সংসদবিষয়কমন্ত্রক

সংসদে অধিবেশন চলাকালীন বিরোধী দলের অগণতান্ত্রিক এবং সহিংস আচরণ ভারতীয় গণতন্ত্রের ইতিহাসে একটি অন্ধকার অধ্যায় হিসেবে লিপিবদ্ধ থাকবে

Posted On: 12 AUG 2021 3:46PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লী, ১২ আগস্ট, ২০২১

বিরোধী সংসদ সদস্যদের নিন্দনীয় কার্যকলাপ একটি নিয়ম হয়ে উঠেছে। এবারের অধিবেশনে তাদের কার্যকলাপগুলি তার ব্যতিক্রম নয় এবং এটি ধারাবাহিকভাবে চলে। গত বছর রুল বুক ছিড়ে ফেলা থেকে শুরু করে বিরোধী দল এই সংসদে যেসব অসংসদীয় আচরণ করেছে তাতে তাদের আচরণ দিন দিন লজ্জাজনক হয়ে উঠছে। নতুন দিল্লীতে আজ এক সাংবাদিক বৈঠকে একথা জানানো হয়েছে। এদিন এই সাংবাদিক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শ্রী পীযূষ গোয়েল, শ্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান, শ্রী মুক্তার আব্বাস নকভি, শ্রী প্রহ্লাদ জোশী, শ্রী ভূপেন্দ্র যাদব, শ্রী অনুরাগ সিং ঠাকুর, শ্রী অর্জুন রাম মেঘওয়াল এবং ভি মুরলীধরণ।
মন্ত্রীরা উল্লেখ করেন যে বিরোধীরা প্রকাশ্যে বলেছেন, এই অধিবেশন বাতিল করা উচিত। বিরোধীদের উদ্দেশ্যই ছিল সভাকক্ষে কোনোরকম কাজ পরিচালনা না করতে দেওয়া। প্রকৃতপক্ষে সরকার একাধিকবার আলোচনার প্রস্তাব দেয়। কিন্তু তাঁরা আলোচনার আবেদনে সাড়া দেননি। এমনকি বিরোধীরা মাননীয় মন্ত্রীর হাত থেকে কাগজ ছিনিয়ে নিয়ে ছিঁড়ে ফেলেন। এছাড়াও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে মন্ত্রী পরিষদে নতুনভাবে শপথ নেওয়া মন্ত্রীদের পরিচয় করিয়ে দেওয়ারও কোন সুযোগ দেননি।
কিছু বিরোধী সদস্য সভার ভিতরে এমনভাবে আচরণ করেছেন তাতে সভাকক্ষের পবিত্রতাই নষ্ট হয়েছে। সভায় অবস্থিত টেবিল এবং চেয়ারে রুল বুক ছুঁড়ে দিয়েছেন। সাংসদ সদস্য, যিনি সংসদের ভিতরে যেভাবে টেবিলের ওপর দাঁড়িয়েছিলেন তাতে মনে হয় সংসদীয় নৈতিকতাকেই পদদলিত করেছেন। এই ধরণের আচরণ নজিরবিহীন। বিরোধীরা সভাকক্ষকে অসম্মান করেছেন। এতে সভাকক্ষের সম্মান মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বিরোধীদের আচরণ এই সংসদীয় প্রতিষ্ঠানের মর্যাদার ওপর আঘাত হেনেছে। বিরোধী সদস্যদের দুর্ব্যবহার ভারতীয় সংসদীয় ইতিহাসে এক লজ্জাজনক অপমানকর ঘটনা। তবে দুঃখজনক বিষয় হল বিরোধী সাংসদ সদস্যরা তাঁদের কৃতকর্মের জন্য একবারও ক্ষমা চাননি। বরং তাঁরা এই লজ্জাজনক কাজগুলিকে বীরত্বের কাজ হিসেবে বিবেচনা করেছেন।
শ্রী পীযুষ গোয়েল জানান, বিরোধীরা শুধু অধিবেশন জুড়েই দুর্ব্যবহার করেছেন তাই নয়, তাঁরা জন কল্যাণমুখী বিষয়গুলি নিয়ে সংসদের ভিতরে আলোচনা হোক সেটাও চাননি। বিরোধী দলের লজ্জাজনক ও বাধাদানমূলক আচরণকারীর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি করা হয়েছে। তাঁরা জাতীয় বিভেদ ঘটিয়ে বিরোধী ঐক্য তৈরি করতে চেয়েছিলেন। দেশের মানুষের কাছে তাঁদের জবাব দিতে হবে।
