ভারত সরকারের প্রধান বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টার কার্যালয়

সার্স-কোভ-২ নিয়ে ভারত সরকারের প্রধান বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টার কার্যালয়ের নির্দেশিকা- "করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে অতিমারি অবস্থায় পরে থাকা মাস্ক ব্যবহারের পর তা নষ্ট করা, দূরত্ব বজায় রাখা, জীবাণুনাশক ব্যবহার ও উন্মুক্ত ও বায়ু চলাচল ও পরিবেশের ওপর গুরুত্ব আরোপ"

Posted On: 20 MAY 2021 9:00AM by PIB Kolkata

নতুন দিল্লি, ২০ মে, ২০২১

 

সার্স-কোভ-২ নিয়ে ভারত সরকারের প্রধান বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টার কার্যালয়ের পক্ষ থেকে একটি নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। ওই নির্দেশিকা অনুযায়ী, করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে অতিমারি অবস্থায় পরে থাকা মাস্ক ব্যবহারের পর তা নষ্ট করা, দূরত্ব বজায় রাখা, জীবাণুনাশক ব্যবহার ও উন্মুক্ত ও বায়ু চলাচল পরিবেশের ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। নির্দেশিকায় সুস্পষ্ট করে আরও বলা হয়েছে যে, করোনা সম্পর্কিত নির্দেশাবলী গুলি মেনে চললে সংক্রমণ বৃদ্ধি প্রতিহত করা সম্ভব। এ জন্য উন্মুক্ত পরিবেশ অর্থাৎ যেখানে খোলামেলা বাতাস রয়েছে সেখানে বসবাসের কথাও উল্লেখ করা হয়েছে। খোলামেলা বাতাস করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে সাহায্য করে। সেজন্য প্রতিটি বাড়ি এবং অফিসে উন্মুক্ত পরিবেশ সৃষ্টির কথা উল্লেখ করা হয়েছে। অর্থাৎ যেখানে সহজভাবে বায়ু চলাচল করবে। এজন্য জানলা ও দরজার মাধ্যমে বাতাস চলাচলের ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। উন্মুক্ত পরিবেশ থাকলে সংক্রমিত ব্যক্তির থেকে ভাইরাস ছড়ানো প্রতিহত করা সম্ভব হবে।

ড্রপলেট- এর মাধ্যমে যাতে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে না পারে সে জন্য প্রত্যেকের মাস্ক পরে থাকাটা বাধ্যতামূলক। প্রয়োজন হলে দুটি মাস্ক একসাথে ব্যবহার করতে হবে। নতুবা এন- ৯৫ মাস্ক পরতে হবে। মনে রাখা দরকার যে, এমন অনেক করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি রয়েছেন, যাদের মধ্যে কোন উপসর্গ নেই। অথচ তাদের থেকে রোগ সংক্রমণ ঘটতে পারে।

একজনের থেকে আরেকজনের শরীরে সার্স-কোভ- ২ ভাইরাস যতো ছড়িয়ে পড়ে ততোই তার সংখ্যা বৃদ্ধি ঘটতে থাকে। কাজে সেই বিস্তারকে প্রতিহত করা দরকার। 

আর সংক্রমণ ঠেকাতে গেলে তাই মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। জীবাণুনাশক ব্যবহার করতে হবে। দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। এর পাশাপাশি উন্মুক্ত পরিবেশে থাকতে হবে।

 

CG/ SB



(Release ID: 1720344) Visitor Counter : 108