স্বাস্থ্যওপরিবারকল্যাণমন্ত্রক
azadi ka amrit mahotsav

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী শ্রী মনসুখ মান্ডাভিয়া আইসিএমআর’এর ড্রোণ ভিত্তিক টিকা সরবরাহ মডেল আই-ড্রোণ ব্যবস্থার সূচনা করলেন

Posted On: 04 OCT 2021 3:51PM by PIB Kolkata

নতুন দিল্লি,  ০৪ অক্টোবর, ২০২১

 

স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে সরকারের ‘অন্ত্যোদ্বয়’ অঙ্গীকারের এক বিরল দৃষ্টান্ত হিসেবে এবং দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে থাকা মানুষের কাছে স্বাস্থ্য পরিষেবার সুবিধা পৌঁছে দিতে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী শ্রী মনসুখ মান্ডাভিয়া আজ উত্তরপূর্বে আইসিএমআর’এর ড্রোণ রেসপন্স অ্যান্ড আউটরিচ বা ড্রোণ ভিত্তিক পরিষেবা পৌঁছে দেওয়া ব্যবস্থার সূচনা করেছেন। প্রত্যেকের কাছে জীবনদায়ী টিকা পৌঁছে দেওয়া সুনিশ্চিত করতেই ড্রোণ ভিত্তিক টিকা সরবরাহের এই উদ্যোগ। 

প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীর দূরদৃষ্টি সম্পন্ন নেতৃত্বদানের প্রশংসা করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, তাঁর সুদক্ষ নেতৃত্বে দেশ দ্রুত গতিতে উন্নয়নের পথে এগিয়ে চলেছে। আজ এক ঐতিহাসিক দিন, কারণ প্রযুক্তিকে দৈনন্দিন জীবন সহজ ও সরল করে তোলার পাশাপাশি কিভাবে সামাজিক পরিবর্তন নিয়ে আসার ক্ষেত্রেও ব্যবহার করা যায় তা আরও একবার প্রমাণ হলো। 

উদ্ভাবনমূলক এই প্রয়াসের জন্য দেশবাসীকে অভিনন্দন জানিয়ে শ্রী মান্ডাভিয়া বলেন, এই প্রথম সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি ড্রোণ কোভিড টিকা সরবরাহ করার জন্য দক্ষিণ এশিয়ায় ব্যবহার করা হলো। উল্লেখ করা যেতে পারে ড্রোণের সাহায্যে মণিপুরে বিষ্ণুপুর জেলা হাসপাতাল থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে করঙ দ্বীপের লোকতাক হ্রদে টিকা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এই টিকা স্থানীয় প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে সুফলভোগীদের দেওয়া হচ্ছে। আজ ১০ জন সুফলভোগী প্রথম ডোজ এবং ৮ জন সুফলভোগী দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। 

তিনি আরও বলেন, ভারত ভৌগলিক দিক থেকে এক বৈচিত্রময় দেশ। তাই অত্যাবশ্যকীয় পরিষেবা পৌঁছে দেওয়ার কাজে ড্রোণ ব্যবহার করা যেতে পারে। তিনি বলেন, ড্রোণ প্রযুক্তিকে আমরা জীবনদায়ী ওষুধ সরবরাহ এবং রক্তের নমুনা সংগ্রহের কাজে ব্যবহার করতে পারি। এমনকি, আপৎকালীন পরিস্থিতিতেও এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা সম্ভব। স্বাস্থ্য পরিষেবা প্রদানের ক্ষেত্রে এই প্রযুক্তি বিশেষ করে প্রত্যন্ত ও দূরুহ অঞ্চলে আমুল পরিবর্তন আনতে পারে। 

ড্রোণ ভিত্তিক টিকা সরবরাহ প্রয়াসের সূচনা করে শ্রী মান্ডাভিয়া বলেন, আমাদের কোভিড-১৯ টিকাকরণ কর্মসূচি ইতিমধ্যেই যাবতীয় প্রত্যাশাকে ছাপিয়ে গেছে। এই উদ্যোগ আরও বেশি টিকাকরণে সাফল্য এনে দেবে বলে আমার বিশ্বাস। জাতীয় স্তরের কর্মসূচিগুলিতে দ্রোণ প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে আরও দ্রুত চিকিৎসা পরিষেবা পৌঁছে দেওয়া যেতে পারে। 

রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে নিরাপদ টিকাকরণ সত্ত্বেও দেশের প্রত্যন্ত ও দূরুহ অঞ্চলগুলিতে টিকা দেওয়ার কাজ অনেক বেশি চ্যালেঞ্জের। এই চ্যালেঞ্জগুলি দূর করতেই আই-দ্রোণ কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। মণিপুর ও নাগাল্যান্ডের পাশাপাশি কেন্দ্রশাসিত আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে দ্রোণ প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে টিকা সরবরাহের অনুমতি পাওয়া গিয়েছে বলেও স্বাস্থ্য মন্ত্রী জানান।

শ্রী মান্ডাভিয়া বলেন, এই ধরণের দ্রোণ প্রযুক্তি টিকা সরবরাহের পাশাপাশি অন্যান্য জরুরি চিকিৎসা পরিষেবা পৌঁছে দেওয়ার কাজেও অত্যন্ত ফলপ্রসূ হয়ে উঠতে পারে। দ্রোণ ভিত্তিক চিকিৎসা পরিষেবা সরবরাহে অনুমতি দেওয়ার জন্য শ্রী মান্ডাভিয়া অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রক, অসামরিক বিমান পরিবহণ সংক্রান্ত মহানির্দেশক এবং ভারতীয় বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান। তিনি ভারতীয় চিকিৎসা গবেষণা পরিষদ (আইসিএমআর) সহ স্বাস্থ্য কর্মী ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্যদের এই অভিনব উদ্যোগে যুক্ত থাকার জন্য অভিনন্দন জানিয়েছেন। 

এই উপলক্ষে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ সচিব শ্রী রাজেশ ভূষণ, আইসিএমআর-এর মহানির্দেশক ডাঃ বলরাম ভার্গব সহ মন্ত্রকের উচ্চ পদস্থ আধিকারিকরা উপস্থিত ছিলেন। 

 

CG/BD/SKD/



(Release ID: 1760977) Visitor Counter : 98