নির্বাচনকমিশন

দেশের ২১টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে প্রথম পর্যায়ের ভোটগ্রহণ ছিল মোটামুটি শান্তিপূর্ণ

১০টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ভোটগ্রহণ পর্ব এদিন সম্পূর্ণ হল, এর মধ্যে অধিকাংশই ছিল উত্তর পূর্বাঞ্চলের

Posted On: 19 APR 2024 8:28PM by PIB Kolkata

নতুন দিল্লি, ১৯ এপ্রিল, ২০২৪

 

প্রচন্ড তাপপ্রবাহ সত্বেও ২০২৪-এর সাধারণ নির্বাচনের প্রথম পর্যায়ে বেশ ভালোরকমই ভোট পড়েছে। ভোটগ্রহণ পর্বটি মোটামুটি ভাবে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সম্পন্ন হয়। সমাজের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ বিশেষ উৎসাহ উদ্দীপনার সঙ্গে ভোটগ্রহণ কেন্দ্রগুলিতে উপস্থিত থেকে তাঁদের নাগরিক দায়িত্ব পালন করেন। এবারের সাধারণ নির্বাচনের প্রথম পর্যায়ে দেশের ১০টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভোটগ্রহণ পর্ব সম্পূর্ণ হল। অষ্টাদশ লোকসভা নির্বাচনে জনপ্রতিনিধিদের নির্বাচিত করতে এই ভোটগ্রহণের পাশাপাশি সিকিম ও অরুণাচল প্রদেশের রাজ্য বিধানসভার নির্বাচনও অনুষ্ঠিত হয়। ভোটগ্রহণ পর্বের প্রথম পর্যায়টি নির্বিঘ্নে সম্পন্ন হওয়ায় নির্বাচন কমিশন ভোটদাতা সহ সার্বিক নির্বাচন প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণকারী সকলকেই ধন্যবাদ জানিয়েছে। 

 
মোটামুটি ভাবে জানা গেছে যে ২১টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে সন্ধে ৭টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণের হার ছিল ৬০ শতাংশেরও বেশি। তবে, সবকটি ভোটগ্রহণ কেন্দ্র থেকে এসম্পর্কে বিস্তারিত খবরাখবর এসে পৌঁছোলে ভোটগ্রহণের হার আরও কিছুটা বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। ভোটগ্রহণ পর্বের শেষ মুহূর্তেও যেসমস্ত ভোটার ভোটগ্রহণ কেন্দ্রগুলিতে উপস্থিত হয়েছেন তাঁদেরও ভোট এদিন গ্রহণ করা হয়। ফর্ম ১৭এ খতিয়ে ও খুঁটিয়ে দেখার পর ভোটগ্রহণ সম্পর্কিত সঠিক তথ্য আগামীকাল পাওয়া যাবে বলে মনে করা হচ্ছে। 

 
মুখ্য নির্বাচন কমিশনার শ্রী রাজীব কুমার এবং অন্য দুই নির্বাচন কমিশনার শ্রী জ্ঞানেশ কুমার এবং শ্রী সুখবীর সিং সান্ধুর নেতৃত্বে নির্বাচন কমিশন তাঁর সদর দপ্তর থেকে প্রথম পর্যায়ের ভোটগ্রহণ পর্বের বিষয়টি নিরন্তর তত্ত্বাবধান করে। কমিশনের সদর দপ্তর নির্বাচন সদনে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি চালিত একটি কন্ট্রোলরুমও খোলা হয়েছে। এমনকি রাজ্য ও জেলা পর্যায়েও এই ধরনের কন্ট্রোলরুম স্থাপিত হয়েছে। 

