স্বাস্থ্যওপরিবারকল্যাণমন্ত্রক

কোভিড-১৯এর সর্বশেষ পরিস্থিতি

Posted On: 01 MAY 2020 5:37PM by PIB Kolkata

নতুন দিল্লি, ১ মে, ২০২০

 



ভারত সরকার রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির সাথে একত্রে শ্রেণী বিভাজন করে,অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এবং অতিসক্রিয় ভাবে কোভিড -১৯ এর প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনায় বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করছে।  এগুলি নিয়মিত পর্যালোচনা করা হচ্ছে এবং সর্বোচ্চ স্তরে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

 কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডাঃ হর্ষ বর্ধন আজ রাজ্যের তীব্র এনসেফালাইটিস সিন্ড্রোম (এইএস) পরিস্থিতি এবং কোভিড -১৯-এর অবস্থা পর্যালোচনা করার জন্য বিহারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী শ্রী  মঙ্গল পান্ডের সাথে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী শ্রী অশ্বিনী কুমার চৌবে এবং কেন্দ্র ও রাজ্য উভয়ের শীর্ষ আধিকারিকরা উপস্থিত ছিলেন।

 দেশের সব জেলা গ্রিন(সবুজ), অরেঞ্জ (কমলা) এবং রেড(লাল) জোনে বিভক্ত করা হয়েছে ।রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল  ও জেলা প্রশাসনকে দৃঢ় পদক্ষেপের মাধ্যমে নিশ্চিত করা দরকার, যে জেলাগুলিতে যেমন লাল এবং কমলা অঞ্চলে এই রোগের ঘটনা ঘটেছে, সেখানে কার্যকরী এবং কঠোর প্রতিরোধ ব্যবস্থার মাধ্যমে ধারাবাহিক সংক্রমণের শৃঙ্খল ভাঙতে হবে।

কনন্টেনমেন্ট জোনের রূপরেখা তৈরিতে সংক্রমিত রোগী  এবং পরিচিতির ভৌগলিক মানচিত্রের হিসেব; সংক্রমিত রোগী  এবং পরিচিতির ভৌগলিক পরিধি/ যাতায়াত ; যথাযথভাবে সীমানা নির্ধারণ করার  বিষয়টি  মাথায় রাখা প্রয়োজন।

 রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকেও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে ,কনন্টেনমেন্ট জোনের অঞ্চলগুলি আবাসিক কলোনি / মহল্লা / পৌরসভা ওয়ার্ড বা থানা এলাকা / পৌর এলাকা / নগর / শহর ইত্যাদি হতে পারে।  গ্রামাঞ্চলের ক্ষেত্রে কনন্টেনমেন্ট জোনের অঞ্চলগুলি গ্রাম বা ক্লাস্টার / গ্রাম পঞ্চায়েত / ব্লক ইত্যাদির হতে পারে।

 রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে পরিষ্কারভাবে বাফার জোন এবং কনন্টেনমেন্ট জোনের অঞ্চলগুলির মধ্যে  সীমা নির্ধারণ করতে হবে। কনন্টেনমেন্ট জোনের ক্ষেত্রে কঠোর পরিধি নিয়ন্ত্রণ, এই রোগের উদ্দেশ্যে গঠিত বিশেষ দলগুলির দরজায় দরজায় পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে সক্রিয় রোগীর সন্ধান চালানো, নমুনা সংগ্রহের পূর্ব  নির্দেশিকা অনুসারে সমস্ত নমুনা পরীক্ষা, নিশ্চিত হওয়া নমুনার ক্ষেত্রে যোগাযোগ করে রোগী শনাক্তকরণ এবং চিকিৎসা কেন্দ্রে পাঠানো উচিত। বাফার জোনের ক্ষেত্রে, প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে আইএলআই / এসআরআই পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে ব্যাপক ভাবে  নজরদারি চালানো দরকার।


 এখনও অবধি মোট ৮৮৮৮৮ জন চিকিৎসার পরে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।  এই নিয়ে আমাদের মোট সুস্থতার হার ২৫.৩৭% হয়েছে। বর্তমানে মোট নিশ্চিত করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩৫,০৪৩। গতকাল থেকে ভারতে কোভিড -১৯ এর নিশ্চিত হওয়া আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে ১,৯৯৩।

 এটি পুনরায় বলা হয়েছে যে, সংক্রমণের শৃঙ্খলাটি ভাঙ্গার জন্য, হাত পরিষ্কার রাখা যেমন সাবান এবং জল দিয়ে হাত ধোয়া বা স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন;  টেবিলের উপরের প্রান্ত, চেয়ারের হ্যান্ডেল, কীবোর্ড, মাউস, মাউস প্যাড ইত্যাদির মতো ঘন ঘন স্পর্শকৃত জায়গাগুলি জীবাণুমুক্ত এবং নিয়মিত পরিষ্কার করুন; সবাই মাস্ক বা মুখ ঢাকা ভাল করে পরিধান করুন ; শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখুন এবং করোনার ট্র্যাকার গুরুত্বপূর্ণঅ্যাপ্লিকেশন "আরোগ্য সেতু" ডাউনলোড করুন।

 কোভিড-১৯ সম্পর্কিত প্রযুক্তিগত সমস্যা, নির্দেশিকা এবং পরামর্শ সম্পর্কিত সমস্ত খুঁটিনাটি এবং সর্বশেষ তথ্যের জন্য নিয়মিত https://www.mohfw.gov.in/ দেখুন।

 কোভিড-১৯ সম্পর্কিত প্রযুক্তিগত প্রশ্নগুলিকে technicalquery.covid19@gov.in - এ ই-মেইল করা যেতে পারে এবং অন্যান্য প্রশ্নগুলি ncov2019@gov.in  এবং @ CovidIndiaSeva ট্যুইট করা যেতে পারে।

 কোভিড-১৯ সম্পর্কিত যে কোনও তথ্যের জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের হেল্পলাইন নাম্বারে কল করুন-: + 91-11-23978046 বা 1075 (টোল ফ্রি)।

 কোভিড -১৯-তে রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির হেল্পলাইন নম্বরগুলির তালিকা
https://www.mohfw.gov.in/pdf/coronvavirushelplinenumber.pdf  এই ওয়েব সাইটে পাওয়া যাবে।

 

 


CG/SS



(Release ID: 1620221) Visitor Counter : 30