নারীওশিশুবিকাশমন্ত্রক

২৯ জন শিশুকে ২০২২-এর প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রীয় বাল পুরস্কার প্রদান

পুরস্কার জয়ীদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর আলাপচারিতা

Posted On: 24 JAN 2022 2:35PM by PIB Kolkata
নতুন দিল্লি,  ২৪ জানুয়ারি, ২০২২
 
এবছর ২৯ জন শিশুকে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রীয় বাল পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে। এরা দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পুরস্কারের জন্য মনোনিত হয়েছিল। ৬টি ক্ষেত্রে অসামান্য কৃতিত্বের নিদর্শন হিসেবে এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। পুরস্কার জয়ীদের মধ্যে ১৫ জন বালক ও ১৪ জন বালিকা রয়েছে। দেশের ২১টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল থেকে এই ২৯ জন শিশুকে এবার পুরস্কার প্রদান করা হয়। এবার যে ৬টি ক্ষেত্রে পুরস্কার দেওয়া হয়েছে, সেগুলি হল - উদ্ভাবন, সমাজসেবা, শিক্ষাগত যোগ্যতা, খেলাধুলো, শিল্প ও সংস্কৃতি এবং সাহসিকতা। 
 
দেশে কোভিড-১৯ জনিত অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে নতুন দিল্লিতে পুরস্কার জয়ী শিশুদের সরাসরি উপস্থিত করে কোন অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়নি। তবে, এই শিশুদের উৎসাহিত করতে এবং ভাল কাজের জন্য স্বীকৃতি দিতে আজ জাতীয় শিশুকন্যা দিবস উপলক্ষে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ২০২১ ও ২২-এর প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রীয় বাল পুরস্কার জয়ী শিশুরা তাদের অভিভাবকদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট জেলাশাসকের কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে মূল অনুষ্ঠানে যোগ দেয়।
 
এই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী ২০২১ ও ২০২২ মিলিয়ে মোট ৬১ জন পুরস্কার জয়ী শিশুকে ব্লকচেন প্রযুক্তির মাধ্যমে শংসাপত্র প্রদান করেন। পুরস্কার জয়ী শিশুদের মোবাইলে আগে থেকেই ইনস্টল করা ডিজিটাল ওয়ালেটে শংসাপত্র স্টোর হয়েছে। ব্লকচেন প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে জারি করা এই শংসাপত্র অবিস্মরণীয় এবং বিশ্বের যে কোন জায়গা থেকে তা যাচাই করে দেখা যেতে পারে। এই প্রথম পুরস্কার জয়ী শিশুদের শংসাপত্র প্রদানে ব্লকচেন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। 
 
এই উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী ২০২২-এর পুরস্কার জয়ী শিশুদের অ্যাকাউন্টে ১ লক্ষ টাকা হস্তান্তরিত করেন। এরপর, প্রধানমন্ত্রী পুরস্কার জয়ীদের সঙ্গে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে আলাপচারিতায় মিলত হন। কেন্দ্রীয় মহিলা ও শিশু কল্যাণ মন্ত্রী শ্রীমতী স্মৃতি জুবিন ইরানি এবং বিভাগীয় প্রতিমন্ত্রী ডঃ মুঞ্জপারা মহেন্দ্রভাই উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী পুরস্কার জয়ী মধ্যপ্রদেশের ইন্ডোরের মাস্টার অভি শর্মা, কর্ণাটকের কুমারী রিমোনা এভেট্টি পেরিয়া, ত্রিপুরার কুমারী পুহাবি চক্রবর্তী, বিহারের পশ্চিম চম্পারণের মাস্টার ধীরজ কুমার, পাঞ্জাবের মাস্টার নিধাংশু কুমার গুপ্তা, চণ্ডীগড়ের কুমারী তারুশি গৌর সহ আরও কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলেন। 
 
এই উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী জাতীয় শিশুকন্যা দিবসে দেশের কন্যাদের শুভেচ্ছা জানান। প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে কোন ক্ষেত্রে নীতি ও উদ্যোগ গ্রহণের সময় যুবসম্প্রদায়ের কল্যাণের বিষয়টিকে বিবেচনায় রাখা হয়। এই প্রসঙ্গে তিনি স্টার্টআপ ইন্ডিয়া, স্ট্যান্ডআপ ইন্ডিয়া, ডিজিটাল ইন্ডিয়া, মেক ইন ইন্ডিয়া এবং আধুনিক পরিকাঠামো গড়ে তুলতে আত্মনির্ভর ভারত অভিযানের কথা উল্লেখ করেন। উদ্ভাবন ও স্টার্টআপ ক্ষেত্রে ভারতের নিরন্তর অগ্রগতির কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী গর্বের সঙ্গে বলেন যে, এমন অনেক অগ্রণী আন্তর্জাতিক সংস্থা রয়েছে যেখানে তরুণ ভারতীয়রা মুখ্যকার্যনির্বাহী পদে দায়িত্ব পালন করছেন। 
 
প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, একটা সময় ছিল যখন বহু ক্ষেত্রেই আমাদের কন্যাদের সামিল হওয়ার অনুমতি ছিল না। কিন্তু আজ আমাদের এই কন্যারা এই ক্ষেত্রগুলিতে সামিল হয়ে অবিশ্বাস্য সাফল্যের নিদর্শন রাখছে। প্রকৃত পক্ষে এটাই নতুন ভারতের চিত্র, যেখানে উদ্ভাবন, সাহসিকতা ও দৃঢ় সংকল্প হলমার্ক হয়ে উঠেছে। শিশুদের টিকাকরণ সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী জানান, গত তেসরা জানুয়ারি থেকে কেবল ২০ দিনেই চার কোটির বেশি শিশুকে করোনা টিকা দেওয়া হয়েছে। স্বচ্ছ ভারত অভিযানে অগ্রণী ভূমিকা পালনের জন্যও প্রধানমন্ত্রী শিশুদের প্রয়াসের প্রশংসা করেন। ভোকাল ফর লোকাল এবং আত্মনির্ভর ভারত অভিযানে আরও অগ্রণী ভূমিকা পালনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শিশুদের আহ্বান জানান। 
 
 
CG/BD/AS/


(Release ID: 1792314) Visitor Counter : 506