অর্থমন্ত্রক

রাজ্যগুলিকে মূলধনী ব্যয়ে উৎসাহ দিতে ‘মূলধনী বিনিয়োগের জন্য রাজ্যগুলিকে বিশেষ সহায়তা ২০২৩-২৪’ প্রকল্পের আওতায় ১৬টি রাজ্যের জন্য ৫৬,৪১৫ কোটি টাকার কেন্দ্রীয় বরাদ্দ

Posted On: 26 JUN 2023 4:00PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ২৬  জুন, ২০২৩

 

চলতি আর্থিক বছরে ১৬টি রাজ্যের ৫৬,৪১৫ কোটি টাকার মূলধনী বিনিয়োগ প্রস্তাবে অনুমোদন দিল কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রকের ব্যয় দপ্তর। ‘মূলধনী বিনিয়োগের জন্য রাজ্যগুলিকে বিশেষ সহায়তা ২০২৩-২৪’ প্রকল্পের আওতায় এই অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। রাজ্য ভিত্তিক টাকার বরাদ্দ নিচে দেওয়া হল :-

 

রাজ্যের নাম

বরাদ্দ অর্থ (কোটি টাকায়)

অরুণাচলপ্রদেশ

১,২৫৫

বিহার

৯,৬৪০

ছত্তিশগড়

৩,১৯৫

গোয়া

৩৮৬

গুজরাট

৩,৪৭৮

হরিয়ানা

১০৯৩

হিমাচল প্রদেশ

৮২৬

কর্ণাটক

৩,৬৪৭

মধ্যপ্রদেশ

৭,৮৫০

মিজোরাম

৩৯৯

ওড়িশা

৪,৫২৮

রাজস্থান

৬০২৬

সিকিম

৩৮৮

তামিলনাড়ু

৪০৭৯

তেলেঙ্গানা

২১০২

পশ্চিমবঙ্গ

৭,৫২৩

 

 

স্বাস্থ্য, শিক্ষা, সেচ, জল সরবরাহ, বিদ্যু, সড়ক, সেতু, রেল সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রের মূলধনী বিনিয়োগ প্রকল্পের জন্য এই অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে। জল জীবন মিশন এবং প্রধানমন্ত্রী গ্রাম সড়ক যোজনায় রাজ্যগুলি যাতে নিজেদের ভাগের টাকা দিতে পারে এবং প্রকল্প রূপায়ণের কাজে গতি আসে সেজন্য এই দুটি প্রকল্পের আওতাতেও রাজ্যগুলিকে অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে।

 

মূলধনী ব্যয়ের যে উচ্চ গুণক প্রভাব রয়েছে তার সুবিধা নিতে এবং রাজ্যগুলিকে মূলধনী ব্যয়ে উৎসাহ দিতে চলতি বছরের সাধারণ বাজেটে এই বিশেষ সহায়তা প্রকল্পের ঘোষণা করা হয়েছিল। এই প্রকল্পের আওতায় চলতি বছরে রাজ্যগুলিকে ৫০ বছরের সুদমুক্ত ঋণ হিসেবে ১.৩ লক্ষ কোটি টাকা পর্যন্ত দেওয়ার সংস্থান রয়েছে।

 

এই প্রকল্পের ৮টি ভাগ রয়েছে। প্রথম ভাগের অর্থ বরাদ্দ সব থেকে বেশি, ১ লক্ষ কোটি টাকা। এই অর্থ পঞ্চদশ অর্থ কমিশনের নির্দেশ মতো রাজ্যগুলির মধ্যে তাদের কেন্দ্রীয় করের ভাগের অনুপাতে বন্টন করা হয়েছে। প্রকল্পের অন্য ভাগগুলি সংস্কারের সঙ্গে সম্পর্কিত অথবা সুনির্দিষ্ট প্রকল্প ভিত্তিক।

 

প্রকল্পের দ্বিতীয় ভাগে বরাদ্দ অর্থের মধ্যে ৩০০০ কোটি টাকা সরিয়ে রাখা হয়েছে। এই অর্থ রাজ্য সরকারগুলির পুরনো গাড়ি ও অ্যাম্বুলেন্স বাতিল, পুরনো গাড়ির ওপর দায় মুকুব, যেসব ব্যক্তি পুরনো গাড়ি বাতিল করছেন তাদের কর ছাড় দেওয়া এবং স্বয়ংক্রিয় যানবাহন পরীক্ষার সুবিধা স্থাপনের জন্য ব্যয় করা হবে। প্রকল্পের তৃতীয় ও চতুর্থ ভাগের উদ্দেশ্য নগর পরিকল্পনা এবং নগর সংস্কারের জন্য রাজ্যগুলিকে উৎসাহ দেওয়া। ১৫ হাজার কোটি টাকা রাখা হয়েছে নগর সংস্কার পরিকল্পনার জন্য। পৌরসভাগুলির আর্থিক অবস্থার উন্নয়ন এবং তাদের ঋণ পাওয়ার যোগ্য করে তুলতে উৎসাহদান বাবদ রাখা হয়েছে ৫ হাজার কোটি টাকা।

 

এই প্রকল্পের আরও একটি উদ্দেশ্য হল, শহরাঞ্চলে পুলিশকর্মী ও তাঁদের পরিবারের জন্য থানার ভিতরে আবাসনের ব্যবস্থা করা। প্রকল্পের পঞ্চম ভাগে এ বাবদ ২ হাজার কোটি টাকা রাখা হয়েছে। জাতীয় সংহতির প্রসার, ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ প্রচারাভিযানকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া এবং প্রতিটি রাজ্যে ইউনিটি মল নির্মাণের মাধ্যমে ‘এক জেলা এক পণ্য’-এর ধারণাকে উৎসাহ দিতে প্রকল্পের ষষ্ঠ ভাগে ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

 

শিশু ও কিশোরদের জন্য পঞ্চায়েত ও ওয়ার্ড স্তরে ডিজিটাল পরিকাঠামোসম্পন্ন পাঠাগার গড়ে তুলতে রাজ্যগুলিকে উৎসাহদান বাবদ, প্রকল্পের সপ্তম ভাগে বরাদ্দ করা হয়েছে ৫ হাজার কোটি টাকা।

 

গত আর্থিক বছরেও অর্থ মন্ত্রক ‘মূলধনী বিনিয়োগের জন্য রাজ্যগুলিকে বিশেষ সহায়তা ২০২২-২৩’ শীর্ষক একই ধরণের একটি প্রকল্প প্রণয়ন করেছিল। তার আওতায় ৯৫,১৪৭.১৯ কোটি টাকার মূলধনী বিনিয়োগ প্রস্তাব অনুমোদিত হয়। রাজ্যগুলিকে দেওয়া হয় ৮১,১৯৫.৩৫ কোটি টাকা।

 

মূলধনী বিনিয়োগের জন্য রাজ্যগুলিকে বিশেষ আর্থিক সহায়তার এই প্রকল্প অর্থমন্ত্রক প্রথম চালু করেছিল ২০২০-২১ সালে। কোভিড-১৯ অতিমারির প্রেক্ষিতে সেই সময়ে রাজ্যগুলিকে মূলধনী ব্যয়ে উৎসাহিত করার বিশেষ প্রয়োজন দেখা দিয়েছিল। পরবর্তী প্রাক বাজেট আলোচনাগুলিতে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রী এই প্রকল্পের সহজতা ও নমনীয়তার প্রশংসা করেছেন।

CG/SD/NS



(Release ID: 1935395) Visitor Counter : 181