আবাসনএবংশহরাঞ্চলেরদারিদ্র্যদূরীকরণমন্ত্রক

পরিচ্ছন্ন ভারতের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর এক তারিখ এক ঘণ্টা একসঙ্গে-র আহ্বান বিশ্বের বৃহত্তম স্বেচ্ছাশ্রম প্রয়াস হতে চলেছে: হরদীপ সিং পুরী

দেশের গ্রামীণ ও শহরাঞ্চল মিলিয়ে ৬ লক্ষ ৪০ হাজারেরও বেশি এলাকা শ্রমদানের জন্য চিহ্নিত করা হয়েছে: হরদীপ সিং পুরী

Posted On: 29 SEP 2023 2:01PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি,  ২৯  সেপ্টেম্বর, ২০২৩

 

“এক তারিখ এক ঘণ্টা একসঙ্গে” প্রধানমন্ত্রীর এই আহ্বান সুনির্দিষ্টভাবে পরিচ্ছন্নতার সঙ্গে সম্পর্কিত- এটি হল স্বচ্ছতার লক্ষ্যে শ্রমদান। এটি শপথ গ্রহণ, দৌড়, রঙ্গোলি প্রতিযোগিতা, দেওয়াল চিত্র অঙ্কন বা পথনাটিকা নয়। এই শ্রমদান সারা দেশে পরিচ্ছন্নতা অভিযানের জন্য”-বললেন কেন্দ্রীয় আবাসন ও নগরোন্নয়ন এবং পেট্রোলিয়াম ও প্রাকৃতিক গ্যাস মন্ত্রী শ্রী হরদীপ সিং পুরী। মন কি বাত-এর ১০৫তম পর্বে প্রধানমন্ত্রী, বাপুর জন্মজয়ন্তীর প্রাক্কালে আগামী ১ অক্টোবর সকাল ১০টায় এক ঘণ্টার জন্য নাগরিকদের স্বেচ্ছা শ্রমদানের আহ্বান জানিয়েছেন। এটাই হবে বাপুর প্রতি নাগরিকদের সমবেত “স্বচ্ছাঞ্জলী”। সর্বস্তরের নাগরিককে এই মেগা পরিচ্ছন্নতা অভিযানে যোগ দিয়ে বাজার, রেললাইন, জলাশয়, পর্যটন স্থল, উপাসনা স্থলের মতো প্রকাশ্য জায়গাগুলিতে পরিচ্ছন্নতা সংক্রান্ত কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করার আবেদন জানানো হয়েছে।

“স্বচ্ছতা হি সেবা” কর্মসূচি প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপচারিতায় শ্রী  পুরী জানান, দেশের গ্রামীণ ও শহরাঞ্চল মিলিয়ে ৬ লক্ষ ৪০ হাজারেরও বেশি এলাকাকে শ্রমদানের জন্য চিহ্নিত করা হয়েছে। এর আওতায় আবর্জনাপূর্ণ স্থান, রেললাইন ও স্টেশন, বিমান বন্দর ও সংলগ্ন এলাকা, জাতীয় ও রাজ্য মহাসড়কের বিভিন্ন অংশ, জলাশয়,বাজার- হাট, বস্তি এলাকা, আন্ডার ব্রিজ, বাজার এলাকা, অলিগলি, উপাসনা স্থল, পর্যটন স্থল, বাসস্ট্যান্ড/টোল প্লাজা, চিড়িয়াখানা ও বন্য প্রাণীদের আবাস স্থল, গোশালা, পাহাড়, সমুদ্র সৈকত, বন্দর, আবাসিক এলাকা, অঙ্গনওয়াড়ি, স্কুল/কলেজ- সবই রয়েছে। 

