শিল্পওবাণিজ্যমন্ত্রক

বিশ্ব স্থিতিশীলতা, নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির প্রসারে অভিন্ন স্বার্থের ভিত্তিতে ভারত – মার্কিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে লক্ষণীয় অগ্রগতি হয়েছে : শ্রী পীযূষ গোয়েল

Posted On: 15 JUL 2020 1:25PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ১৫ জুলাই, ২০২০

 

 


ভারত-মার্কিন সিইও ফোরামের পঞ্চম বৈঠক গতকাল টেলিফোনিক কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়। ২০১৪’র ডিসেম্বরে এই ফোরাম গঠিত হওয়ার পর থেকে প্রতি বছর সিইও-দের বৈঠক আয়োজিত হয়ে আসছে। উভয় দেশের অর্থনীতির পারস্পরিক সুবিধার স্বার্থে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার বিভিন্ন দিকগুলি চিহ্নিত করতে এবং ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলির সঙ্গে সম্পর্কিত নানা দিক নিয়ে আলোচনার জন্য এই ফোরাম এক উপযুক্ত মঞ্চ হয়ে উঠেছে।


ভারতের পক্ষ থেকে সিইও ফোরামের এই বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন কেন্দ্রীয় বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রী শ্রী পীযূষ গোয়েল এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে বাণিজ্য সচিব মিঃ উইলবুর রস। উভয় দেশের সিইও-রা দু’দেশের সরকারের সংস্কারমূলক উদ্যোগগুলির প্রশংসা করে বলেন, নতুন নীতি কার্যকর করার ক্ষেত্রে বিগত বৈঠকে পেশ করা প্রস্তাবগুলি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়ে থাকে। বৈঠকে স্বাস্থ্য পরিচর্যা ও ফার্মাসিউটিক্যাল, অ্যারোস্পেস ও প্রতিরক্ষা, পরিকাঠামো ও উৎপাদন, শক্তি, জল ও পরিবেশ সংক্রান্ত একাধিক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।


এই উপলক্ষে শ্রী গোয়েল বলেন, বিশ্ব স্থিতিশীলতা, নিরাপত্তা ও আর্থিক সমৃদ্ধির প্রসারে অভিন্ন স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলি ভারত-মার্কিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের বিকাশে লক্ষণীয় গতি সঞ্চার করছে। তিনি উভয় দেশের অর্থনীতিতে ক্ষুদ্র ব্যবসার গুরুত্বের কথা উল্লেখ করে বলেন, এ ধরনের ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে কর্মসংস্থান ও দক্ষতা বৃদ্ধির ওপর জোর দেওয়া প্রয়োজন। কোভিড পরবর্তী বিশ্বে ক্ষুদ্র ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে কর্মসংস্থান ও দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য ভবিষ্যতমুখী কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নের জন্য ফোরামে উপস্থিত সিইও-দের প্রতি শ্রী গোয়েল আহ্বান জানান।


বৈঠকে সহ-সভাপতিত্বকারী মিঃ টাইক্লেট আশা প্রকাশ করেন, কোভিড-১৯ মহামারীর সময় দু’দেশের মধ্যে অসাধারণ সহযোগিতা পরবর্তী সময়েও বজায় থাকবে। বৈঠকে ভারতের হয়ে সহ-সভাপতিত্বকারী টাটা সন্স – এর চেয়ারম্যান শ্রী এন চন্দ্রশেখরণ ভূ-রাজনৈতিক ও বাণিজ্য সম্পর্কিত বিষয়গুলির প্রেক্ষিতে বিশ্ব সরবরাহ-শৃঙ্খলে সামঞ্জস্য বজায় রাখার চলতি প্রয়াসগুলির কথা উল্লেখ করে বলেন, মার্কিন বেসরকারি সংস্থা এবং সরকারের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ফলে ভারতে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সুযোগ-সুবিধার সৃষ্টি হবে। তিনি দু’দেশের মধ্যে অবাধ বাণিজ্য চুক্তির প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব দেন।


বৈঠকে সরকারি প্রতিনিধি এবং সিইও-দের পক্ষ থেকে দু’দেশে শিল্প ও বাণিজ্য ক্ষেত্রে স্বার্থবাহী প্রয়াসগুলি চালু রাখার ব্যাপারে নিজেদের অঙ্গীকারের কথা পুনরায় ব্যক্ত করেন। কোভিড পরবর্তী বিশ্বে দ্বিপাক্ষিক যোগাযোগ আরও বাড়াতে একযোগে কাজ করার ব্যাপারে মার্কিন বাণিজ্য সচিব মিঃ রস তাঁর দেশের হয়ে আগ্রহের কথা প্রকাশ করেন।

 

 


CG/BD/SB



(Release ID: 1638807) Visitor Counter : 43