স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের নজরদারি, সংক্রমণ প্রতিহত করা ও সতর্কতার জন্য নীতি নির্দেশিকা

কন্টেনমেন্ট এলাকার বাইরে সব ধরণের কাজকর্মে অনুমতি

সংক্রমণ প্রতিহত করার জন্য রাজ্য/কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে প্রয়োজনীয় নিয়ম মেনে ও সাধারণ পরিচালন পদ্ধতি মেনে চলতে হবে এবং কোভিড সংক্রান্ত যথাযথ আচরণ পালন করতে হবে

Posted On: 27 JAN 2021 6:11PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লী, ২৭ জানুয়ারি, ২০২১

 

Ø কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক নজরদারি, রোগ প্রতিহত করা এবং সতর্কতার জন্য আজ একটি নীতি নির্দেশিকা প্রকাশ করেছে। এই নীতি নির্দেশিকা পয়লা ফেব্রুয়ারি থেকে ২৮শে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কার্যকর থাকবে।

Ø এই নীতি নির্দেশিকার প্রধান উদ্দেশ্য হল কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ আটকাতে যে সাফল্য অর্জিত হয়েছে সেটিকে বজায় রাখা। গত ৪ মাস ধরে চিকিৎসাধীন সংক্রমিতের সংখ্যা এবং নতুন ভাবে সংক্রমিতের সংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে। এই মহামারী থেকে বেরিয়ে আসার জন্য তাই গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এ কারণে সতকর্তা বজায় রাখা, সংক্রমণ প্রতিহত করার কৌশলগুলি কঠোরভাবে মেনে চলা, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক ও কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রক যেসব নীতি নির্দেশিকা এবং সাধারণ পরিচালন পদ্ধতি প্রকাশ করেছে সেগুলিও মেনে চলতে হবে।

নজরদারি ও সংক্রমণ প্রতিহত করা

Ø কন্টেনমেন্ট এলাকার যদি প্রয়োজন হয় সেক্ষেত্রে জেলা কর্তৃপক্ষ, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের নীতি নির্দেশিকা অনুযায়ী তৃণমূল স্তরে এলাকা চিহ্নিত করবে। এক্ষেত্রে কন্টেনমেন্ট এলাকাটিকে যথাযথভাবে চিহ্নিত করা প্রয়োজন।

Ø ওই কন্টেনমেন্ট এলাকায় স্থানীয় প্রশাসন, জেলা প্রশাসন ও পুলিশকে যথাযথ নিয়মাবলী মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে। এক্ষেত্রে রাজ্য বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল প্রশাসনকে একাজে নির্দিষ্ট আধিকারিককে দায়িত্ব দিতে হবে।

কোভিড সংক্রান্ত যথাযথ আচরণ

Ø কোভিড-১৯এর যথাযথ আচরণ মেনে চলার ক্ষেত্রে- মাস্ক পরা, ঘন ঘন হাত ধোয়া ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা- রাজ্য সরকার/কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের প্রশাসনকে প্রয়োজনীয় সব রকমের ব্যবস্থা নিতে হবে।

Ø দেশ জুড়ে কোভিড-১৯এর জন্য জাতীয় নীতি নির্দেশিকা জারি রয়েছে। তাই এ সংক্রান্ত যথাযথ আচরণবিধি পালন করতে হবে।

সাধারণ পরিচালন পদ্ধতি কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে

কন্টেনমেন্ট এলাকার বাইরে সব ধরণের কাজকর্ম করার ক্ষেত্রে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে নিম্নলিখিত সাধারণ পরিচালন পদ্ধতি মেনে চলতে হবে।

Ø ইতিমধ্যেই সামাজিক/ধর্মীয়/ক্রীড়া/বিনোদন/শিক্ষা/সংস্কৃতি-র জন্য কোনো জমায়েত হলে সংশ্লিষ্ট জায়গায় সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ মানুষ থাকার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। বদ্ধ জায়গার ক্ষেত্রে এই সংখ্যা ২০০ জন। খোলা জায়গার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট স্থানের আয়তনের ওপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এই ধরণের জমায়েত রাজ্য/কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির সাধারণ পরিচালন পদ্ধতি মেনে করতে হবে।

Ø সিনেমা হল ও থিয়েটারগুলিতে ইতিমধ্যেই ৫০ শতাংশ বসার জায়গার অনুমতি দিয়ে খুলতে বলা হয়েছে। এখন তাদের জন্য এই সংখ্যা আরও বাড়ানো হবে। এ বিষয়ে পরিবর্তিত সাধারণ পরিচালন পদ্ধতিটি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সঙ্গে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রক যৌথভাবে তৈরি করবে।

Ø সুইমিং পুলগুলিতে ক্রীড়া ব্যক্তিত্বরা ব্যবহারের অনুমতি আগেই পেয়েছেন। এখন সুইমিং পুল সকলেই ব্যবহার করার সুযোগ পাবেন। তবে এর জন্য সাধারণ পরিচালন পদ্ধতিটি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সঙ্গে আলোচনাক্রমে কেন্দ্রীয় যুব বিষয়ক ও ক্রীড়া মন্ত্রক তৈরি করবে।

Ø ব্যবসা বাণিজ্যের জন্য প্রদর্শশালাগুলি ব্যবহারের অনুমতি ইতিমধ্যেই দেওয়া হয়েছে। তবে এখন থেকে এইসব প্রদর্শশালাগুলিতে যেকোন ধরণের প্রদর্শনী আয়োজনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।  এক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সঙ্গে বাণিজ্য দপ্তর আলোচনার মাধ্যমে সাধারণ পরিচালন পদ্ধতি তৈরি করবে।

Ø অসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রক বিদেশে বিমান যাত্রার ক্ষেত্রে যাত্রী পরিবহণের আরও সুযোগ তৈরি করবে। এর জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সঙ্গে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

Ø বিভিন্ন ক্ষেত্রে নানা সময়ে সাধারণ পরিচালন পদ্ধতি তৈরি করা হবে, এগুলি হল : প্যাসেঞ্জার ট্রেন, বিমান চলাচল, মেট্রো পরিষেবা, বিদ্যালয়, উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হোটেল ও রেস্তোরাঁ, শপিং মল, মাল্টিপ্লেক্স ও বিনোদন পার্ক, যোগ কেন্দ্র ও জিমনাসিয়াম ইত্যাদি। এক্ষেত্রে যে সাধারণ পরিচালন পদ্ধতি তৈরি করা হবে সেগুলি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে মেনে চলতে হবে।  

স্থানীয় স্তরে বিধি নিষেধ

Ø এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে, রাজ্যের অভ্যন্তরে, প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলির সঙ্গে স্থল সীমান্ত দিয়ে ব্যবসা বাণিজ্যের ক্ষেত্রে যাত্রী ও পণ্য পরিবহণের জন্য কোনো বিধি নিষেধ নেই। এর জন্য আলাদা অনুমতি বা বৈদ্যুতিন অনুমতি নিষ্প্রয়োজন।  

ঝুঁকিপূর্ণ মানুষদের জন্য সুরক্ষা

Ø যাঁদের বয়স ৬৫এর উর্দ্ধে, যাঁরা বিভিন্ন জটিল অসুখে ভুগছেন, গর্ভবতী মহিলা এবং ১০ বছরের কম বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় বিধি নিষেধ মেনে চলার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

আরোগ্য সেতু অ্যাপ ব্যবহার

Ø আরোগ্য সেতু মোবাইল অ্যাপটি ব্যবহারের ক্ষেত্রে উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে।  

***

 

CG/CB /NS



(Release ID: 1692785) Visitor Counter : 110