এই অভিযানের জন্য পুরসভা, গ্রাম পঞ্চায়েত এবং বিভিন্ন মন্ত্রক স্বচ্ছতা হি সেবা- নাগরিক পোর্টালে https://swachhatahiseva.com/ লিঙ্কটি যুক্ত করেছে। বিশেষভাবে তৈরি এই তথ্যপ্রযুক্তি প্ল্যাটফর্মে নাগরিকরা তাঁদের নিকটবর্তী এলাকার স্বচ্ছতা সংক্রান্ত কর্মকাণ্ডের ছবি দেখতে পাবেন। তাঁরা নিজেরাও এখানে যোগদান করতে পারেন। শ্রমদানের ছবি তুলে তাঁরা এই পোর্টালে তা আপলোড করতে পারবেন। নাগরিক ও প্রভাবশালীদের এই আন্দোলনে যোগ দিয়ে স্বচ্ছতা দূত হিসেবে নেতৃত্বদানের আমন্ত্রণ জানিয়ে একটি পৃথক বিভাগও এই পোর্টালে খোলা হয়েছে। 

মন্ত্রী জানান, বিপুল সংখ্যক রেসিডেন্ট ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন শ্রমদানের কাজে এগিয়ে এসেছে। তারা প্রায় ১ লক্ষ আবাসিক এলাকাকে শ্রমদানের জন্য চিহ্নিত করেছে। গ্রামীণ গোষ্ঠীগুলি দেশজুড়ে প্রায় ৩৫ হাজার অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে শ্রমদান কর্মসূচি পালন করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। অসরকারি সংস্থা, বাজার সমিতি, স্বনির্ভর গোষ্ঠী, অন্যান্য গোষ্ঠী, ব্যবসায়িক সংগঠন, বেসরকারি
 ক্ষেত্র সম্মিলিতভাবে ২২ হাজার বাজার এলাকা, ১০ হাজার জলাশয়, প্রায় ৭ হাজার বাসস্ট্যান্ড/টোল প্লাজা, প্রায় ১ হাজারটি গোশালা, ৩০০র কাছাকাছি চিড়িয়াখানা ও বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল এবং অন্যান্য স্থানে স্বচ্ছতা অভিযান চালাবার প্রস্তুতি নিচ্ছে। 

মন্ত্রী বলেন, এই প্রথম সেনাবাহিনী, নৌসেনা ও বায়ুসেনা অসামরিক ব্যক্তিদের সঙ্গে একযোগে পরিচ্ছন্নতার কাজ চালাবে। আবর্জনাপূর্ণ স্থান, রেললাইন, ঐতিহ্যশালী ভবন, কুয়ো, দুর্গ প্রভৃতি পরিষ্কার করা হবে। বাবা রামদেবের পতঞ্জলি যোগপীঠ ও বিভিন্ন স্থানীয় সম্প্রদায় জাতীয় মহাসড়কের বিশাল এলাকা জুড়ে এই অভিযান চালাবে। আফরোজ শাহ ও সুদর্শন পট্টনায়েকের নেতৃত্বে বিভিন্ন গোষ্ঠী উপকূল এলাকায় পরিচ্ছন্নতার কাজ করবে। সুলভ ইন্টারন্যাশনাল গণ শৌচালয়গুলি পরিষ্কার করার দায়িত্ব নিয়েছে। 

বিভিন্ন সংগঠন সংগ্রহালয়, স্মারক সৌধ ও দুর্গগুলিতে পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালাবে। স্কুলগুলিতে শ্রমদানের ইচ্ছাপ্রকাশ করেছে মাতা অমৃতানন্দময়ীর আম্মা ফাউন্ডেশন। উত্তরাখণ্ডে হিমালয়ের পাদদেশে স্বচ্ছতা অভিযান চালাবে প্রদীপ সাংওয়ানের হিলিং হিমালয়াজ। দেশের মন্দির এলাকাগুলিতে পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালাতে এগিয়ে এসেছে ইস্কন। মঠ সংলগ্ন এলাকায় শ্রমদান করবে রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশন। ফিকি, সিআইআই, ক্রেডাই-এর মতো বণিক সংগঠন এবং শ্রী সত্যসাই লোকসেবা, লায়ন্স ক্লাব, রোটারি ক্লাব, ইউনিসেফ, আগা খান ফাউন্ডেশনের মতো স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলিও এই অভিযানে যোগ দেবে। 