 
সুষ্ঠু ও অনুকূল পরিবেশে মোটামুটি ভাবে শান্তিপূর্ণ ভোটদান ও ভোটগ্রহণ পর্বের মাধ্যমে দেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার এক বিশেষ চিত্র এদিন ফুটে উঠতে দেখা যায়। সদাব্যস্ত ও কর্মচঞ্চল নগরজীবন থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত ও দূর-দূরান্তের গ্রাম্য পরিবেশে নানা সাজে সজ্জিত ভোটদাতাদের এক বৈচিত্রপূর্ণ সমাবেশ ছিল এদিন লক্ষ্য করার মতো একটি ঘটনা। বিভিন্ন প্রজন্ম ও পরিবেশ থেকে উঠে আসা ভোটদাতারা এদিন তাঁদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। 

 
নির্বাচন কমিশনের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় দেশের আদিবাসী অধ্যুষিত অঞ্চলগুলিতেও এদিন প্রথম পর্যায়ের ভোটগ্রহণ পর্ব সম্পন্ন হয়। উগ্রপন্থী ও সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপে একদা ক্ষতিগ্রস্ত ছত্তিশগড়ের বিভিন্ন এলাকা ও অঞ্চলের নাগরিকরা তাঁদের নাগরিক অধিকার প্রয়োগ করে একথাই প্রমাণ করলেন যে বুলেটের থেকে ব্যালট আরও বেশি শক্তিশালী। এর প্রতীকী অর্থ হল অশান্তি ও সন্ত্রাসের থেকে শান্তি ও গণতন্ত্রের পথে চলারই তাঁরা পক্ষপাতী। লোকসভা নির্বাচনে এই প্রথমবার বস্তারের ৫৬টি জেলার অধিবাসীরা তাঁদের নিজের নিজের গ্রামেই ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ লাভ করেন। কারণ, ঐ গ্রামগুলিতে একটি করে ভোটগ্রহণ কেন্দ্র খোলা হয়েছিল। বিজাপুরের ১৬৩ নম্বর ভোটগ্রহণ কেন্দ্রে ভোটদাতাদের জন্য প্রাথমিক চিকিৎসার সমস্ত রকম ব্যবস্থা রাখা হয়েছিল। ভোটদাতাদের অনেকেই এর সুযোগ গ্রহণ করেন। অন্যদিকে, মহারাষ্ট্রের গড়চিরোলি - চিমুর-এ স্থানীয় আদিবাসী উপভাষা ব্যবহার করে ভোটগ্রহণ ও ভোটদান সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য সংশ্লিষ্ট ভোটদাতাদের জানিয়ে দেওয়া হয়। বিশেষত হেমলকাসা বুথে এই আদিবাসী ভাষা প্রয়োগ সম্পর্কে ভোটদাতাদের উৎসাহী হয়ে উঠতে দেখা যায়। আবার বিহারের বুদ্ধ গয়ায় বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের হাসি মুখে ভোটগ্রহণের লাইনে অপেক্ষা করার ছবিও ধরা পড়ে।

 
আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের ভোটদাতারাও এদিন ব্যাপক সংখ্যায় নির্দিষ্ট ভোটগ্রহণ কেন্দ্রগুলিতে উপস্থিত থেকে তাঁদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এদিনের ভোটগ্রহণ সম্পর্কে সেখানকার আদিবাসী নাগরিকদের মধ্যেও বিশেষ সাড়া পড়ে যায়। এখানে বিশেষ ভাবে উল্লেখ করার মতো বিষয়টি হল গ্রেট নিকোবরে শম্পেন আদিবাসীরা এই প্রথমবার অর্থাৎ ২০২৪-এর সাধারণ নির্বাচনে ভোটদানের মাধ্যমে এক নতুন ইতিহাস রচনা করলেন। অন্যদিকে মিজোরামে এক অতি বৃদ্ধ দম্পতি একসঙ্গে ভোট দেওয়ার জন্য ভোটগ্রহণ কেন্দ্রে উপস্থিত হন। বাড়িতে থেকে ভোটদানের সুযোগ থাকা সত্ত্বেও অরুণাচল প্রদেশের এক বৃদ্ধা ট্রেকিং করে নির্দিষ্ট ভোটগ্রহণ কেন্দ্রে ভোটদানের জন্য উপস্থিত হন। 

