নতুনওপুনর্নবীকরণযোগ্যজ্বালানিমন্ত্রক

পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি মন্ত্রক পিএম-কুসুম কর্মসূচির কম্পোন্যান্ট-সি এর আওতায় ফীডার লেভেল সোলারাইজেশনের রূপায়ণ সংক্রান্ত নীতি-নির্দেশিকা জারি করেছে

Posted On: 04 DEC 2020 2:48PM by PIB Kolkata
নয়াদিল্লি, ০৪ ডিসেম্বর, ২০২০
 
কেন্দ্রীয় নবীন ও পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি মন্ত্রক রাজ্য সরকারগুলির সঙ্গে আলাপ-আলোচনার পর পিএম-কুসুম কর্মসূচি কম্পোন্যান্ট-সি এর আওতায় ফীডার লেভেল সোলারাইজেশনের রূপায়ণের জন্য নীতি-নির্দেশিকা জারি করেছে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত কমিটি ২০১৯-এর ১৯শে ফেব্রুয়ারি এক বৈঠকে পিএম-কুসুম কর্মসূচি রূপায়ণে অনুমতি দেয়। এই কর্মসূচির তিনটি কম্পোন্যান্ট বা অংশ রয়েছে। প্রথম অংশে বিকেন্দ্রীকৃত গ্রাউন মাউন্ডেড গ্রিড সংযুক্ত পুনর্নবীকরণযোগ্য বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপনের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। দ্বিতীয় অংশে স্ট্যান্ড অ্যালোন সৌরবিদ্যুৎ-চালিত কৃষি সেচ পাম্প স্থাপনের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত হয়েছে এবং কর্মসূচির তৃতীয় অংশে গ্রিড সংযুক্ত কৃষি সেচ পাম্পগুলির সৌরবিদ্যুতের মাধ্যমে পরিচালনার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।
 
পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি মন্ত্রক ২০১৯ – এর ৮ই নভেম্বর পিএম-কুসুম কর্মসূচির কম্পোন্যান্ট-সি বা তৃতীয় অংশ রূপায়ণের জন্য বিস্তারিত নীতি-নির্দেশিকা জারি করে। পিএম-কুসুম কর্মসূচির শর্তাবলী অনুযায়ী গ্রিড সংযুক্ত কৃষি সেচ পাম্পগুলিকে সৌরবিদ্যুৎ চালিত করার সংস্থান রয়েছে। এই কাজে কেন্দ্র ও রাজ্যস্তরীয় ভর্তুকির পরিমাণ ৩০ শতাংশ করে। অবশিষ্ট ৪০ শতাংশ খরচ সংশ্লিষ্ট কৃষককেই মেটাতে হয়। কৃষি সেচ পাম্পগুলির কিলোওয়াটে ক্ষমতার নিরিখে দুই গুণ বেশি পর্যন্ত সৌরবিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়ে থাকে। সংশ্লিষ্ট রাজ্যে বিদ্যুৎ বন্টনকারী সংস্থাগুলি কৃষি সেচ পাম্পে সরবরাহ করার পর অতিরিক্ত বিদ্যুৎ ক্রয় করতে পারে। পিএম-কুসুম কর্মসূচির তৃতীয় অংশের রূপায়ণ যেহেতু প্রাথমিকভাবে পরীক্ষামূলক ভিত্তিতে রূপায়ণ করা হয়েছিল, তাই চালু কৃষি সেচ পাম্পগুলির পরিবর্তে বিএলডিসি পাম্প বা অন্য যে কোনও অভিনব মডেল ব্যবহারের সুবিধা অনুযায়ী রাজ্যগুলিকে অধিকার দেওয়া হয়েছিল।
 
রাজ্যগুলির সঙ্গে আলাপ-আলোচনার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত হয়েছিল যে, পিএম-কুসুম কর্মসূচির তৃতীয় অংশে ফীডার লেভেল সোলারাইজেশনের বিষয়টিকেও অন্তর্ভুক্ত করা হবে। সেই অনুসারে, ফীডার লেভেল সোলারাইজেশন রূপায়ণের জন্য মন্ত্রকের পক্ষ থেকে এই নীতি-নির্দেশিকাগুলি জারি করা হচ্ছে।
 
পিএম-কুসুম কর্মসূচির কম্পোন্যান্ট-সি বা তৃতীয় অংশের রূপায়ণের উদ্দেশ্যই হ’ল কৃষকদের দিনের বেলাতেও পর্যাপ্ত পরিমাণে কৃষি কাজের জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহ করা। অতিরিক্ত উৎপাদিত সৌরবিদ্যুৎ ক্রয় করার মাধ্যমে কৃষকদের আয় বাড়ানো এবং জল সঞ্চয় ও সংরক্ষণে উৎসাহিত করা। ফীডার লেভেল সোলারাইজেশনের ক্ষেত্রে কৃষকরা দিনের বেলায় পর্যাপ্ত পরিমাণে কৃষি কাজের জন্য সৌরবিদ্যুৎ পাবেন। কিন্তু, ব্যবহারের পর সঞ্চিত অতিরিক্ত সৌরবিদ্যুৎ বিক্রয়ের কোনও সংস্থান নেই। এই বিষয়টিকে বিবেচনায় রেখে কৃষকদেরকে জলসম্পদের সঞ্চয় ও সংরক্ষণে উৎসাহিত করার মাধ্যমে তাঁদের আয় বাড়ানো যেতে পারে। বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থাগুলি একটি এলাকার বিভিন্ন বিষয়ের ওপর নির্ভর করে কৃষকদের কৃষি কাজের জন্য চাহিদা মতো বিদ্যুৎ সরবরাহের বিষয়টি নিরূপণ করে দেখবে। এর প্রেক্ষিতে বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থাগুলি কৃষকদেরকে যথাসম্ভব কম পরিমাণ বিদ্যুৎ খরচে উৎসাহিত করবে। এইভাবে কম পরিমাণ বিদ্যুৎ খরচ হলে পক্ষান্তরে তা বিদ্যুৎ সাশ্রয় হবে এবং যত পরিমাণ বিদ্যুৎ কৃষকরা সাশ্রয় করতে পারবেন সেই অনুসারে তাঁদের প্রাপ্য মেটানো হবে। সংশ্লিষ্ট বিদ্যুৎ বন্টনকারী সংস্থাগুলি সাশ্রয় হওয়া বিদ্যুতের পরিমাণের ওপর ভিত্তি করে কৃষককে প্রাপ্য মাশুল মেটাবে। বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থাগুলির এই প্রয়াস ভূ-গর্ভস্থ জলস্তর সংরক্ষণের ক্ষেত্রে সুদূরপ্রসারী ভূমিকা নেবে।
 
***
 
 
CG/BD/SB


(Release ID: 1678432) Visitor Counter : 174