মন্ত্রী জানান, রাজ্যগুলির মধ্যে উত্তরপ্রদেশে ১ লক্ষ, মহারাষ্ট্রে ৬২ হাজারের বেশি, মধ্যপ্রদেশে ৫৭ হাজার, অন্ধ্রপ্রদেশে ৪০ হাজার, গুজরাটে ৩৫ হাজার এলাকা শ্রমদানের জন্য চিন্থিত করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা, সাংসদরা, বহু মুখ্যমন্ত্রী, মহানাগরিক, সরপঞ্চ ও রাজনৈতিক নেতারা নাগরিক নেতৃত্বাধীন এই পরিচ্ছন্নতা অভিযানে যোগ দেবেন।

দিল্লিতে এনডিএমসি, অসরকারি সংগঠন শ্রী শ্রী আর্ট অফ লিভিং এবং চিন্তন বস্তি ও অন্যান্য এলাকায় এই অভিযান চালাবে। দিল্লি পুর এলাকায় এজন্য ৫০০-র বেশি এলাকা চিহ্নিত করা হয়েছে। 

ন বছর আগে ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী স্বচ্ছতার লক্ষ্যে যে আহ্বান জানিয়েছিলেন তার উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সেই আহ্বানে সর্বস্তরের নাগরিক বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার সঙ্গে যোগ দিয়েছিলেন। এর সুবাদে স্বচ্ছতা আমাদের জাতীয় আচরণের অঙ্গ হয়ে উঠে। ঘরে ঘরে স্বচ্ছ ভারত মিশনের নাম ছড়িয়ে পড়ে।

প্রধানমন্ত্রীর এবারের “এক তারিখ এক ঘণ্টা একসঙ্গে” আহ্বান, পরিচ্ছন্ন ভারতের লক্ষ্যে বিশ্বের বৃহত্তম স্বেচ্ছাশ্রম প্রয়াস হয়ে উঠতে পারে বলে হরদীপ সিং পুরী পরিশেষে মন্তব্য করেন। 

অন্যান্য বছরের মতো এবারও আবাসন ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রক এবং পানীয় জল ও নিকাশী দপ্তর অন্যান্য কেন্দ্রীয় মন্ত্রকের সহযোগিতায় স্বচ্ছতা পক্ষ- স্বচ্ছতা হি সেবা পালন করছে। চলতি মাসের ১৫ তারিখ এই কর্মসূচির সূচনা হয়েছে। 

এবারের স্বচ্ছতা পক্ষের মূল ভাবনা আবর্জনামুক্ত ভারত। এই লক্ষ্যে বিভিন্ন গ্রাম, শহর, স্কুল, অঙ্গনওয়াড়ি, স্বাস্থ্যকেন্দ্র, রেলস্টেশন, বিমান বন্দর জুড়ে ব্যাপক প্রচারাভিযান চালানো হচ্ছে। এই ১৫ দিনের মধ্যে ৩১ কোটিরও বেশি মানুষ স্বচ্ছতা দৌড়, পরিচ্ছন্নতা অভিযান ও সচেতনতামূলক অনুষ্ঠানের মতো কার্যক্রমে যোগ দিয়েছেন। 

স্বচ্ছতা পদযাত্রা, স্বচ্ছতা শপথ, পথনাটিকা, রঙ্গোলি প্রতিযোগিতা, দেওয়াল চিত্র অঙ্কন, সৈকত পরিচ্ছন্নতা অভিযান, পর্যটন স্থল পরিচ্ছন্নতা অভিযান প্রভৃতির আয়োজন করা হয়েছে। প্রায় ৫ হাজার জনবহুল স্থান, ১ হাজার আবর্জনাপূর্ণ স্থান, ৫০০-র বেশি সমুদ্র সৈকত, ৬০০ জলাশয় এবং ৩০০-র বেশি পর্যটন স্থল আবর্জনামু্ক্ত করে তোলা গেছে। 

PG/SSS/SD/NS



(Release ID: 1962184) Visitor Counter : 58