অর্থমন্ত্রক

পাবলিক ফিন্যান্সিয়াল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (পিএফএমএস) – এর মাধ্যমে ৩৬,৬৫৯ কোটি টাকার বেশি অর্থ, কোভিড–১৯ লকডাউনের সময় ১৬.০১ কোটি সুবিধাভোগীর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি পাঠানো হয়েছে

Posted On: 19 APR 2020 3:06PM by PIB Kolkata

নতুন দিল্লি, ১৯ এপ্রিল, ২০২০

 

 


কোভিড–১৯ মহামারীর কারণে লকডাউনের মধ্যে অর্থমন্ত্রকের কন্ট্রোলার জেনারেল অফ অ্যাকাউন্ট (সিজিএ) দপ্তর, ৩৬,৬৫৯ কোটি টাকার বেশি অর্থ ১৬ কোটি ১ লক্ষ সুবিধাভোগীর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি পাঠিয়েছে। এই টাকা পাবলিক ফিন্যান্সিয়াল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (পিএফএমএস) – এর মাধ্যমে পাঠানো হয়েছে।


সম্পূর্ণ ডিজিটাল প্রক্রিয়ায় সুবিধাভোগীদের অ্যাকাউন্টে সরাসরি এই টাকা পাঠানোর ফলে তাঁরা উপকৃত হয়েছেন। 


সরাসরি উপভোক্তাদের অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠানোর এই ডিজিটাল প্রক্রিয়ায় (ডিবিটি) ৩৬,৬৫৯ কোটি টাকার বেশি যে অর্থ পাঠানো হয়েছে, তাতে কেন্দ্রের বিভিন্ন প্রকল্পে পাঠানো অর্থের পরিমাণ ২৭,৪৪২ কোটি টাকা। উত্তরপ্রদেশ, বিহার, মধ্যপ্রদেশ, ত্রিপুরা, মহারাষ্ট্র, জম্মু-কাশ্মীর, অন্ধ্রপ্রদেশ সহ বেশ কয়েকটি রাজ্য সরকার তাদের নানা প্রকল্পে  ৯৭১৭ কোটি টাকা এই প্রক্রিয়ায় পাঠিয়েছে।


কোভিড–১৯ মহামারীর ফলে ২৪ মার্চ থেকে দেশজুড়ে জারি হওয়া লকডাউনের মধ্যে গত শুক্রবার পর্যন্ত কেন্দ্রীয় বিভিন্ন প্রকল্পে ১১ কোটি ৪২ লক্ষ সুবিধাভোগী উপকৃত হয়েছেন। বিভিন্ন রাজ্যের প্রকল্পে ৪ কোটি ৫৯ লক্ষ সুবিধাভোগীও এই ব্যবস্থার সুফল পেয়েছেন।


প্রধানমন্ত্রী গরীব কল্যাণ যোজনার আওতায় ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত যে সব মহিলাদের জনধন অ্যাকাউন্ট রয়েছে, তাঁরা সকলে ৫০০ টাকা করে পেয়েছেন। আর্থিক পরিষেবা দপ্তরের তথ্য অনুযায়ী এই সময়ের মধ্যে মোট ৯,৯৩০ কোটি টাকা ১৯ কোটি ৮৬ লক্ষ মহিলা সুবিধাভোগীদের অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়েছে।


পিএফএমএস ব্যবহার করে ২০১৮ – ১৯ অর্থবর্ষে সুবিধাভোগীদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ডিবিটি-র মাধ্যমে যেখানে ২২ শতাংশ সুবিধাভোগী উপকৃত হয়েছিলেন, ২০১৯ – ২০ অর্থবর্ষে সেই পরিমাণ বেড়ে দাঁড়ায় ৪৫ শতাংশে। 


