতে চান। এ ধরনের উৎসব আয়োজনের পরিকল্পনা পদ্ধতির পাশাপাশি, প্রধানমন্ত্রী মহামারীর সময় সাধারণ মানুষ যাতে সহজেই টিকা পান, সে বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছেন। কোভিড টিকাকরণের মত বৃহৎ উদ্যোগে যথাযথ তথ্য সঞ্চিত রাখা এবং সেগুলির প্রচার চালানোর বিষয়ে তিনি পরামর্শ দেন। 

প্রধানমন্ত্রী দৃষ্টিবঞ্চিত শ্রীমতী সুমেরা খানের কাছে তাঁর টিকাকরণ অভিযানের বিষয়ে জানতে চান। তিনি শ্রীমতী খানের শিক্ষা ক্ষেত্রের সাফল্যের প্রশংসা করেন এবং তাঁর আইএএস অফিসার হওয়ার স্বপ্ন পূরণ হবে বলে আশা প্রকাশ করেন। ভিন্নভাবে সক্ষম নাগরিকদের জীবন সাধারণ মানুষকে অনুপ্রাণিত করে বলে প্রধানমন্ত্রী মন্তব্য করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ :

প্রধানমন্ত্রী উপস্থিত সকলের উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার সময় পবিত্র গণেশ উৎসবে গোয়ার জনসাধারণ অনন্ত সূত্র অর্জন করায়, প্রশংসা করেছেন। গোয়ার প্রাপ্তবয়স্ক সকলে অন্তত টিকার প্রথম ডোজ পাওয়ায় তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, “করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক। গোয়ার প্রতিটি সাফল্য ‘এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত’– এর ধারণার উদাহরণ হয়ে ওঠায় আমি অত্যন্ত আনন্দিত”।   

আজকের এই সাফল্যের মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রী শ্রী মনোহর পারিক্করের কর্মধারার প্রসঙ্গটি স্মরণ করেন।

তিনি বলেন, বিগত কয়েক মাস ধরে গোয়ায় ভারী বৃষ্টিপাত, ঘূর্ণিঝড় এবং বন্যার মতো প্রাকৃতিক বিপর্যয় সত্ত্বেও গোয়া যেভাবে টিকাকরণ অভিযান চালিয়েছে, তার জন্য সব করোনা যোদ্ধা, স্বাস্থ্য কর্মী এবং টিম গোয়ার সদস্যরা প্রশংসার দাবীদার।

বিভিন্ন সামাজিক ও ভৌগোলিক সমস্যা সত্ত্বেও গোয়া যেভাবে বিভিন্ন বিষয়ের মধ্যে সমন্বয় ঘটিয়ে টিকাকরণ অভিযানকে সফল করে তুলেছে, প্রধানমন্ত্রী তার প্রশংসা করেছেন। ক্যানাকোনা মহকুমা রাজ্যের প্রত্যন্ত অঞ্চল হওয়া সত্ত্বেও সেখানে যেভাবে টিকাকরণ হয়েছে, তা আদর্শ। ‘সবকা সাথ সবকা বিকাশ, সবকা বিশ্বাস ও সবকা প্রয়াস’ – এর যথাযথ ফলফল গোয়া উপস্থাপিত করেছে।

প্রধানমন্ত্রী আবেগপ্লুত হয়ে বলেন, তাঁর জীবনে বহু জন্মদিন তিনি দেখেছেন, সেখানে কোনও তফাৎ নেই অথচ গতকাল তিনি অত্যন্ত আবেগপ্লুত হয়ে উঠেছিলেন। দেশের জনসাধারণ এবং কোভিড যোদ্ধাদের কর্তব্যবোধ ও নিষ্ঠার প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, “এই পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত সকলেই সম্পূর্ণ সহযোগিতা করেছেন। তাঁদের কর্তব্য নিষ্ঠার কারণে একদিনে আড়াই কোটি টিকাকরণ করা সম্ভব হয়েছে”।

