স্বাস্থ্যওপরিবারকল্যাণমন্ত্রক

কোভিড-১৯-এর প্রেক্ষিতে জনস্বাস্থ্য ক্ষেত্রে ব্যবস্থা এবং টিকাকরণের অগ্রগতি নিয়ে রাজ্য/কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির সঙ্গে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে পৌরোহিত্য করলেন ক্যাবিনেট সচিব

Posted On: 18 SEP 2021 3:24PM by PIB Kolkata

নতুন দিল্লি, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১


ক্যাবিনেট সচিব শ্রী রাজীব গৌবা আজ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কোভিড-১৯ সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কৌশল নিয়ে পর্যালোচনা করতে এক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে পৌরোহিত্য করেন। বৈঠকে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব শ্রী রাজেশ ভূষণ এবং নীতি আয়োগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সদস্য ডঃ ভি কে পল উপস্থিত ছিলেন। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই বৈঠকে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির মুখ্যসচিব, স্বাস্থ্য বিষয়ক অতিরিক্ত মুখ্যসচিব, স্বাস্থ্য দপ্তরের সচিব, পুর কমিশনার, জেলাশাসক এবং উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা যোগ দেন।

ক্যাবিনেট সচিব গতকাল সারা দেশে ২ কোটি ৫০ লক্ষের বেশি টিকাকরণের ক্ষেত্রে মাইলফলক অর্জনের জন্য রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে অভিনন্দন জানান। তিনি টিকাকরণের এই অসামান্য প্রয়াসে স্বাস্থ্যকর্মী, মুখ্যচিকিৎসা আধিকারিক, জেলাশাসক ও রাজ্য স্বাস্থ্য সচিবদের ভূমিকার প্রশংসা করেন। তিনি আশাপ্রকাশ করেন, টিকার ডোজের যোগান বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে টিকাকরণের গতিও বাড়বে।

ক্যাবিনেট সচিব রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে আরও একবার স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, আত্মতুষ্টির কোন জায়গা নেই। তিনি কোভিড আদর্শ আচরণ কঠোর ভাবে বলবৎ করার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেন।

এটা দেখা গেছে একাধিক দেশে কোভিড-১৯ সংক্রমণ সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে। এই উদাহরণ দিয়ে তিনি দেশের কয়েকটি এলাকায় আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন। এই প্রেক্ষিতে তিনি রাজ্য স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলিকে নিয়মিত ভাবে কোভিড-১৯ সংক্রমণের রেখাচিত্র পর্যালোচনার পরামর্শ দেন। ক্যাবিনেট সচিব আরও বলেন, স্বাস্থ্য পরিকাঠামো ক্ষেত্রে উন্নতির পাশাপাশি সম্ভাব্য যে কোন চ্যালেঞ্জের মোকাবিলায় দ্রুত মানব সম্পদের যোগান বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দিতে হবে।

বৈঠকে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব ১১টি রাজ্যে ডেঙ্গুর দ্বিতীয় প্রজাতির ক্রমবর্ধমান চ্যালেঞ্জের কথা উল্লেখ করে বলেন, এর ফলে আক্রান্তের ঘটনা বাড়ছে এবং রোগের ক্ষেত্রেও বিভিন্ন জটিলতা দেখা দিচ্ছে। এই প্রেক্ষিতে তিনি রাজ্যগুলিকে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের পরামর্শ দিয়ে বলেন, আগাম রোগ চিহ্নিতকরণ, পর্যাপ্ত নমুনা পরীক্ষার কিট, ওষুধপত্র এবং জ্বরের মত ঘটনাগুলির ক্ষেত্রে সমীক্ষা চালানোর জন্য র‍্যাপিড রেসপেন্স দল গঠন করতে হবে। প্রয়োজনে অতিরিক্ত রক্তের যোগান দিতে বিকল্প ব্ল্যাড ব্যাঙ্ক গড়ে তুলতে হবে। সেই সঙ্গে প্লেটলেটের যোগান নিশ্চিত করতে হবে।

