অর্থমন্ত্রক

করদাতারা দু বছরের মধ্যে আপডেট করা রিটার্ন ফাইল জমা করতে পারবেন

Posted On: 01 FEB 2022 12:56PM by PIB Kolkata
নতুন দিল্লি, ০১ ফেব্রুয়ারি, ২০২২
 
কেন্দ্রীয় অর্থ ও কর্পোরেট বিষয়ক মন্ত্রী শ্রীমতী নির্মলা সীতারমন আজ সংসদে কেন্দ্রীয় বাজেট ২০২২-২৩ পেশ করার সময় ঘোষণা করেছেন যে, সরকার একটি নতুন প্রস্তাব নিয়ে এসেছে, যার আওতায় করদাতারা অতিরিক্ত কর প্রদানের জন্য একটি ‘আপডেট করা রিটার্ন’ দাখিল করতে পারবেন। সংশ্লিষ্ট মূল্যায়ন বর্ষের শেষ থেকে দু বছরের মধ্যে এই রিটার্ন ফাইল দাখিল করা যাবে। আগে উল্লেখ না থাকা আয়ের পরিমাণ আপডেট রিটার্ন দাখিলে দেওয়া যাবে। তিনি বলেন, এই ব্যবস্থা করদাতাদের কর প্রদানের জন্য তাদের আয়ের সঠিক মূল্যায়নে বা ত্রুটি সংশোধনের সুযোগ করে দেবে। তিনি জানান, বর্তমানে যদি আয়কর বিভাগ জানতে পারে যে, একজন করদাতা তার রিটার্নে আয়ের কিছু অংশ দেখান নি, তাহলে পুরো বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে সংশ্লিষ্ট করদাতাকে দীর্ঘ প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয়। কিন্তু এই নতুন প্রস্তাবে সেই সমস্যা হবে না। তিনি বলেন, এটি স্বেচ্ছায় কর সম্মতির পক্ষে এক ইতিবাচক পদক্ষেপ। 
 
বিশেষভাবে সক্ষম ব্যক্তিদের কর ক্ষেত্রে ছাড় :
 
পিতা-মাতা বা অভিভাবকদের জীবদ্দশায় অর্থাৎ এদের বয়স ৬০ বছর পূর্ণ হওয়া পর্যন্ত নির্ভরশীল বিশেষভাবে সক্ষম বা দিব্যাঙ্গ ব্যক্তিরা বীমা কর্মসূচিগুলি থেকে বার্ষিক সুযোগ সুবিধা পাবেন। 
 
রাজ্য ও কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের মধ্যে সমতা :
 
কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, জাতীয় পেনশন কর্মসূচিতে প্রিমিয়াম প্রদানে সমতা নিয়ে আসা হয়েছে। রাজ্য সরকারী কর্মীদের এনপিএস অ্যাকাউন্টে নিয়োগকর্তার প্রিমিয়াম প্রদানের ক্ষেত্রে কর সংগ্রহের পরিমাণ ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১৪ শতাংশ করা হয়েছে। এর ফলে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের সঙ্গে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের সমতা আসবে। সামাজিক নিরাপত্তা সম্পর্কিত সুযোগ সুবিধা আরও বাড়বে। 
 
ভার্চুয়াল ডিজিটাল সম্পদের উপর কর আরোপের পরিকল্পনা :
 
যে কোনো ধরণের ভার্চুয়াল ডিজিটাল সম্পদের লেনদেন থেকে আয়ের উপর কর হার ৩০ শতাংশ হবে। এধরণের সম্পদ অধিগ্রহণের খরচ বাদে যে কোনো ধরণের আয়ের হিসেব করার ক্ষেত্রে যাবতীয় খরচ বা ভাতায় কর ছাড়ের সংস্থান নেই। ভার্চুয়াল ডিজিটাল সম্পত্তি লেনদেন হওয়া লোকশানকে অন্য কোনো আয়ের উৎস থেকে মেটানো যাবে না। ভার্চুয়াল ডিজিটাল সম্পত্তি উপহার হিসেবে যিনি পাবেন তাঁকে কর মেটাতে হবে। 
 
মামলা – মোকদ্দমায় সুষ্ঠু সমাধান :
 
হাইকোর্ট বা সুপ্রিম কোর্টে বিচারাধীন কোনো মামলার ক্ষেত্রে আইনগত বিষয়গুলি যদি একই হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট আদালত ওই আইনের বিষয়ে সিদ্ধান্তে না আসা পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আপিল দায়ের করা থেকে বিরত থাকবে। এই ব্যবস্থা করদাতা ও কর বিভাগের মধ্যে মামলা – মোকদ্দমার পুনরাবৃত্তি কমাতে সাহায্য করবে। 
 
কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী দেশের করদাতাদের ধন্যবাদ জানান। সঙ্কটের সময় দেশবাসীকে সহায়তা করার জন্য তাদের অপরিসীম অবদানের কথা তুলে ধরেন তিনি। 
 
CG/SS/SKD/


(Release ID: 1794540) Visitor Counter : 291