পরিবেশওঅরণ্যমন্ত্রক
azadi ka amrit mahotsav

পয়লা জুলাই, ২০২২ থেকে একবার ব্যবহারযোগ্য চিহ্নিত প্লাস্টিক সামগ্রীর ওপর নিষেধাজ্ঞা


একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিকের সামগ্রীর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির পর তার অবৈধ প্রস্তুত, আমদানি, মজুত, বন্টন বা বিক্রির ওপর নজরদারি চালাতে জাতীয় ও রাজ্যস্তরে খোলা হবে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ

সব স্তরের মানুষের একযোগে কার্যকর পদক্ষেপের মাধ্যমে প্লাস্টিক ব্যবহার বন্ধ করার বিষয়টি সাফল্য পাবে

প্লাস্টিক ব্যবহার বন্ধ করতে জন-অংশীদারিত্ব বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ

Posted On: 28 JUN 2022 1:04PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ২৮ জুন, ২০২২

 

ভারতের প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী ২০২২ সালের মধ্যে একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিকের সামগ্রী বন্ধ করার যে উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছিলেন তাতে সাড়া দিয়ে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রক এবং ভারত সরকার ‘প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সংশোধনী আইন, ২০২১’ বলবৎ করেছে ২০২১ সালের ১২ আগস্ট। ‘আজাদি কা অমৃত মহোৎসব’-এর ভাবধারাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে এবং দেশে প্লাস্টিক বর্জ্য ও এর থেকে ছড়িয়ে পড়া দূষণ নিয়ন্ত্রণে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ২০২২ সালের পয়লা জুলাই থেকে সারা দেশে একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিকের প্রস্তুত, রপ্তানি, মজুত, বন্টন, বিক্রি বা ব্যবহার বন্ধ করা হচ্ছে।

একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিকের ক্ষতিকর প্রভাব জলজ বাস্তুতন্ত্রের ওপর পড়ে। এছাড়া সারা বিশ্বের সামুদ্রিক পরিবেশও নষ্ট হয়। বিশ্বের সব দেশগুলির পরিবেশের দূষণ রোধে একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিক এখন একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

২০১৯ সালে রাষ্ট্রসঙ্ঘের চতুর্থ পরিবেশ বিষয়ক অ্যাসেম্বলি-তে ভারত একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিকের সামগ্রী বন্ধ করার বিষয়ে প্রস্তাব আনে। রাষ্ট্রসঙ্ঘের চতুর্থ পরিবেশ বিষয়ক অ্যাসেম্বলি-তে এই প্রস্তাবনা পাশ ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। সম্প্রতি ২০২২-এর মার্চ মাসে শেষ হওয়া রাষ্ট্রসঙ্ঘের পরিবেশ বিষয়ক পঞ্চম অ্যাসেম্বলি প্লাস্টিক দূষণের বিষয়ে একযোগে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সব সদস্য দেশগুলির মতৈক্যের ওপর জোর দেয়।

ভারত সরকার একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিক থেকে ছড়িয়ে পড়া দূষণ রোধ করতে বেশ কিছু কার্যকর পদক্ষেপ নিয়েছে। যে যে সামগ্রীগুলির ব্যবহার নিষেধ করা হচ্ছে তার মধ্যে রয়েছে – প্লাস্টিকের কান খোঁচানোর কাঠি, বেলুনের জন্য ব্যবহৃত প্লাস্টিকের লাঠি, প্লাস্টিকের পতাকা, চকোলেটের স্টিক, আইসক্রিম স্টিক, সাজসজ্জার জন্য ব্যবহৃত থার্মোকল, প্লাস্টিকের কাপ, গ্লাস, চামচ, ছুরি, স্ট্র, কাটা চামচ, মিষ্টির বাক্স মোড়ানোর মতো কাগজ, সিগারেটের প্যাকেট, নিমন্ত্রণপত্র, ১০০ মাইক্রনের কম প্লাস্টিক বা পিভিসি ব্যানার।

‘প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সংশোধনী আইন, ২০২১’ ৭৫ মাইক্রনের কম ওজনের প্লাস্টিক ক্যারিব্যাগ ব্যবহার, বিক্রি, বন্টন, মজুত বা আমদানির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ সাল থেকে এটি কার্যকর।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রক ‘প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সংশোধনী আইন’ অনুযায়ী প্লাস্টিক প্যাকেজিং-এর ওপর একটি নীতি-নির্দেশিকাও জারি করেছে।

একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিকের বিকল্প হিসেবে অন্য কিছু প্রস্তুতিতে কারিগরি সহায়তা প্রদানের জন্য এমএসএমই ইউনিটগুলিতে বিভিন্ন রকম কর্মশালার আয়োজন করা হচ্ছে। ক্ষুদ্র, অতিক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পোদ্যোগ মন্ত্রক এবং পেট্রো-কেমিক্যালস ইঞ্জিনিয়ারিং-এর কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠান এতে সহায়তা করছে।

ভারত সরকার একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিকের বিকল্প যাতে সারা দেশে মজুত থাকে, সে বিষয়টির দিকেও নজর রেখেছে।

পয়লা জুলাই, ২০২২ থেকে একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিক বন্ধের বিষয়টি কার্যকর করার জন্য জাতীয় ও রাজ্যস্তরে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলা হবে। একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিকের অবৈধ প্রস্তুত, আমদানি, মজুত, বন্টন বা ব্যবহার সম্পূর্ণ রূপে বন্ধ হয়েছে কিনা তার ওপর নজর রাখবে এই নিয়ন্ত্রণ কক্ষ। আন্তঃরাজ্য স্তরে একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিক পদার্থের আমদানি-রপ্তানি বন্ধ করতে সীমান্তে নজরদারি ব্যবস্থা চালু করার জন্য রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে বলা হয়েছে।

প্লাস্টিকের ব্যবহার বন্ধ করতে চালু হচ্ছে অভিযোগ জানানোর জন্য বিশেষ অ্যাপ। আরও বেশি সংখ্যক মানুষকে সচেতন করতে ৫ এপ্রিল ‘প্রকৃতি’ ম্যাসকট চালু করা হয়।

একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিক বন্ধের বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে সরকার পদক্ষেপ নিচ্ছে। শিল্প ও স্টার্ট-আপ উদ্যোগপতিদের সঙ্গে কেন্দ্র, রাজ্য এবং স্থানীয় প্রশাসন বিশেষত, নাগরিক সংস্থা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি একযোগে প্রচার অভিযান চালাচ্ছে।

মন্ত্রক মনে করে কেবলমাত্র সমাজের সব স্তরের মানুষের অংশীদারিত্বের মাধ্যমেই একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিক বন্ধের বিষয়টি সফলভাবে কার্যকর করা সম্ভব হবে।

 

PG/PM/DM/



(Release ID: 1837671) Visitor Counter : 553