স্বাস্থ্যওপরিবারকল্যাণমন্ত্রক

ভারতে মোট টিকাকরণ ১২.৩৮ কোটি ছাড়িয়েছে
১০টি রাজ্যে নতুন করে আক্রান্তের হার ৭৯%

জাতীয় স্তরে মৃত্যু হার আরও কমে ১.১৯%

কোভিড যোদ্ধাদের জন্য প্রধানমন্ত্রী গরীব কল্যাণ প্যাকেজ (পিএমজিকেপি) বিমা পলিসির সুযোগ-সুবিধা আগামী ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত অভ্যাহত থাকবে, তারপর একটি নতুন বিমা পলিসি কার্যকর হবে

Posted On: 19 APR 2021 10:53AM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ১৯ এপ্রিল, ২০২১

 

বিশ্বের বৃহত্তম টিকাকরণ অভিযানের অঙ্গ হিসেবে ভারতে আজ পর্যন্ত কোভিড-১৯ টিকাকরণের সংখ্যা ১২ কোটি ৩৮ লক্ষ ছাড়িয়েছে। আজ সকাল ৭টা পর্যন্ত প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী, ১২ কোটি ৩৮ লক্ষ ৫২ হাজার ৫৬৬টি টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৯১ লক্ষ ৩৬ হাজার ১৩৪টি টিকার প্রথম ডোজ পেয়েছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা এবং ৫৭ লক্ষ ২০ হাজার ৪৮টি টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্যকর্মীদের। এছাড়াও, করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অগ্রভাগে থাকা ১ কোটি ১২ লক্ষ ৬৩ হাজার ৯০৯ জন কর্মী প্রথম ডোজ এবং ৫৫ লক্ষ ৩২ হাজার ৩৯৬ জন কর্মী দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। অন্যদিকে, ৬০ বছরের বেশি বয়সী ৪ কোটি ৫৯ লক্ষ ৫ হাজার ২৬৫ জন সুফলভোগী প্রথম ডোজ এবং ৪০ লক্ষ ৯০ হাজার ৩৮৮ জন সুফলভোগী দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। একইভাবে, ৪৫-৬০ বছর বয়সী ৪ কোটি ১০ লক্ষ ৬৬ হাজার ৪৬২ জন সুফলভোগী প্রথম ডোজ এবং ১১ লক্ষ ৩৭ হাজার ৯৬৪ জন সুফলভোগী টিকার দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। 

দেশে এখনও পর্যন্ত মোট টিকাকরণের ৫৯.৪২ শতাংশ দেওয়া হয়েছে আটটি রাজ্যে। গত ২৪ ঘন্টায় ১২ লক্ষের বেশি টিকাকরণ হয়েছে। দেশব্যাপী টিকাকরণ অভিযানের ৯৩তম দিনে (১৮ এপ্রিল) ১২ লক্ষ ৩০ হাজার ৭টি টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৯ লক্ষ ৪০ হাজার ৭২৫ জন সুফলভোগী প্রথম ডোজ এবং ২ লক্ষ ৮৯ হাজার ২৮২ জন সুফলভোগী দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন।

দেশে দৈনিক ভিত্তিতে কোভিডে আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমবর্ধমান। বৃদ্ধির এই প্রবণতা অব্যাহত থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় ২ লক্ষ ৭৩ হাজার ৮১০ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। মহারাষ্ট্র, উত্তরপ্রদেশ, দিল্লি, কর্ণাটক, কেরল, ছত্তিশগড়, মধ্যপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, গুজরাট ও রাজস্থান সহ ১০টি রাজ্যেই আক্রান্তের হার ৭৮.৫৮ শতাংশ। মহারাষ্ট্রে একদিনেই সর্বাধিক ৬৮,৬৩১ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। উত্তরপ্রদেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৩০,৫৬৬। অন্যদিকে দিল্লিতে একদিনেই আক্রান্ত ২৫,৪৬২ জন। দেশে ২০টি রাজ্যে দৈনিক আক্রান্তের রেখাচিত্র ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী।

দেশে সুস্পষ্টভাবে মোট করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লক্ষ ২৯ হাজার ৩২৯, যা মোট আক্রান্তের ১২.৮১ শতাংশ। অবশ্য গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ২৮ হাজার ১৩টি কমেছে। পাঁচটি রাজ্যে – মহারাষ্ট্র, ছত্তিশগড়, উত্তরপ্রদেশ, কর্ণাটক এবং কেরলে মোট আক্রান্তের হার, দেশে মোট করোনায় আক্রান্তের মধ্যে ৬৩.১৮ শতাংশ। 

দেশে আজ কোভিডে সুস্থতার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ২৯ লক্ষ ৫৩ হাজার ৮২১। জাতীয় স্তরে সুস্থতার হার ৮৬ শতাংশ। অন্যদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১ লক্ষ ৪৪ হাজার ১৭৮ জন। 

জাতীয় স্তরে কোভিডে মৃত্যু হার বর্তমানে ১.১৯ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ১,৬১৯ জনের। ১০টি রাজ্যে মৃত্যু হার ৮৫.১১ শতাংশ। কেবল মহারাষ্ট্রে একদিনেই মারা গেছেন ৫০৩ জন। ছত্তিশগড়ে মৃত্যু হয়েছে ১৭০ জনের। 

দেশের ১০টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিডে মৃত্যুর খবর নেই। এই রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির মধ্যে রয়েছে – লাদাখ, ত্রিপুরা, সিকিম, মিজোরাম, মণিপুর, লাক্ষাদ্বীপ, নাগাল্যান্ড, আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ, অরুণাচল প্রদেশ প্রভৃতি।

উল্লেখ করা যেতে পারে, করোনা যোদ্ধাদের মৃত্যুকালীন দাবিদাওয়ার নিষ্পত্তিতে গত বছর মার্চ মাসে প্রধানমন্ত্রী গরীব কল্যাণ প্যাকেজ কর্মসূচির সূচনা হয়। এই কর্মসূচির উদ্দেশ্য ছিল কোভিড-১৯-এর দরুণ দুর্ভাগ্যবশত স্বাস্থ্যকর্মীর মৃত্যু হলে তাঁর পরিবারকে এককালীন অনুদান সহায়তা দেওয়া। কর্মসূচির আওতায় মৃত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির ওপর নির্ভরশীল পরিবারকে বিমার প্রাপ্ত অর্থ হিসেবে এককালীন ৫০ লক্ষ টাকা সাহায্য দেওয়া হয়ে থাকে। এই কর্মসূচি শুরু হওয়ার ফলে করোনা যোদ্ধাদের পরিবারগুলি সুরক্ষা কবচ পেয়েছে। 

এখনও পর্যন্ত কর্মসূচির আওতায় বিমা সংস্থার পক্ষ থেকে ২৮৭টি ক্ষেত্রে প্রাপ্য দাবিদাওয়া মেটানো হয়েছে। এমনকি এই কর্মসূচি করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে স্বাস্থ্যকর্মীদের মনোবল বাড়িয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী গরীব কল্যাণ প্যাকেজ বিমা পলিসির দাবিদাওয়া নিষ্পত্তি ব্যবস্থা আগামী ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। এরপর কোভিড যোদ্ধাদের জন্য নতুন একটি বিমা কর্মসূচি চালু করা হবে। 

 

CG/BD/DM/



(Release ID: 1712660) Visitor Counter : 66