সারওরসায়নমন্ত্রক

দেশে ওষুধের উৎপাদন ও চিকিৎসা সরঞ্জামের উৎপাদনকে উৎসাহিত করতে উৎপাদন-ভিত্তিক উৎসাহ প্রকল্পের নির্দেশিকার পরিবর্তন

Posted On: 29 OCT 2020 12:48PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ২৯ অক্টোবর, ২০২০

 

 

বিভিন্ন শিল্প সংস্থার থেকে পরামর্শ ও মতামত গ্রহণ করে দেশে ওষুধ এবং চিকিৎসা সরঞ্জামের উৎপাদন বাড়ানোর জন্য কেন্দ্রীয় রসায়ন ও সার মন্ত্রকের ফার্মাসিউটিক্যালস দপ্তর উৎপাদন-ভিত্তিক উৎসাহ প্রকল্পের নীতি-নির্দেশিকায় কিছু পরিবর্তন করেছে। এখন থেকে ন্যূনতম বিনিয়োগের পরিবর্তে অঙ্গীকারবদ্ধ বিনিয়োগের প্রস্তাব রাখা হয়েছে।

 

ফার্মাসিউটিক্যালস দপ্তর এর আগে উৎসাহ-ভিত্তিক উৎপাদনের বিষয়ে যে প্রস্তাবগুলি দিয়েছিল সেগুলি গৃহীত হয়েছে। এই প্রস্তাব অনুসারে গুরুত্বপূর্ণ ওষুধের উপাদান এবং চিকিৎসা সংক্রান্ত সরঞ্জামের ক্ষেত্রে উৎপাদন-ভিত্তিক উৎসাহ প্রকল্প চালু করা হয়েছে। দেশে চিকিৎসা সংক্রান্ত সরঞ্জামের উৎপাদনে উৎসাহ দেওয়ার জন্যই এই উদ্যোগ। কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা গত ২০শে মার্চ এই সংক্রান্ত প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছিল এবং দপ্তর ২৭শে জুলাই সেই প্রস্তাবকে বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় নীতি-নির্দেশিকা জারি করেছে।    

 

এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় পরামর্শ এবং প্রস্তাব সংশ্লিষ্ট শিল্প মহল থেকে আসার পর সেগুলি কারিগরি কমিটি বিবেচনা করেছে। এই কমিটির প্রস্তাবগুলি এরপর বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন গোষ্ঠীর কাছে পেশ করা হয়েছে। কমিটি সেই প্রস্তাব নীতি আয়োগের মুখ্য কার্যনির্বাহী আধিকারিকের সঙ্গে আলোচনা করেছে। আলোচনার পর ক্ষমতাসম্পন্ন কমিটি ২৯শে অক্টোবর পরিবর্তিত নীতি-নির্দেশিকা প্রকাশ করেছে। এই নীতি-নির্দেশিকা ফার্মাসিউটিক্যালস দপ্তরের ওয়েবসাইটে 'স্কিমস’ ট্যাবে ক্লিক করলে দেখা যাবে।

 

যে ১০টি ওষুধের উপাদানের ক্ষেত্রে বার্ষিক উৎপাদন ক্ষমতার পরিবর্তন করা হয়েছে, সেগুলি হল :

 

টেট্রাসাইক্লিন, নিয়োমাইসিন, প্যারা অ্যামাইনো ফেনল, মেরোসেনাম, আর্টেসুনেট, লোসারটন, টেলমিসার্টন, অ্যাসাইক্লোভির, সিপ্রোস্লোক্সাসিন এবং অ্যাসপিরিন। এই প্রকল্পে উল্লিখিত ওষুধগুলির বার্ষিক উৎপাদন ক্ষমতার ভিত্তিতে  এগুলি প্রস্তুত করার অনুমতি দেওয়া হবে।   

 

প্রকল্পের অধীনে দরখাস্ত জমা দেওয়ার সময়সীমা বাড়িয়ে ৩০শে নভেম্বর করা হয়েছে।

 

একইভাবে, চিকিৎসা সংক্রান্ত সরঞ্জাম উৎপাদনে উৎপাদন-ভিত্তিক উৎসাহ প্রকল্পের ক্ষেত্রেও নীতি-নির্দেশিকায় পরিবর্তন ঘটানো হয়েছে। এখন থেকে ন্যূনতম বিনিয়োগের পরিবর্তে অঙ্গীকারবদ্ধ বিনিয়োগ নির্ধারিত কোন কোনও আবেদনপত্রের ক্ষেত্রে বিবেচিত হবে। এই প্রকল্পের সময়সীমা এক বছর বাড়ানো হয়েছে। প্রকল্পের সুবিধাভোগীরা ২০২১-২২-এর পরিবর্তে ২০২২-২৩ অর্থবর্ষ থেকে পরবর্তী পাঁচ বছর এই সুবিধা পাবে।  

 

এই প্রকল্পের ক্ষেত্রেও আবেদন জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ৩০শে নভেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

 

ভারতীয় ওষুধ নির্মাণ শিল্প বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম। এ দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের ক্ষেত্রে এই শিল্পের যথেষ্ট গুরুত্ব আছে। চিকিৎসা সংক্রান্ত সামগ্রীর সরঞ্জাম তৈরি আরেকটি উদীয়মান ক্ষেত্র বলে বিবেচনা করা হচ্ছে। কেন্দ্র এই দুটি শিল্পের বিকাশের ক্ষেত্রে বেশ কিছু সহায়ক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে যাতে আগামীদিনে এই শিল্পগুলি তাদের সম্ভাবনাকে পুরো কাজে লাগাতে পারে। 

 

 

CG/CB/DM



(Release ID: 1668685) Visitor Counter : 124