বৈদ্যুতিন ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রক

রাষ্ট্রপতি শ্রী রামনাথ কোভিন্দ ৩০শে ডিসেম্বর ডিজিট্যাল ইন্ডিয়া পুরষ্কার ২০২০ প্রদান করবেন

Posted On: 29 DEC 2020 6:15PM by PIB Kolkata

নতুনদিল্লি, ২৯শে ডিসেম্বর, ২০২০   

রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ ২০২০র ডিজিটাল ইন্ডিয়া পুরস্কার৩০ শে ডিসেম্বর বেলা এগারোটার সময় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রদান করবেন। ডিজিটাল ইন্ডিয়া ধারণার সঙ্গে সাযুজ্য রেখে প্রথমবার পুরো প্রক্রিয়াটি অনলাইনের মাধ্যমে করা হলো । অর্থাৎ এই পুরস্কারের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া,  সেগুলো বিবেচনা করা এবং পুরস্কার প্রদান সবকিছুই অনলাইনের মাধ্যমে ভার্চুয়াল মডেল হবে। কেন্দ্রীয় বৈদ্যুতিন ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ ন্যাশনাল ইনফরমেটিক্স সেন্টার  দ্বি-বার্ষিক এই পুরস্কার প্রদান করবে। বৈদ্যুতিন পদ্ধতিতে প্রশাসনিক কাজে উদ্ভাবনকে উৎসাহ দিতে এবং বিভিন্ন সরকারি পরিষেবা ডিজিটাল প্রক্রিয়ায় মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার স্বীকৃতি হিসেবে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়ে থাকে ।   

কেন্দ্রীয় আইন ও বিচার, যোগাযোগ এবং বৈদ্যুতিক ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী শ্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ, দপ্তরের সচিব শ্রী অজয় সাহনয় এবং অন্যান্য বিশিষ্টজনেরা অনলাইনের মাধ্যমে এই পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন। নতুন দিল্লির বিজ্ঞান ভবনের প্লেনারি হলে মূল অনুষ্ঠানটি হবে,  বিশিষ্টজনেরা কলকাতা , ভূপাল এবং চেন্নাই থেকে এই অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন । পুরো অনুষ্ঠানটি দূরদর্শন এবং এনআইসি-র  সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে সরাসরি সম্প্রচারিত হবে।   

এন আইসি-র ওয়েবকাস্ট- http://webcast.gov.in/digitalindiaawards

ইউ টিউব- https://www.youtube.com/nationalinformaticscentre

ট্যুইটার- https://twitter.com/NICMeity

ফেসবুক -  https://www.facebook.com/NICIndia

  

২০০৯ সালে প্রথমবার এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছিল। সেই সময়ে এর নাম ছিল ওয়েব রত্ন পুরস্কার।  ২০১৪ সালের পর ২০১৬ সাল থেকে এই পুরস্কারের নামকরণ করা হয়েছে ডিজিটাল ইন্ডিয়া পুরস্কার। ছটি বিভাগে  ষষ্ঠ ডিজিটাল ইন্ডিয়া পুরস্কার দেওয়া হবে।

 যে ৬ টি বিভাগে এই পুরস্কার দেওয়া হবে সেগুলি হলঃ-

 ১।  মহামারীর সময় উদ্ভাবনঃ-  সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগকে ডিজিটাল পদ্ধতির মাধ্যমে নাগরিকদের কাছে কোভিড মহামারীর সময়ে পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।  যোগাযোগ, স্বাস্থ্য , শিক্ষা , পর্যটন ইত্যাদি বিভিন্ন ক্ষেত্রে নজরকাড়া উদ্ভাবনকে এই বিভাগে স্বীকৃতি দেওয়া হবে ।

২. শ্রেষ্ঠ ডিজিটাল গভর্নেন্স -   কেন্দ্রীয় সরকারের যে দপ্তর বা মন্ত্রক ডিজিটাল পদ্ধতিতে মানুষের কাছে ডিজিটাল পদ্ধতিতে সবথেকে ভালোভাবে তার উপস্থিতি বজায় রাখবে এবং বৈদ্যুতিন প্রক্রিয়ায় বিভিন্ন কাজকর্ম করবে তাকে পুরস্কার দেওয়া হবে ।   

৩. রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্যে শ্রেষ্ঠ ডিজিটাল প্রশাসন-  যেসব রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল স্বাস্থ্য, শিক্ষা , অর্থ,   সামাজিক ন্যায় এবং পরিবেশের মতন বিষয়ে ডিজিটাল ক্ষেত্রে নাগরিকদের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করবে তাদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ দপ্তর বা মন্ত্রককে এই পুরস্কার দেওয়া হবে ।

৪.জেলা স্তরে শ্রেষ্ঠ ডিজিটাল প্রশাসনঃ-  সর্বাঙ্গীনভাবে বিভিন্ন তথ্য নাগরিকদের কাছে আঞ্চলিক ভাষায় যে জেলা সবথেকে ভালো ভাবে পৌঁছে দেবে তার স্বীকৃতি হিসেবে এই পুরস্কার দেওয়া হবে ।

৫. ওপেন ডাটা চ্যাম্পিয়নঃ- সঠিক সময়ে নিয়মিতভাবে ওয়েব পরিষেবা বা এপি আই-এর মাধ্যমে সরকারি তথ্য প্রদানের জন্য  শ্রেষ্ঠ মন্ত্রকে এখানে বাছাই করা হবে ।

৬.  নজরকাড়া পণ্যঃ- এই পুরস্কারের মাধ্যমে   বিভিন্ন সরকারি দপ্তর বা সংস্থা সফলভাবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে তাদের উদ্ভাবিত পণ্যের স্বীকৃতি পাবে ।  

এর পাশাপাশি জাতীয় স্তরে পাবলিক ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের বাস্তবায়ন এবং পরিকল্পনার জন্য জুরি অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হবে। 

অনলাইনের মাধ্যমে এই পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন গ্রহণ করা শুরু হয়েছিল ২৩ শে অক্টোবর থেকে । একমাস ধরে মনোনয়ন জমা দেওয়ার কাজ চলেছিল।  মোট ৪০২টি মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়েছিল।  আইআইটি দিল্লির তরফ থেকে মনোনয়নপত্র বাছাই করে তালিকা সংক্ষেপিত করা হয়। সংক্ষিপ্ত তালিকায় মনোনীত সংস্থাগুলি অনলাইনের মাধ্যমে  বিচারকমণ্ডলীর সামনে তাদের বক্তব্য পেশ করেন । এরপর প্রত্যেক বিভাগের থেকে পুরস্কার প্রাপককে বাছাই করা হয় ।

***

 

 

CG/CB



(Release ID: 1684520) Visitor Counter : 10