 
সার্বিক ভাবে দেশের প্রায় সর্বত্র অসহনীয় তাপপ্রবাহ সত্ত্বেও ভোটাররা তা উপেক্ষা করে ভোটগ্রহণ কেন্দ্রগুলিতে উপস্থিত হন এবং ধৈর্যের সঙ্গে লাইনে অপেক্ষা করেন। দেশের কোন কোন অঞ্চলে আবার বৃষ্টিপাত সত্বেও নাগরিকরা ভোটদানের জন্য নির্দিষ্ট বুথগুলিতে সশরীরে উপস্থিত থাকেন। প্রতিটি ভোটগ্রহণ কেন্দ্রেই তাঁদের জন্য বিভিন্ন রকম সুযোগ সুবিধার ব্যবস্থা করা হয় নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে। 

 
প্রথম পর্যায়ে ভোটগ্রহণকে কেন্দ্র করে এদিন যে চিত্রটি ফুটে ওঠে তার মধ্যে ভারতীয় পরম্পরা ও সংস্কৃতির বিচিত্র ও বর্ণময় দিকটি সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। কারণ, ভোটদাতাদের পোষাক ছিল বিভিন্ন রঙের ও বিভিন্ন প্রথাগত বয়ন শিল্পের। 

 

 

এবারের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ৭টি ভিন্ন ভিন্ন পর্যায়ে। এর মধ্যে দেশের ২১টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ১০২টি সংসদীয় নির্বাচন কেন্দ্রের প্রথম পর্যায়ের ভোটগ্রহণ পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে আবার উত্তরাখন্ড, অরুণাচলপ্রদেশ, সিকিম, মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, মিজোরাম ও তামিলনাড়ু এবং কেন্দ্রশাসিত পুদুচেরি, আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ এবং লাক্ষ্মাদ্বীপে ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া এদিন সম্পূর্ণ হল। পরবর্তী পর্যায়গুলিতেও ভোটগ্রহণ পর্ব যাতে সুষ্ঠু, স্বচ্ছ ও অন্তর্ভুক্তিমূলক হয়ে উঠতে পারে তা নিশ্চিত করতে যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণের ক্ষেত্রে কোন ত্রুটি রাখছে না নির্বাচন কমিশন।

 

সন্ধে ৭টা পর্যন্ত পাওয়া তথ্য অনুযায়ী

ভোটের হার

নং

রাজ্য

সবশেষ প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী ভোটদানের হার (শতাংশের হিসাবে)

আন্দামান নিকোবর

৫৬.৮৭

অরুণাচলপ্রদেশ

৬৫.৪৬

আসাম

৭১.৩৮

বিহার

৪৭.৪৯

ছত্তিশগড়

৬৩.৪১

জম্মু ও কাশ্মীর

৬৫.০৮

লাক্ষ্মাদ্বীপ

৫৯.০২

মধ্যপ্রদেশ

৬৩.৩৩

মহারাষ্ট্র

৫৫.২৯

১০

মণিপুর

৬৮.৬২

১১

মেঘালয়

৭০.২৬

১২

মিজোরাম

৫৪.১৮

১৩

নাগাল্যান্ড

৫৬.৭৭

১৪

পুদুচেরি

৭৩.২৫

১৫

রাজস্থান

৫০.৯৫

১৬

সিকিম

৬৮.০৬

১৭

তামিলনাড়ু

৬২.১৯

১৮

ত্রিপুরা

৭৯.৯০

১৯

উত্তরপ্রদেশ

৫৭.৬১

২০

উত্তরাখন্ড

৫৩.৬৪

২১

পশ্চিমবঙ্গ

৭৭.৫৭

 

PG/SKD/AS/



(Release ID: 2018365) Visitor Counter : 95