স্বাস্থ্য সচিব জানান, ১৫টি রাজ্যে ৭০টি জেলায় করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক এবং ৩৪টি জেলায় সংক্রমণের হার ১০ শতাংশের বেশি। বাকি ৩৬টি জেলায় সংক্রমণের হার ৫ থেকে ১০ শতাংশে রয়েছে। আসন্ন উৎসব মরশুমের প্রেক্ষিতে বড় জমায়েত বা ভীড় এড়াতে রাজ্যগুলিকে যাবতীয় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। সেই সঙ্গে শপিংমল, স্থানীয় বাজার, উপাসনালয় প্রভৃতি জায়গায় বর্তমান নীতি-নির্দেশিকাগুলি কঠোর ভাবে বলবৎ করার নির্দেশ দেন। উৎসবের মরশুমে নিরাপদ থাকতে তিনি কোভিড আদর্শ আচারণ বিধি কঠোর ভাবে বলবৎ করার জন্য রাজ্যগুলিকে আহ্বান জানিয়েছেন। এমনকি, দৈনিক ভিত্তিতে সমস্ত জেলায় আক্রান্তের হারে ঊর্ধ্বগতি বা নিম্নগতির ওপর কড়া নজরদারির পরামর্শ দিয়েছেন।

বৈঠকে হাসপাতালের পরিকাঠামো, অক্সিজেনের যোগান, অত্যাবশ্যকীয় ওষুধপত্রের সুবন্দোবস্ত, অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা প্রভৃতি বাড়ানোর ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্য সচিব জানান, আপৎকালীন কোভিড পরিস্থিতি মোকাবিলা প্যাকেজের আওতায় সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলকে তহবিল মঞ্জুর করা হয়েছে।

রাজ্যের মুখ্যসচিবদের জেলা ভিত্তিক পর্যালোচনার আহ্বান জানিয়ে বলা হয়েছে, উপযুক্ত চিকিৎসা পরিকাঠামো সুনিশ্চিত করতে হবে, যাতে প্রয়োজন সাপেক্ষে সঙ্কটগ্রস্ত রোগীদের অন্যত্র চিকিৎসার জন্য পাঠানো যায়। সংক্রমণে নতুন করে বৃদ্ধি রুখতে রাজ্য কর্তৃপক্ষগুলিকে নিম্নলিখিত প্রয়াস গ্রহণের ওপর গুরুত্ব দিতে বলা হয়েছে :

  • কোভিড আদর্শ আচরণবিধি কঠোর ভাবে বলবৎ এবং কোভিড নিরাপদ উৎসব সম্পর্কিত নিয়ম-নীতি মেনে চলা

  • যে এলাকা বা অঞ্চলে অধিক পরিমাণে আক্রান্তের ঘটনা ঘটছে, সেখানে কনটেইনমেন্ট জোন কার্যকর করা এবং নজরদারি চালানো

  • নমুনা পরীক্ষার হার বৃদ্ধি করা এবং আরটিপিসিআর পদ্ধতিতে নমুনা পরীক্ষার হার বজায় রাখা

  • হাসপাতাল ও অন্যত্র চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত তরল অক্সিজেন উৎপাদন কেন্দ্র দ্রুত চালু করা, অক্সিজেন সিলিন্ডার, কেনসেনট্রেটর এবং ভেন্টিলেটরের ব্যবস্থা করা

  • যে সমস্ত রাজ্যে বিদ্যালয়ে পঠন-পাঠন চালু হয়েছে, সেখানে পডু়য়াদের ওপর সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে কিনা, তা দেখা

  • টিকাকরণের পরেও সংক্রমণ শৃঙ্খল ভেঙে ফেলা সম্ভব হয়েছে কিনা তা নজর রাখা

  • টিকাকরণের গতি ও পরিধি বাড়ানো

  • ডেঙ্গু সহ অন্যান্য পতঙ্গ বাহিত রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ


 

CG/BD/AS/



(Release ID: 1756150) Visitor Counter : 45