নীতিআয়োগ

কার্বন মুক্ত জ্বালানী ব্যবহারের উদ্দেশ্যে নীতি আয়োগ এবং নেদারল্যান্ডসের দূতাবাসের মধ্যে ইচ্ছাপত্র স্বাক্ষর

Posted On: 30 SEP 2020 1:27PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লী, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

 

 

নীতি আয়োগ এবং নতুন দিল্লীর নেদারল্যান্ডসের দূতাবাসের মধ্যে ২৮শে সেপ্টেম্বর একটি ইচ্ছাপত্র স্বাক্ষর হয়েছে। স্বচ্ছ এবং আরও বেশি পরিবেশ বান্ধব জ্বালানীর ব্যবহারের জন্য কার্বনমুক্ত ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলাই এর মূল লক্ষ্য।   

নীতি আয়োগের মুখ্য কার্য নির্বাহী আধিকারিক শ্রী অমিতাভ কান্ত এবং ভারতে নিযুক্ত নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত মিস্টার মার্টিন ফন ডেন বার্গ এই ইচ্ছাপত্রে স্বাক্ষর করেছেন। নীতি নির্ধারক, শিল্প সংস্থা, বেসরকারী শিল্পোদ্যোগী এবং সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রের বিশেষজ্ঞদের নিয়ে একটি সর্বাঙ্গীন সহযোগিতামূলক পরিবেশ গড়ে তোলাই এই ইচ্ছাপত্রের মূল উদ্দেশ্য। নীতি আয়োগ এবং নেদারল্যান্ডসের দূতাবাস এর মাধ্যমে কৌশলগত অংশীদারিত্ব গড়ে তুলবে।

দু-দেশের বিশেষজ্ঞরা যাতে উদ্ভাবনীমূলক প্রযুক্তিগত সমাধান খুঁজে বের করতে পারেন এই অংশীদারিত্বের সেটিই মূল উদ্দেশ্য౼ পারস্পরিক তথ্যে আদান-প্রদান এবং যৌথভাবে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণের মধ্য দিয়ে যা বাস্তবায়িত হবে। এই ইচ্ছাপত্রের মূল বিষয়গুলি হল :- ১) শিল্প সংস্থায় এবং পরিবহন ক্ষেত্রে কার্বনের নিঃসরণ কমানো, ২) প্রাকৃতিক গ্যাসের সম্ভাবনাকে কাজে লাগানো এবং জৈব জ্বালানী সংক্রান্ত প্রযুক্তিকে উৎসাহিত করা, ৩) স্বচ্ছ বায়ু সংক্রান্ত প্রযুক্তি গ্রহণের জন্য পরিস্থিতির দিকে নজর রাখা, ৪) অত্যাধুনিক প্রযুক্তি যেমন- হাইড্রোজেন, কার্বনকে বাতাসে মিশতে না দেওয়া এবং জ্বালানী ব্যবহারের দক্ষতা অর্জনের মতো বিভিন্ন পন্থা গ্রহণ করা, ৫) এক্ষেত্রে আর্থিক ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা যার সাহায্যে জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যা প্রতিরোধে আর্থিক সহায়তা দেওয়া যায়। 

এই উপলক্ষ্যে নীতি আয়োগের ভাইস চেয়ারম্যান ডঃ রাজীব কুমার বলেছেন, ভারত এবং নেদারল্যান্ডস স্থিতিশীল জ্বালানী নীতি গ্রহণ করেছে। ২টি দেশই পরিবেশ বান্ধব জ্বালানীর জন্য একই পরিস্থিতির সম্মুখীন। তিনি বলেছেন, ভারতের বিশেষজ্ঞরা স্বল্প মূল্যে উন্নতমানের সমস্যা সমাধানের প্রক্রিয়া নিশ্চিত করবেন। নেদারল্যান্ডসের বিশেষজ্ঞরা কম কার্বন নিঃসরণের জন্য বিভিন্ন প্রযুক্তির বিষয়ে ভারতকে সাহায্য করবে। এর মধ্য দিয়ে ভারত এবং নেদারল্যান্ডসের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি পাবে।    

ভারতে নিযুক্ত নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত মিস্টার মার্টিন ফন ডেন বার্গ বলেছেন, ভারত এবং নেদারল্যান্ডস তাদের জ্বালানী ক্ষেত্রে সংস্কারের জন্য কাজ করেছে। এই ইচ্ছাপত্র ২টি দেশকে পরিবেশ বান্ধব অর্থনীতি গড়ে তোলার ক্ষেত্রে সাহায্য করবে। আর্থিক বিকাশ এবং আগামী প্রজন্মের জন্য পরিবেশ রক্ষা করা- এই দুই উদ্দেশ্য নিয়ে ভারতের সঙ্গে কাজ করা হবে। এই ইচ্ছাপত্র দুটি দেশের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধির পাশাপাশি উভয় রাষ্ট্রের অর্থনীতিতে গতি আনবে এবং রাষ্ট্রসংঘের স্থিতিশীল উন্নয়নের লক্ষ্যে পৌঁছানো যাবে। 

নীতি আয়োগের মুখ্য কার্যনির্বাহী আধিকারিক শ্রী অমিতাভ কান্ত বলেছেন, ২০৩০ সালের মধ্যে ৩৩-৩৫ শতাংশ কার্বন নিঃসরণ হ্রাস করার বিষয়ে ভারত অঙ্গীকারবদ্ধ। পুনঃনবীকরণযোগ্য জ্বালানী ব্যবহারের পাশাপাশি বৈদ্যুতিক যানবাহনের ব্যবহার বাড়াতে ভারত বদ্ধপরিকর। 

নীতি আয়োগের অতিরিক্ত সচিব ডঃ রাকেশ কারওয়াল বলেছেন, স্থিতিশীল উন্নয়নে পৌঁছাতে গেলে স্বচ্ছ জ্বালানী অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। উৎপাদনের ক্ষমতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে প্রযুক্তির জন্য স্থিতিশীল উন্নয়নও অত্যন্ত জরুরি।

নেদারল্যান্ডস এবং ভারত ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে দীর্ঘদিন ধরে একযোগে কাজ করে এসেছে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলির মধ্যে নেদারল্যান্ডস ভারতের ষষ্ঠ বৃহত্তম বাণিজ্যিক অংশীদার। ইউরোপে ভারত থেকে যেসব পণ্য সামগ্রী রপ্তানী হয় তার ২০ শতাংশই নেদারল্যান্ডস দিয়ে প্রবেশ করে। নেদারল্যান্ডস ভারতের কাছে তাই ইউরোপের প্রবেশদ্বার। নেদারল্যান্ডসে প্রথম ৫টি বিনিয়োগকারী দেশের মধ্যে ভারত অন্যতম। একইসঙ্গে ভারতে প্রত্যক্ষ বিদেশী বিনিয়োগের ক্ষেত্রে নেদারল্যান্ডস তৃতীয়।   

ইউরোপের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য করার জন্য নেদারল্যান্ডস  ভারতের সঙ্গে বাণিজ্যেক সম্পর্ককে আরও দৃঢ় করতে চায়। ভবিষ্যতে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য, সামাজিক চ্যালেঞ্জের মোকাবিলায় বিশেষত জ্বালানী এবং পরিবেশ সংক্রান্ত সমস্যাগুলির জন্য ২টি দেশ একযোগে কাজ করতে উৎসাহি। 

 

CG/ CB/NS



(Release ID: 1660329) Visitor Counter : 127