কোভিড–১৯ মহামারীর মোকাবিলায় ২৪ মার্চ থেকে দেশজুড়ে জারি হওয়া লকডাউনের মধ্যে পিএম কিষাণ, মহাত্মা গান্ধী জাতীয় কর্মসংস্থা্ন নিশ্চয়তা প্রকল্প (এমএনআরইজিএস) ন্যাশনাল সোশ্যাল অ্যাসিস্টেন্স প্রোগ্রাম, প্রাইম মিনিস্টার মাত্রু বন্দনা যোজনা, ন্যাশনাল রুরাল লাইভলিহুড মিশন, জাতীয় স্বাস্থ্য মিশন, ন্যাশনাল স্কলারশিপ পোর্টালের মাধ্যমে বিভিন্ন মন্ত্রকের বৃত্তির মত নানা প্রকল্পের মোট ১১,৪২,০২,৫৯২ জন সুবিধাভোগীর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে অর্থ পাঠানো হয়েছে। যার পুরো পরিমাণ ২৭,৪৪২ কোটি ৮ লক্ষ টাকা। 

প্রধানমন্ত্রী কিষাণ সম্মাননিধি (পিএমকিষাণ) প্রকল্পে ৮,৪৩,৭৯,৩২৬ জন, মহাত্মা গান্ধী জাতীয় গ্রামীণ নিশ্চয়তা প্রকল্পে ১,৫৫,৬৮,৮৮৬ জন, ইন্দিরা গান্ধী জাতীয় বার্ধ্যক্যভাতা প্রকল্পে ৯৩,১৬,৭১২ জন, ইন্দিরা গান্ধী জাতীয় বিধবা ভাতা প্রকল্পে ১২,৩৭,৯২৫ জন, জাতীয় গ্রামীণ স্বাস্থ্য মিশনে ১০,৯৮,১২৮ জন, প্রধানমন্ত্রী মাত্রু বন্দনা যোজনায় ৭,৫৮,১৫৩ জন, সংখ্যালঘু ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য প্রাক মাধ্যমিক বৃত্তি প্রকল্পে ৫,৭২,৯০২ জন, ইন্দিরা গান্ধী জাতীয় ভিন্নভাবে সক্ষম পেনশন প্রকল্পে ২,৩৯,৭০৭ জন এবং ন্যাশনাল সোশ্যাল অ্যাসিস্টেন্স প্রোগ্রামে ২,২৩,৯৮৭ জন সুবিধাভোগী ডিবিটি-র মাধ্যমে সরাসরি টাকা পেয়েছেন।

এই সময়ের মধ্যে উত্তরপ্রদেশ, বিহার, মধ্যপ্রদেশ, ত্রিপুরা, মহারাষ্ট্র, জম্মু-কাশ্মীর, অন্ধ্রপ্রদেশ সহ বেশ কয়েকটি রাজ্য সরকার, পিএফএমএস ব্যবহার করে সংশ্লিষ্ট রাজ্যের বিভিন্ন প্রকল্পে মোট ৪,৫৯,০৩,৯০৮ জন সুবিধাভোগীর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে মোট ৯,২১৭ কোটি ২২ লক্ষ টাকা পাঠিয়েছে। 

বিভিন্ন রাজ্যের যে সমস্ত প্রকল্পগুলির আওতায় সুবিধাভোগীদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পিএফএমএস-এর মাধ্যমে সরাসরি টাকা ঢুকেছে তারমধ্যে বিহার শিক্ষা দপ্তরের বিআর১৪৭ নম্বর প্রকল্প, করোনা সহায়তা প্রকল্প, মুখ্যমন্ত্রী বৃদ্ধজন পেনশন যোজনা, বিহার স্টেট ডিসঅ্যাবিলিটিস পেনশন স্কীম, মুখ্যমন্ত্রী বিশেষ সহায়তা প্রকল্প, উত্তর প্রদেশের বৃদ্ধাবস্থা, কিষাণ পেনশন যোজনা, ইউপি ন্যাশনাল উইডো পেনশন স্কীম, কুষ্ঠাবস্থা বিকলাঙ্গ ভরণপোষণ অনুদান, অসমের ওল্ড এজ পেনশন ফ্রম স্টেট কন্ট্রিবিউশন, দিল্লির, ফিন্যান্সিয়াল অ্যাসিস্টেন্স টু সিনিয়র সিটিজেন অন্যতম।   

ডিবিটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এই অর্থ প্রদানের ফলে কোনো রকমের অনিয়মের সম্ভবনা থাকে না। সুবিধাভোগী দ্রুত তাঁর প্রাপ্য টাকা বৈদ্যুতিন প্রক্রিয়ায় ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টে পেয়ে যান।

 



CG/CB



(Release ID: 1616207) Visitor Counter : 136