বৈদ্যুতিন ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রক

তথ্য প্রযুক্তির হার্ডওয়্যার শিল্পের ১৯টি সংস্থা পিএলআই প্রকল্পে আবেদন করেছে

Posted On: 04 MAY 2021 1:11PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লী,  ৪ মে, ২০২১

 

তথ্য প্রযুক্তি হার্ডওয়্যার শিল্পের ১৯টি সংস্থা,  উৎপাদনভিত্তিক উৎসাহ প্রকল্প বা পিএলআই প্রকল্পে আবেদন করেছে। তেসরা মার্চ এই প্রকল্পটির বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছিল। ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত এর জন্য  আবেদনপত্র জমা নেওয়া হয়েছে। পয়লা এপ্রিল থেকে বিশেষ ছাড়ের সুযোগ প্রযোজ্য হবে। 

যেসব হার্ডওয়্যার সংস্থাগুলি বৈদ্যুতিন হার্ডওয়্যার নির্মাণকারী সংস্থা হিসেবে এই প্রকল্পে আবেদন করেছে সেগুলি হল ডেল, আইসিটি (উইসট্রন), ফ্লেক্সট্রনিক্স, রাইজিং স্টার হাইটেক (ফক্সকন)এবং লাভা। 

দেশীয় সংস্থা হিসেবে যে ১৪টি কোম্পানী আবেদন করেছে তার মধ্যে আছে ডিক্সন, ইনফো পাওয়ার (সহর্ষ ও মাইটেকের যৌথ উদ্যোগ), ভগবতি (মাইক্রোম্যাক্স) সিরমা অরবিক, নিওলিঙ্ক, অপটিমাস, নেটওয়েব, ভিভিডিএন, স্মাইল ইলেট্রনিক্স, পানাকে ডিজিলাইফ, এইচএলবিএস, আরডিপি ওয়ার্ক স্টেশন এবং কোকোনিক্স। এই সংস্থাগুলি তাদের উৎপাদন সংক্রান্ত কাজকর্ম যথেষ্টভাবে বাড়াবে এবং তথ্য প্রযুক্তির হার্ডওয়্যার উৎপাদনে বিকাশ ঘটাবে। 

উৎপাদন ভিত্তিক উৎসাহ প্রকল্প (পিএলআই) ৪ শতাংশ থেকে ২ শতাংশ বা ১ শতাংশ পর্যন্ত বিক্রি বাড়লে উৎসাহভিত্তিক  ছাড় দেবে। ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে যে পরিমাণ পণ্য সামগ্রী বিক্রি হয়েছে তার ওপর ভিত্তি করে এই ছাড়ের বিষয়টি নির্ধারিত হবে। ২০২১-২২ অর্থবর্ষ থেকে ২০২৪-২৫ অর্থবর্ষ পর্যন্ত এই সুযোগ দেওয়া হবে। 

কেন্দ্রীয় বৈদ্যুতিন ও তথ্যপ্রযুক্তি, যোগাযোগ, আইন ও বিচারমন্ত্রী শ্রী রবি শঙ্কর প্রসাদ আবেদনপত্রগুলি জমা নেওয়ার পর জানান, সরকারের তথ্যপ্রযুক্তি হার্ডওয়্যার শিল্পে এই পিএলআই প্রকল্প সফল হতে চলেছে। দেশ-বিদেশের সংস্থাগুলি এদেশে বৈদ্যুতিন যন্ত্রপাতি বানাতে উৎসাহি হয়েছে। এর মাধ্যমে শিল্পসংস্থাগুলির ভারতের প্রতি আস্থার প্রতিফলন ঘটেছে এবং ভারতকে আন্তর্জাতিক মানের উৎপাদন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী যে উৎসাহ দেখিয়েছিলেন তা বাস্তবায়িত হবে।  

প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ডিজিটাল ইন্ডিয়া এবং মেক ইন ইন্ডিয়া কর্মসূচির মাধ্যমে গত ৫ বছরে দেশে বৈদ্যুতিন সামগ্রীর উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৯ সালে বৈদ্যুতিন শিল্পের ওপর জাতীয় নীতি ঘোষিত হয়। ল্যাপটপ, ট্যাবলেট, অল ইন ওয়ান পার্সোনাল কম্পিউটার এবং সার্ভারের মতো সামগ্রী এই প্রকল্পের আওতায় দেশে তৈরি করা হবে। যেসব সংস্থা এগুলি তৈরি করবে তাদের জন্য বিশেষ উৎসাহ ব্যাঞ্জক সুবিধার ব্যবস্থা করা হয়েছে। 

আগামী ৪ বছর ধরে এই প্রকল্পে প্রায় ১ লক্ষ ৬০ হাজার কোটি টাকার সামগ্রী উৎপাদিত হবে। এর মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তি হার্ডওয়্যার কোম্পানীগুলি ১ কোটি ৩৫ লক্ষ টাকার সামগ্রী উৎপাদন করবে। দেশীয় সংস্থাগুলি ২৫ হাজার কোটি টাকার পণ্য সামগ্রী উৎপাদন করবে। 

এই প্রকল্পে রপ্তানী উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পাবে। আগামী ৪ বছরে মোট উৎপাদনের মধ্যে ১৬ হাজার কোটি টাকার পণ্য উৎপাদন করা হবে। এর মধ্যে ৩৭ শতাংশ অর্থাৎ ৬০ হাজার কোটি টাকার পণ্য রপ্তানী করা হবে। এছাড়াও এই প্রকল্প অতিরিক্ত আরও ২৩৫০ কোটি টাকার বৈদ্যুতিন সামগ্রী উৎপাদনে বিনিয়োগ নিয়ে আসবে। আগামী ৪ বছরে এর মাধ্যমে ৩৭ হাজার ৫০০ জনের সরাসরি কর্মসংস্থান হবে। এছাড়াও পরোক্ষভাবে ৩ গুণ বেশি কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। 

দেশে বৈদ্যুতিন পণ্যের চাহিদা ক্রমশ বৃদ্ধি পাওয়ায় ২০২৫ সালের মধ্যে এই শিল্পের যথেষ্ট অগ্রগতি হবে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী আশা করেন বৈদ্যুতিন সামগ্রী উৎপাদনের জন্য পিএলআই স্কিম সহ নানান উদ্যোগের ফলে ভারত বৈদ্যুতিন সরঞ্জাম প্রস্তুত করার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক স্তরে আকর্ষণীয় গন্তব্য হয়ে উঠবে এবং আত্মনির্ভর ভারত অভিযানে গতি আসবে। ভোকাল ফর লোকাল উদ্যোগেরও এরফলে সুবিধা হবে।  


SC/CB /NS



(Release ID: 1715944) Visitor Counter : 211