কৃষিমন্ত্রক

কৃষি ক্ষেত্রে বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দিলেন শ্রী নরেন্দ্র সিং তোমর

Posted On: 13 JUN 2020 8:47PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ১৩ জুন, ২০২০

 

 


কেন্দ্রীয় কৃষি ও কৃষক কল্যাণ মন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র সিং তোমর কৃষি ক্ষেত্রে বেসরকারি বিনিয়োগ বৃদ্ধির ওপর জোর দিয়েছেন। মিরাটের চৌধুরী চরণ সিং বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত এক আন্তর্জাতিক ওয়েবইনার এবং জুনাগড় কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত জাতীয় স্তরের এক ওয়েবইনারে যোগ দিয়ে শ্রী তোমর বলেন, বেসরকারি বিনিয়োগ কৃষি ক্ষেত্রের অগ্রগতিতে বড় ভূমিকা নেবে। পক্ষান্তরে, এ ধরনের বিনিয়োগ দেশকে আত্মনির্ভর ও সমৃদ্ধশালী করে তুলতে সাহায্য করবে। কৃষি উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি এবং কৃষকদের সমস্যা দূরীকরণে তিনি বিজ্ঞানীদের আরও বড় ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান।


মিরাট বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত ওয়েবইনারে শ্রী তোমর বলেন, খাদ্যশস্য উৎপাদনের থেকে ভারত না কেবল আত্মনির্ভর হয়েছে, সেই সঙ্গে দেশে অতিরিক্ত খাদ্যশস্য উৎপাদিত হচ্ছে। কৃষকরা প্রমাণ করে দিয়েছেন, যে কোনও ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় তাঁরা সক্ষম। দেশে ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার কথা উল্লেখ করে আগামী বছরগুলিতে পর্যাপ্ত পরিমাণে খাদ্যশস্য উৎপাদন ও উৎপাদিত খাদ্যশস্যের গুণমান বজায় রাখার ক্ষেত্রে কৃষি বিজ্ঞানী ও প্ল্যান্ট ব্রিডাররা যে ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখী হবেন, সে প্রসঙ্গে শ্রী তোমর খাদ্যশস্যের পুষ্টিমান বজায় রাখার পাশাপাশি, রোগ প্রতিরোধক এবং পতঙ্গের আক্রমণ থেকে সুরক্ষার জন্য বিভিন্ন প্রজাতির বীজ উৎপাদনের পরামর্শ দেন। এ প্রসঙ্গে তিনি দেশের জলবায়ু, উচ্চ তাপমাত্রা এবং মাটির গুণমান বিবেচনায় রেখে সব মরশুমের উপযোগী কৃষি পদ্ধতি উদ্ভাবনের ওপর গুরুত্ব দেন। তিনি বীজে আরও বৈচিত্র্য এবং সংকর প্রজাতির বীজ উদ্ভাবন কৌশল প্রণয়নের পরামর্শ দেন।


কৃষি ক্ষেত্রে বেসরকারি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা প্রসঙ্গে শ্রী তোমর বলেন, প্রধানমন্ত্রী ইতিমধ্যেই কৃষি পরিকাঠামোর উন্নয়নে ১ লক্ষ কোটি টাকার তহবিল সংস্থানের কথা ঘোষণা করেছেন। এমনকি, মৎস্য চাষ, গবাদি পশুপালন, মৌমাছি প্রতিপালন, ভেষজ চাষাবাদ, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ ক্ষেত্র প্রভৃতি খাতে একই ধরনের তহবিলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। মাটির স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার ওপর গুরুত্ব দিয়ে এ ব্যাপারে কৃষকদের মধ্যে সচেতনতা গড়ে তোলার আহ্বান জানান।


জুনগড় কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবইনারে কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রী কম জল খরচ করে বেশি উৎপাদনশীলতা অর্জনের ওপর গুরুত্ব দেন। প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীর কথা উল্লেখ করে শ্রী তোমর বলেন, গ্রামগুলি আত্মনির্ভর হয়ে উঠতে না পারলে দেশের সমৃদ্ধি সম্ভব নয়। গ্রামীণ অর্থ ব্যবস্থাকে মজবুত করতে কৃষি ক্ষেত্রের অগ্রগতি জরুরি বলে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, কৃষি ক্ষেত্রের সার্বিক উন্নয়ন বাস্তবায়িত হলে দেশও সবধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সক্ষম হয়ে উঠবে।


শ্রী তোমর আরও বলেন, করোনা সঙ্কটের দরুণ যখন বিশ্ব অর্থনীতির অগ্রতিতে মন্দা দেখা দিয়েছে, তখন ভারতীয় কৃষকরা বিপুল পরিমাণে খাদ্যশস্য উৎপাদন করেছে। এমনকি, লকডাউনের সময় ফসল কাটার কাজ স্বাভাবিক গতিতেই এগিয়েছে। এ বছর রবি মরশুমে রেকর্ড পরিমাণ খাদ্যশস্য উৎপাদিত হয়েছে। খরিফ মরশুমে কৃষির এলাকা ৪৫ শতাংশেরও বেশি বেড়েছে। এ থেকেই আমাদের দেশের গ্রাম ও কৃষকদের সহনশীলতার প্রকৃত পরিচয় পাওয়া যায়। শ্রী তোমর বলেন, মোদী সরকারের মতো কৃষি ও কৃষক কল্যাণ ক্ষেত্রে বিপুল পরিমাণ তহবিল অন্য কোনও সরকার সংস্থান করেনি। পিএম-কিষাণ কর্মসূচির আওতায় যে পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে, তা বিগত কৃষি বাজেটগুলির তুলনায় অনেক বেশি। সম্প্রতি ১০ হাজার নতুন কৃষক উৎপাদক সংগঠন গড়ে তোলার কথা ঘোষণা করা হয়েছে, সে প্রসঙ্গ উল্লেখ করে শ্রী তোমর বলেন, এই সংগঠনগুলিতে আরও বেশি সংখ্যক কৃষকদের যুক্ত করতে হবে।

 

 


CG/BD/SB



(Release ID: 1631529) Visitor Counter : 50