অর্থমন্ত্রক

আইন ও বিধি সম্পর্কিত জিএসটি পরিষদের সুপারিশ

Posted On: 12 JUN 2020 4:08PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ১২ জুন, ২০২০

 

 


কেন্দ্রীয় অর্থ তথা কর্পোরেট বিষয়ক মন্ত্রী শ্রীমতী নির্মলা সীতারমনের পৌরহিত্যে জিএসটি পরিষদের ৪০তম বৈঠক আজ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়। এই বৈঠকে বিভাগীয় প্রতিমন্ত্রী শ্রী অনুরাগ ঠাকুর সহ রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির অর্থমন্ত্রীরা ছাড়াও কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রকের উচ্চ পদস্থ আধিকারিকরা উপস্থিত ছিলেন। জিএসটি পরিষদ এই বৈঠকে আইন ও বিধিতে পরিবর্তন সংক্রান্ত নিম্নলিখিত সুপারিশ করেছে।


১) ব্যবসা-বাণিজ্যে সুবিধার জন্য ব্যবস্থা


ক) পাস্ট রিটার্নের ক্ষেত্রে বিলম্বিত মাশুলে ছাড় – বকেয়া রিটার্ন দাখিলগুলি মেটাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার অঙ্গ হিসাবে ২০১৭’র জুলাই থেকে ২০২০’র জানুয়ারি পর্যন্ত কর প্রদানযোগ্য সময়ে ফর্ম জিএসটিআর-৩বি দাখিলের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় তথ্য সংশোধন না করা সত্ত্বেও বিলম্বিত মাশুল কমানো অথবা প্রত্যাহার করা হয়েছে।


কর প্রদানের ক্ষেত্রে যদি কোনও দায়বদ্ধতা না থাকে, তা হলে বিলম্বিত মাশুল লাগবে না; যদি কোনও ক্ষেত্রে কর প্রদানের বাধ্যবাধকতা থাকে, তা হলে বিলম্বিত মাশুলের সর্বোচ্চ সীমা ৫০০ টাকা স্থির হয়েছে।


বিলম্বিত মাশুলে ছাড়ের এই সুবিধা ২০২০’র পয়লা জুলাই থেকে ৩০শে জুন পর্যন্ত সময়ে প্রয়জনীয় তথ্য সহ দাখিল করা জিএসটিআর-৩বি ফর্মগুলির ক্ষেত্রে কেবল প্রযোজ্য হবে।


খ) ২০২০’র ফেব্রুয়ারি, মার্চ ও এপ্রিল মাসের রিটার্ন দাখিলে বিলম্বের জন্য ছোট করদাতাদের সুবিধা – ৫ কোটি টাকা পর্যন্ত লেনদেন হয়ে থাকে, এমন ছোট করদাতাদের সুবিধার্থে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি, মার্চ এবং এপ্রিল মাসের জন্য রিটার্ন দাখিলে বিলম্বের ক্ষেত্রে কোনও অতিরিক্ত মাশুল ধার্য হবে না। পরিবর্তে, এই তিন মাসের জন্য মাশুলের হার বাৎসরিক ১৮ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৯ শতাংশ করা হয়েছে। ছোট করদাতারা বিধিবদ্ধ প্রদেয় কর আগামী ৩০শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জমা করতে পারবেন। এছাড়াও, ছোট করদাতাদের এই তিন মাসে বকেয়া না মেটানোর জন্য অতিরিক্ত সুদ দিতে হবে না। তবে, প্রদেয় কর আগামী ৬ই জুলাইয়ের মধ্যে মিটিয়ে ফেলতে হবে। অন্যথায়, আগামী ২৩শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিলম্বিত কর মেটানোর ক্ষেত্রে ৯ শতাংশ হারে সুদ ধার্য হবে।


গ) ছোট করদাতাদের ত্রৈমাসিক (মে, জুন ও জুলাই, ২০২০) কর প্রদানে সুবিধা – কোভিড-১৯ মহামারীর দরুণ ৫ কোটি টাকা পর্যন্ত লেনদেন হয়ে থাকলে এমন করদাতাদের সুবিধা দিতে আলোচ্য তিন মাসে লেনদেনের ক্ষেত্রে ফর্ম জিএসটিআর-৩বি মারফৎ রিটার্ন দাখিলে বিলম্বিত মাশুল ও সুদ ছাড় দেওয়া হবে। তবে, এই সুবিধা মিলবে আগামী সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত (নির্দিষ্ট তারিখ সঠিক সময়ে বিজ্ঞাপিত করা হবে)।


ঘ) রেজিস্ট্রেশন বাতিল রদ করতে চেয়ে আবেদনের ক্ষেত্রে এককালীন সুবিধা – যে সমস্ত করদাতা বাতিল হওয়া জিএসটি রেজিস্ট্রেশন পুনরায় কার্যকর করার আবেদন জানিয়েও সুফল পাননি, তাঁদের ঐ রেজিস্ট্রেশন পুনরায় কার্যকর করার জন্য আবেদন জানানোর সময়সীমা আগামী ৩০শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। তবে, এই সুবিধা কেবলমাত্র সেইসব ক্ষেত্রেই মিলবে, যে সমস্ত বাতিলের আবেদনগুলি গত ১২ই জুনের মধ্যে দাখিল করা হয়েছিল।


২) ২০১৭’র সিজিএসটি আইন এবং আইজিএসটি আইন সংশোধন করে ২০২০’র অর্থ আইনে নির্দিষ্ট ধারাগুলি গত ৩০শে জুন থেকেই কার্যকর হবে।


বিশেষ দ্রষ্টব্য : জিএসটি কাউন্সিলের এই সুপারিশগুলি সহজ ভাষায় সংশ্লিষ্ট সবপক্ষের সুবিধার্থে প্রকাশ করা হয়েছে। পরিষদের সুপারিশগুলি সংশ্লিষ্ট সার্কুলার/নোটিফিকেশনের মাধ্যমে পৃথকভাবে কার্যকর করা হবে।
 

 


CG/BD/SB



(Release ID: 1631180) Visitor Counter : 74