আবাসনএবংশহরাঞ্চলেরদারিদ্র্যদূরীকরণমন্ত্রক

প্রধানমন্ত্রী বাজেট পরবর্তী ঘোষণা নিয়ে 'কোন নাগরিককে পিছনে না ফেলে' শীর্ষক ওয়েবিনারে বক্তব্য রেখেছেন


প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার মত বিভিন্ন প্রকল্পে লক্ষ্য অর্জনের জন্য একটি স্পষ্ট পথনির্দেশিকা প্রস্তুত করেছে সাধারণ বাজেট ২০২২ : প্রধানমন্ত্রী

ব্রেকআউট সেশনে গ্রামীণ ও শহুরে আবাসন ক্ষেত্রের বিশেষজ্ঞরা 'অমৃতকালে সবার জন্য আবাসনের বাস্তবায়ন' বিষয়ে আলোচনা করেন

Posted On: 23 FEB 2022 3:59PM by PIB Kolkata

নতুন দিল্লি,  ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২২

 

প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী আজ সাধারণ বাজেট ২০২২-২৩-এ ঘোষিত উদ্যোগগুলির কার্যকর বাস্তবায়নের উপায় নিয়ে 'কোন নাগরিককে পিছনে না ফেলে' শীর্ষক ওয়েবিনারে বক্তব্য রেখেছেন। এটি এই সিরিজের দ্বিতীয় ওয়েবিনার। সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা, রাজ্য সরকারগুলির প্রতিনিধিরা এবং অন্যান্য পক্ষের প্রতিনিধি ওয়েবিনারে যোগ দেন।

সূচনাতেই প্রধানমন্ত্রী 'সবকা সাথ, সবকা বিকাশ, সবকা বিশ্বাস ও সবকা প্রয়াস' মন্ত্রের উল্লেখ করে বলেন, এই মন্ত্রই সরকারের যাবতীয় নীতির অনুপ্রেরণা। প্রধানমন্ত্রী বলেন, "স্বাধীনতার অমৃতকালে আমাদের নেওয়া অঙ্গীকার সবার সম্মিলিত প্রয়াসেই বাস্তবায়িত হতে পারে এবং প্রত্যেকে সেই প্রয়াস তখনই করতে পারবেন, যখন প্রতিটি ব্যক্তি, বিভাগ এবং অঞ্চল, উন্নয়নের পূর্ণ সুবিধা ভোগ করবেন"। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০২২ সালের সাধারণ বাজেট প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা, গ্রামীণ সড়ক যোজনা, জল জীবন মিশনের মত বিভিন্ন প্রকল্পের লক্ষ্য অর্জনের সুস্পষ্ট পথনির্দেশিকা প্রস্তুত করেছে। ২০২২ সালের সাধারণ বাজেটে প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় ৪৮ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে এবং ৮০ লক্ষ বাড়ি তৈরির লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রী জানান। 

ওয়েবিনারে প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা (শহর)-র আওতায় দেশের ৬টি শহরে নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে সুলভ আবাস গড়ে তোলার আলোকবর্তিতা প্রকল্পগুলি সম্পর্কে বলেন প্রধানমন্ত্রী। এই নির্মাণ প্রযুক্তি দেশের বিভিন্ন শহুরে ও গ্রামীণ এলাকায় সুলভ আবাসন তৈরির কাজে ব্যবহারের ওপর জোর দেন তিনি। 

ওয়েবিনারে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সম্পূর্ণ বয়ান পেতে এই লিঙ্কে ক্লিক করুন - https://pib.gov.in/PressReleasePage.aspx?PRID=1800489

প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনী বক্তব্যের পর বিভিন্ন ব্রেকআউট সেশনের আয়োজন করা হয়। 'সকলের জন্য আবাসন' শীর্ষক সেশনে আলোচনার বিষয় ছিল  'সকলের জন্য আবাসনের বাস্তবায়ন'। এর আওতায় যে বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা হয় তা হল - ১. সর্বজনীন সুলভ আবাসনের কাজে গতিবৃদ্ধি, ২. প্রাপকের হাতে সুলভ আবাসন দ্রুত তুলে দিতে অন্যান্য প্রকল্প, নগর পরিকল্পনা ও পরিকাঠামো কৌশলের সঙ্গে এর সংযুক্তিকরণ, ৩. সুলভ আবাসন ক্ষেত্রে বেসরকারি অংশগ্রহণের সুযোগ বাড়ানো। 

অন্ধ্রপ্রদেশের নগরোন্নয়ন ও আবাসন দপ্তরের বিশেষ মুখ্যসচিব শ্রী অজয় জৈন মানুষের জীবনে আবাসনের গুরুত্ব এবং ব্যক্তির আত্মমর্যাদার ক্ষেত্রে এর প্রভাব ব্যাখ্যা করেন। সুপরিকল্পিত উচ্চমানের আবাসন গড়ে তুলতে বিভিন্ন প্রকল্পের সংযুক্তিকরণের ওপর জোর দেন তিনি। বাজেটে ঘোষিত ব্যবস্থাগুলি এক শক্তিশালী আত্মনির্ভর ভারত গড়ে তুলবে বলে মন্তব্য করেন শ্রী জৈন। 

কনফেডারেশন অফ রিয়েল এস্টেট ডেভেলপার অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়া (সিআরইডিএআই)-এর পক্ষে শ্রী হর্ষবর্ধন পাতোদিয়া সুলভ আবাসন নির্মাণের ক্ষেত্রে বেসরকারি অংশগ্রহণ আরও বাড়ানোর কথা বলেন। 

সেন্টার ফর পলিসি রিসার্চের সিনিয়র ফেলো শ্রী শুভাগত দাশগুপ্ত সর্বজনীন সুলভ আবাসন নিয়ে তার ভাবনা-চিন্তা প্রকাশ করেন। 

ওয়েবিনারের সমাপ্তি ভাষণে আবাসন ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রকের সচিব শ্রী মনোজ যোশী বলেন, একটি বাড়ি তৈরি করতে ৩১৪ দিন কাজ করতে হয়। গ্রামাঞ্চলে আবাসন নির্মাণ এখন কর্মসংস্থানের বৃহত্তম উৎসগুলির মধ্যে অন্যতম। বিভিন্ন বক্তা শ্রমিকদের দক্ষতা বৃদ্ধি, গ্রামীণ এলাকায় পুনর্নবিকরণযোগ্য শক্তির আরও বেশি করে ব্যবহার সহ যে সব প্রস্তাব দিয়েছেন তার প্রশংসা করেন তিনি। এইসব প্রস্তাব ও সুপারিশগুলিকে গুরুত্ব দিয়ে বিচার করে সেগুলি প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার কাজের উন্নতিতে ব্যবহার করা হবে বলে জানান শ্রী যোশী। 

 

CG/SD/AS/



(Release ID: 1800752) Visitor Counter : 229