গত দু’বছর ধরে চিকিৎসা জগতে যুক্ত সকলে যেভাবে নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনার বিরুদ্ধে  লড়াইয়ে দেশের মানুষকে সাহয্য করেছেন, তার ফলশ্রুতিতে গতকাল রেকর্ড সংখ্যক টিকার ডোজ দেওয়া সম্ভব হয়েছে। শ্রী মোদী জানান, হিমাচল প্রদেশ, গোয়া, চন্ডীগড় ও লাক্ষাদ্বীপে। প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকদের প্রত্যেকে টিকার প্রথম ডোজ পেয়েছেন।   এই সাফল্য সিকিম, আন্দামান, নিকোবর, কেরল, লাদাখ, উত্তরাখন্ড এবং দাদরা ও নগরহাভেলী শীঘ্রই অর্জন করতে চলেছে।

শ্রী মোদী বলেন, ভারত টিকাকরণ অভিযানে পর্যটন কেন্দ্রগুলিকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। আগে এ বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা হয়নি। আমাদের পর্যটন কেন্দ্রগুলিকে পুনরায় চালু করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কেন্দ্রীয় সরকার বিদেশি পর্যটকদের দেশের পর্যটন কেন্দ্রগুলিতে আসার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছেন। সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, ভারতে প্রথম ৫ লক্ষ পর্যটককে বিনামূল্যে কোভিড টিকা দেওয়া হবে। এর ফলে, পর্যটন কেন্দ্রের সঙ্গে সম্পৃক্ত সকলে সরকারের থেকে সহযোগিতার আশ্বাস পেয়েছেন। ১ লক্ষ নিবন্ধীকৃত ট্যুরিস্ট গাইডকে কোভিড টিকা দেওয়া হয়েছে।  

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ডবল ইঞ্জিন সরকারের কারণে গোয়া পর্যটন ক্ষেত্র আরও আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে এবং রাজ্যের কৃষক ও মৎস্যজীবীরা উপকৃত হচ্ছেন। আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই মোপা গ্রিনফিল্ড বিমানবন্দর , ছয় লেনের মহাসড়ক ও জুয়ারি সেতু সর্বসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হবে। এর ফলে, উত্তর ও দক্ষিণ গোয়ার মধ্যে যোগাযোগ উন্নত হবে।

শ্রী মোদী অমৃতকালে আত্মনির্ভরতার জন্য গোয়ার স্বয়মপূর্ণ হয়ে ওঠার লক্ষ্যপূরণে সকলকে শপথ নিতে বলেন। রাজ্যে ৫০ ধরণের জিনিস উৎপাদনের কাজ শুরু হয়েছে। বাড়ি বাড়ি শৌচালয় নির্মাণ, ১০০ শতাংশ বাড়িতে বিদ্যুতায়ন ও হর ঘর জল অভিযানের কথা তিনি উল্লেখ করেন। গত দু’বছরে দেশের ৫ কোটি বাড়িতে নলবাহিত জল পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। গোয়া সুপ্রশাসন ও সহজ জীবনযাত্রাকে অগ্রাধিকার দিয়ে যে পথ দেখাচ্ছে, প্রধানমন্ত্রী তার প্রশংসা করেন। দরিদ্র পরিবারগুলির জন্য রেশন, বিনামূল্যে রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার, পিএম-কিষাণ সম্মাননিধি বিতরণ, কিষাণ ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা আরও বেশি করে মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে শ্রী মোদী বলেন, মহামারীর সময়ও এই উদ্যোগ অব্যাহত ছিল। রাস্তার হকারদের কাছে স্বনিধি প্রকল্পের সুযোগ পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। গোয়াকে সীমাহীন সম্ভাবনার এক রাজ্য বলে বর্ণনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, গোয়া শুধুমাত্র একটি রাজ্যই নয়, গোয়া হল ব্র্যান্ড ইন্ডিয়ার একটি শক্তিশালী অংশীদার।    

 

CG/CB/SB



(Release ID: 1756147) Visitor Counter : 72