নীতিআয়োগ

বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন ও ওয়াদওয়ানি ফাউন্ডেশনের সঙ্গে যৌথভাবে ‘এআইএম-আইসিআরইএসটি’ এর সূচনা করেছে অটল ইনোভেশন মিশন

Posted On: 30 JUL 2020 9:04PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লী, ৩১ জুলাই, ২০২০

 

 


নীতি আয়োগের অটল ইনোভেশন মিশন (এআইএম) দেশজুড়ে ইনকিউবেটর ইকোসিস্টেমের সামগ্রিক উন্নয়নের প্রচার ও সক্ষমতা বৃদ্ধির একটি বড় উদ্যোগ নিয়েছে। এরই অঙ্গ হিসেবে অটল ইনোভেশন মিশন বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন ও ওয়াদওয়ানি ফাউন্ডেশনের সঙ্গে যৌথভাবে ‘এআইএম-আইসিআরইএসটি’ এর সূচনা করেছে। এই ‘এআইএম-আইসিআরইএসটি’ হল ইনকিউবেটের ইকোসিস্টেমের সক্ষমতা বৃদ্ধির এক কর্মসূচি। স্টার্ট আপ সংস্থাগুলির দক্ষতা বৃদ্ধির ওপর লক্ষ্য রেখে ভারতে এই প্রথম এধরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।


    বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন ও ওয়াদওয়ানি ফাউন্ডেশন উদ্ভাবনী এবং উদ্যোগ ক্ষেত্রে যথেষ্টই দক্ষ। ‘এআইএম- আইসিআরইএটি’ কর্মসূচির মাধ্যমে ইনকিউবেশন ইকো সিস্টেমগুলির সক্ষমতা বৃদ্ধি  করা হবে। এমনকি দেশজুড়ে অটল ইনোভেশন মিশন পরিচালিত ও প্রতিষ্ঠিত ইনকিউবেটরদের দক্ষতা বৃদ্ধিতেও কাজে লাগবে। অটল ইনোভেশন মিশনের আওতায় ইনকিউবেটরগুলির কর্মক্ষমতা উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে। পাশাপাশি বর্তমান মহামারীর জেরে  সংকটময় পরিস্থিতিতে স্টার্ট-আপ সংস্থাগুলির দক্ষতা বৃদ্ধিতেও বিশেষভাবে সাহায্য করবে এই কর্মসূচি।


    নীতি আয়োগের মুখ্য কার্যনির্বাহী আধিকারিক অমিতাভ কান্ত জানিয়েছেন ভারতীয় স্টার্ট-আপ ইকো সিস্টেমগুলি খুব অল্প সময়েই বিশ্বমানে রূপান্তরিত হবে। এক্ষেত্রে নীতি আয়োগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে বলেও তিনি জানান। দেশের অভ্যন্তরীণ সমস্যা ও প্রতিবন্ধকতা দূর করে বিশ্বের বাজারগুলিতে আধিপত্ত বিস্তারের ক্ষেত্রে ভারতের হাতে যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। শ্রী কান্ত বলেন, এই উদ্যোগ গ্রহণের ফলে আগামীদিনে ভারত খুব শীঘ্রই বিশ্বমানের ইনকিউবেটর হাবে পরিণত হবে। অটল ইনোভেশন মিশনের মিশন ডিরেক্টর রমন রমনাথন বলেছেন, দেশের উদ্ভাবনী প্রতিভা অর্জনের জন্য বিশ্বমানের ইনকিউবেটরের প্রয়োজন রয়েছে। এক্ষেত্রে বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন ও ওয়াদওয়ানি ফাউন্ডেশনের সঙ্গে নীতি আয়োগ যে উদ্যোগ নিয়েছে তা প্রশংসনীয় বলেও তিনি জানান। বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনের সহকারী পরিচালক অঞ্জনী বনশাল বলেছেন, ব্যবসায়িক পরিকল্পনা , প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনী, মাতৃত্বকালীন ও শিশুদের স্বাস্থ্য পরিষেবার উন্নতি, প্রান্তিক কৃষকের আয় এবং উৎপাদন বৃদ্ধি, ডিজিটাল আর্থিক পরিষেবার ব্যবহার ও সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি এবং মহিলাদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে বিশেষভাবে সাহায্য করবে এই কর্মসূচি। ওয়াদওয়ানি ফাউন্ডেশনের সভাপতি তথা প্রধান কার্যনির্বাহী অধিকর্তা অজয় কেলা জানিয়েছেন এই কর্মসূচির মাধ্যমে অর্থনৈতিক সংকট কাটিয়ে উঠে কর্মসংস্থান বৃদ্ধির সুযোগ তৈরি হবে।
 

 


CG/SS/NS



(Release ID: 1642637) Visitor Counter : 10