স্বাস্থ্যওপরিবারকল্যাণমন্ত্রক

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের সঙ্গে কোভিড টিকাকরণ অভিযান পর্যালোচনা ও এপ্রিল মাসের প্রস্তুতি নিয়ে কথা বলেছেন


রাজ্যগুলিতে টিকার কোনও ঘাটতি নেই; টিকার যোগান অব্যাহত থাকবে

টিকার ডোজের অপচয় ১ শতাংশের নীচে নামিয়ে আনার ওপর জোর

Posted On: 31 MAR 2021 2:37PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ৩১ মার্চ ২০২১

দেশে কোভিড-১৯ টিকাকরণ অভিযানের বর্তমান পরিস্থিতি, টিকাকরণ হারে গতি ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব শ্রী রাজেশ ভূষণ, জাতীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের মুখ্য কার্যনির্বাহী আধিকারিক ও কোভিড টিকাকরণ সংক্রান্ত ক্ষমতাপ্রাপ্ত গোষ্ঠীর চেয়ারম্যান আজ রাজ্য/কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের স্বাস্থ্য সচিব, জাতীয় স্বাস্থ্য মিশনের রাজ্যস্তরীয় অধিকর্তা এবং রাজ্য টিকাকরণ সংক্রান্ত আধিকারিকদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক করেন। এই বৈঠকে বর্তমান টিকাকরণ অভিযান নিয়ে আলোচনার পাশাপাশি, এপ্রিল মাসে টিকাকরণের প্রস্তুতি নিয়েও আলোচনা হয়। উল্লেখ করা যেতে পারে, এপ্রিল মাস থেকেই ৪৫ বছরের বেশি বয়সী ব্যক্তিদের টিকাকরণ শুরু হয়েছে। যে জেলাগুলিতে কোভিড আক্রান্তের ঘটনা বাড়ছে, সেখানে টিকাকরণের গতি বাড়ানো নিয়েও আলোচনা হয়েছে।


স্বাস্থ্য কর্মী ও করোনা যোদ্ধাদের টিকাকরণ সম্পর্কে রাজ্য/কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, যাতে তারা কেবল যোগ্য সুফলভোগীদের চিহ্নিত করে তাঁদের টিকাকরণ দ্রুত সম্পন্ন করা যায়। কো-উইন প্ল্যাটফর্মে ডুপ্লিকেট বা নকল নামনথিভুক্তিকরণের বিষয়েও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হয়েছে। যে জেলা বা অঞ্চলগুলিতে টিকাকরণের হার নগণ্য, সেখানে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে বয়স-ভিত্তিক শ্রেণীর মানুষের টিকাকরণের হার আরও বাড়াতে বলা হয়েছে।


রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে বেসরকারি কোভিড টিকাকরণ কেন্দ্র সম্পর্কে বলা হয়েছে, নিয়মিতভাবে টিকাকরণের বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা করতে হবে। সেই সঙ্গে, অতিরিক্ত কোভিড টিকাকরণ কেন্দ্রের প্রয়োজনীয়তা যাচাইয়ে জিআইএস পদ্ধতিতে পরিস্থিতি পর্যালোচনার জন্য রাজ্য/কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।


পর্যাপ্ত পরিমাণে টিকার মজুত সম্পর্কে রাজ্য/কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে পরামর্শ দিয়ে বলা হয়েছে, টিকাকরণের কোনও পর্যায়েই যেন টিকার ডোজের ঘাটতি দেখা না দেয়। অতিরিক্ত মজুত এড়াতে টিকার ডোজ ব্যবহারের ভিত্তিতে টিকা বন্টনের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। আরও বলা হয়েছে, যে সমস্ত ক্ষেত্রে টিকা সরবরাহে ঘাটতি রয়েছে, সেগুলি দ্রুত চিহ্নিত করে মজুত টিকার নিয়মিত পর্যালোচনা করতে হবে।


কেন্দ্রের পক্ষ থেকে রাজ্য/কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে আরও বলা হয়েছে, টিকার ডোজের অপচয় বর্তমানে জাতীয় স্তরে ৬ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১ শতাংশ করতে হবে। টিকার অপচয় কমাতে নিয়মিত পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে হবে। মজুত থাকা টিকার মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার আগেই তা সদ্ব্যবহার করতে হবে এবং কো-উইন তথা ই-ভিন পোর্টালে টিকার ডোজ ব্যবহার সম্পর্কিত তথ্য সময় মতো আপডেট করতে হবে।
জাতীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের মুখ্য কার্যনির্বাহী আধিকারিক ডঃ শর্মা জানান, কোভিড টিকার কোনও ঘাটতি নেই এবং পরিবহণেও কোনও সমস্যা নেই। তিনি প্রথম ডোজের পর দ্বিতীয় ডোজের ক্ষেত্রে টিকা সংরক্ষণের ওপর আরও গুরুত্ব দেন।

***

 

 

CG/BD/SB



(Release ID: 1708754) Visitor Counter : 214