ক্ষুদ্র, অতিক্ষুদ্রওমাঝারিশিল্পমন্ত্রক

ধূপকাঠি উৎপাদনে ভারতকে স্বনির্ভর করে তুলতে একটি নতুন কর্মসূচির সূচনা করেছেন শ্রী নীতিন গড়করি

Posted On: 02 AUG 2020 2:19PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ০২ অগাস্ট, ২০২০

 

 


কেন্দ্রীয় অতিক্ষুদ্র, ছোট ও মাঝারি শিল্পোদ্যোগ মন্ত্রী শ্রী নীতিন গড়করি খাদি ও গ্রামোদ্যোগ কমিশনের প্রস্তাবিত কর্মসংস্থান সৃষ্টির এক অভিনব কর্মসূচি অনুমোদন করেছেন। এই কর্মসূচির আওতায় ধূপকাঠি উৎপাদনে ভারতকে আত্মনির্ভর করে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে। কর্মসূচির নামকরণ হয়েছে ‘খাদি ধূপকাঠি আত্মনির্ভর মিশন’। উদ্দেশ্য হ’ল – দেশজ ধূপকাঠির উৎপাদন লক্ষ্যণীয় পরিমাণে বৃদ্ধির পাশাপাশি, বেকার ও প্রবাসী শ্রমিকদের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি। উল্লেখ করা যেতে পারে, কমিশনের পক্ষ থেকে গতমাসে মন্ত্রকের কাছে এই কর্মসূচি অনুমোদনের জন্য একটি প্রস্তাব জমা দেওয়া হয়। পরীক্ষামূলকভাবে এই কর্মসূচিটি শীঘ্রই শুরু হবে। পুরোদমে কর্মসূচিটি চালু হলে ধূপকাঠি শিল্পে হাজার হাজার কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।


সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কমিশনের পরিকল্পিত এই কর্মসূচিটি প্রকৃত অর্থেই অভিনব। এর বিশেষত্ব হ’ল – অল্প বিনিয়োগে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং বেসরকারি ধূপকাঠি নির্মাতাদের বড় মাপের মূলধন বিনিয়োগ ছাড়াই ধূপকাঠি উৎপাদন বৃদ্ধিতে সাহায্য করা। কর্মসূচির আওতায় কমিশন স্বয়ংক্রিয় ধূপকাঠি বানানোর যন্ত্র এবং পাউডার মিক্সিং যন্ত্র ধূপকাঠি উৎপাদকদের সরবরাহ করবে। এই কাজে ধূপকাঠি উৎপাদকদের সাহায্য করবে সফল বেসরকারি ধূপকাঠি উৎপাদক সংস্থাগুলি। বেসরকারি ধূপকাঠি উৎপাদক সংস্থাগুলি কমিশনের সঙ্গে ব্যবসায়িক অংশীদার হিসাবে চুক্তি স্বাক্ষর করবে। এদিকে কমিশন ভারতীয় নির্মাতাদের তৈরি স্থানীয় যন্ত্র সংগ্রহের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কমিশনের এই সিদ্ধান্তের ফলে স্থানীয় ভিত্তিতে যন্ত্রের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে।


কমিশনের পক্ষ থেকে যন্ত্রগুলি ক্রয়ের ক্ষেত্রে ২৫ শতাংশ ভর্তুকি দেওয়া হবে এবং বাকি ৭৫ শতাংশ অর্থ সহজ কিস্তিতে প্রত্যেক মাসে ধূপকাঠি উৎপাদক শিল্পীরা জমা করতে পারবেন। কমিশনের ব্যবসায়িক অংশীদাররা ধূপকাঠি উৎপাদক শিল্পীদের কাঁচামালের যোগান দেবেন এবং কাজের ভিত্তিতে মজুরি মেটাবে।


প্রতিটি স্বয়ংক্রিয় ধূপকাঠি বানানোর যন্ত্রে প্রতিদিন প্রায় ৮০ কিলোগ্রাম ধূপকাঠি বানানো যাবে। এর ফলে, দৈনিক ৪ জনের প্রত্যক্ষ কর্মসংস্থান হবে। অন্যদিকে, ৫টি ধূপকাঠি বানানোর যন্ত্র পিছু ১টি করে পাউডার মিক্সিং মেশিন দেওয়া হবে। ধূপকাঠি বানানোর কাঁচামালের মিশ্রণের ক্ষেত্রে এই যন্ত্রকে কাজে লাগিয়ে প্রতিদিন ২ জন ব্যক্তির কর্মসংস্থান হবে।


বর্তমানে ধূপকাঠি বানানোর ক্ষেত্রে প্রতি কেজিতে ১৫ টাকা দেওয়া হয়। এই মজুরি হারে ৪ জন কর্মী ১টি স্বয়ংক্রিয় ধূপকাঠি বানানো যন্ত্র থেকে দৈনিক ১ হাজার ২০০ টাকা পর্যন্ত উপার্জন করতে পারবেন। উল্লেখ করা যেতে পারে, এই যন্ত্রগুলির সাহায্যে দৈনিক ৮০ কিলো ধূপকাঠি বানানো সম্ভব। তাই, হিসাব অনুযায়ী প্রত্যেক কর্মচারী দৈনিক কমপক্ষে ৩০০ টাকা উপার্জন করতে পারবেন। একইভাবে, পাউডার মিক্সিং যন্ত্রগুলিতে প্রত্যেক কর্মচারী দৈনিক ২৫০ টাকা করে উপার্জন করবেন।


সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে ধূপকাঠি বানানোর এই কর্মসূচি কার্যকর করতে খাদি ও গ্রামোদ্যোগ কমিশন এবং বেসরকারি ধূপকাঠি উৎপাদকদের সঙ্গে শীঘ্রই একটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে। এই কর্মসূচি রূপায়ণের ক্ষেত্রে দুটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হয়েছে। প্রথমটি হ’ল – কাঁচা ধূপকাঠি আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা এবং বাঁশের কাঠি আমদানির ওপর শুল্ক বসানো।


কমিশনের এই উদ্যোগ প্রসঙ্গে চেয়ারম্যান শ্রী বিনয় কুমার সাক্সেনা জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় সরকারের কাঁচা ধূপকাঠি আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা এবং বাঁশের কাঠি আমদানির ক্ষেত্রে শুল্ক আরোপের ফলে দেশীয় ধূপকাঠি শিল্পে ব্যাপক কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। এই প্রেক্ষিতে কমিশন ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করার জন্য ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পোদ্যোগ মন্ত্রকের কাছে খাদি ধূপকাঠি আত্মনির্ভর মিশন চালু করার জন্য প্রস্তাব জমা দেয়। কমিশনের এই প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে মন্ত্রক খাদি ধূপকাঠি আত্মনির্ভর মিশন চালু করার ব্যাপারে অনুমতি দিয়েছে। বর্তমানে দেশে দৈনিক প্রায় ১ হাজার ৪৯০ মেট্রিক টন ধূপকাঠির ব্যবহার হয়। কিন্তু দৈনিক-ভিত্তিতে ভারতে ধূপকাঠির উৎপাদন মাত্র ৭৬০ মিলিয়ন টন। চাহিদা ও যোগানের মধ্যে বিরাট এই ফারাক দূর করতে কমিশন খাদি ধূপকাঠি আত্মনির্ভর মিশন চালু করার প্রস্তাব দেয়।

 



CG/BD/SB



(Release ID: 1643063) Visitor Counter : 199