বিল পাস করা নিয়ে বিরোধীরা প্রশ্ন তুলেছে।এবার সংসদে বিতর্কের কোনো অবস্থায় ছিলনা। নিছক চিৎকার ছাড়া আর কিছুই হয়নি। ইউপিএ শাসনকালে যখন অসংখ্য বিল পাস করা হয়েছিল তখন আলোচনা ছাড়াই সেগুলি পাস করা হয়। তাহলে সেসময় এই উদ্বেগ কোথায় ছিল? ২০০৬ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে ইউপিএ শাসনকালে সরকার তাড়াহুড়ো করে মোট ১৮টি বিল পাস করিয়েছে।
২০১৪ সাল থেকে সংসদের কাজে বার বার বাধা দেওয়া হয়েছে। বিরোধীদের বাধা দেওয়ায় জেরে সভার কাজ স্থগিত হয়ে যায়।এ কারণে এবার ৭৬ ঘণ্টা ২৬ মিনিট সভার কাজ নষ্ট হয়েছে। তবে সমস্ত বাধা এবং বিশৃঙ্খলা সত্বেও রাজ্যসভায় এবার ওবিসি সংরক্ষণে সংবিধান সংশোধনী সহ ১৯টি বিল পাস হয়েছে। এই বিলগুলি পাস হওয়ায় জাতীয় স্বার্থে এবং দরিদ্র, ওবিসি, শ্রমিক, উদ্যোক্তা ও সমাজের বিভিন্ন অংশের মানুষ উপকৃত হবেন। সরকারের মূল উদ্দেশ্যই হল দেশের নাগরিকের আশা-আকাঙ্খা পূরণ করা। সংসদের মাধ্যমে সেই কাজই চালানো হয়।
এবার সংসদে বাদল অধিবেশন শুরু হয় ১৯ জুলাই। ১১ আগস্ট বুধবার সংসদের অধিবেশন অনির্দিষ্টকালের জন্য মুলতুবি হয়ে যায়। এই ২৪ দিনে এবার ১৭টি অধিবেশন বসেছে। ১৯ জুলাই থেকে ১৩ আগস্ট পর্যন্ত সংসদের বাদল অধিবেশন চলার কথা ছিল। কিন্তু বিরোধীদের হৈ-হট্টগোল এবং বিশৃঙ্খলার কারণে সংসদের উভয় কক্ষের অধিবেশনের কাজ নির্ধারিত সময়ের দু-দিন আগেই মুলতুবি করে দিতে হয়। এবারের অধিবেশনে সংসদের উভয় কক্ষে ২২টি বিল পাস হয়েছে। ৪টি বিলের পরিবর্তে অধ্যাদেশ নিয়ে আসা হয়েছে। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রকে এবং ব্যবসা-বাণিজ্যকে সহজ করে তুলতে কর আইন (সংশোধনী) বিল ২০২১, সাধারণ বিমা বাণিজ্য (জাতীয়করণ) সংশোধনী বিল ২০২১, আমানত বিমা ও ঋণ নিশ্চয়তা নিগম (সংশোধনী) বিল ২০২১, লিমিটেড লাইবিলিটি পার্টনারশিপ (সংশোধনী) বিল ২০২১, ফ্যাক্টরিং রেগুলেশন (সংশোধনী) ২০২১ সংসদে পাস হয়েছে। পরিবহণ ক্ষেত্রে সংস্কার সাধনে অভ্যন্তরীণ জলপথে নৌ চলাচল বিল ২০২১, সামুদ্রিক সাহায্য থেকে নৌ চলাচল বিদ্যা বিল ২০২১, এয়ারপোর্ট ইকোনমিক রেগুলেটরি অথরিটি অফ ইন্ডিয়া (সংশোধনী) বিল ২০২১ পাস হয়েছে। শিক্ষাক্ষেত্রে সংস্কার সাধনে ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অফ ফুড টেকনোলজি এন্টারপ্রেনারশিপ অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিল ২০২১, দ্যা সেন্ট্রাল ইউনিভার্সিটিজ (সংশোধনী) বিল ২০২১ পাস হয়েছে। সামাজিক ন্যায় বিচার ক্ষেত্রে সংস্কার সাধনে সংবিধান (১২৭তম সংশোধনী) বিল ২০২১, কিশোর-কিশোরী বিচার (শিশুদের সুরক্ষা ও যত্ন) সংশোধনী বিল ২০২১, সংবিধান (তপশীলি উপজাতি) অধ্যাদেশ (সংশোধনী) বিল ২০২১ পাস হয়েছে। এবারের বাদল অধিবেশনে সংসদের উভয় কক্ষে ২২টি বিল পাস হয়েছে এবং দুটি পুরনো বিল প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।

CG/SS/NS



(Release ID: 1745263) Visitor Counter : 74