জলশক্তি মন্ত্রক

জল জীবন মিশনঃ দৈনিক এক লক্ষ জলের সংযোগ দেওয়া হচ্ছে

আনলক-১ শুরু হবার পর থেকে ৪৫ লক্ষ বাড়িতে জলের সংযোগ দেওয়া হয়েছে

Posted On: 16 JUL 2020 6:24PM by PIB Kolkata

নতুনদিল্লি, ১৭ই জুলাই, ২০২০

 



জল জীবন মিশন প্রকল্প যাত্রা শুরু করেছিল ২০১৯ এর আগস্টে। গ্রামাঞ্চলে প্রায় ৮৪.৮৩ লক্ষ বাড়িতে সাত মাসে এই জলের সংযোগ পৌঁছে দেওয়া গেছে। আনলক-১ শুরু হবার পর শেষ পাওয়া হিসেবে প্রায় ৪৫ লক্ষ বাড়িতে জলের সংযোগ দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ প্রতিদিন প্রায় ১ লক্ষ বাড়িতে এই সংযোগ পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হচ্ছে। সংযোগের সময় পুরো প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা বজায় রাখতে জলের লাইনের  সংযোগ দেবার সময় বাড়ির গৃহকর্তার আধারের সংখ্যা নেওয়া হচ্ছে।


মন্ত্রকের ওয়েব সাইটে একটি ড্যাশ বোর্ডের মাধ্যমে জেলাস্তর পর্যন্ত এই প্রকল্পের কাজে নজরদারী চালানো হচ্ছে। এপর্যন্ত বিহার, তেলেঙ্গনা, মহারাষ্ট্র ও মধ্যপ্রদেশে কাজের অগ্রগতি বেশ ভালো। ২০২০-২১ সালে জল জীবন মিশনের জন্য ২৩,৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। বর্তমানে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির জন্য ৮,০০০কোটি টাকার বেশী কেন্দ্রীয় তহবিলের টাকা রয়েছে। এছাড়াও পঞ্চদশ অর্থ কমিশনের ৫০% অনুদান অর্থাৎ ৩০,৩৭৫ কোটি টাকা গ্রামীন স্বায়ত্ত্বশাসিত সংস্থাগুলিকে জল সংযোগ ও পয়ঃনিকাশি ব্যবস্থা গড়ে তুলতে দেওয়া হবে। ১৫ই জুলাই এই অর্থের ৫০শতাংশ রাজ্যগুলিকে দেওয়া হয়েছে।
নির্দিষ্ট সময়ের আগে কাজ শেষ করার জন্য বিভিন্ন রাজ্য ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। বিহার, গোয়া, পুডুচ্চেরি ও তেলেঙ্গনা ২০২১ সালে, গুজরাট, হরিয়ানা, হিমাচল প্রদেশ, জম্মু ও কাশ্মীর, মেঘালয়, পাঞ্জাব, লাদাখ, সিকিম, ও উত্তর প্রদেশ ২০২২ সালে, অরুণাচল প্রদেশ, কর্ণাটক, মধ্য প্রদেশ , মণিপুর, মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, ত্রিপুরা, ছত্তিশগড়, ২০২৩ সালে এবং অসম, অন্ধ্র প্রদেশ, ঝাড়খন্ড, কেরালা, মহারাষ্ট্র, ওডিশা, রাজস্থান, তামিলনাডু, উত্তরাখন্ড ও পশ্চিমবঙ্গ ২০২৪ সালে এই প্রকল্পের কাজ শেষ করার পরিকল্পনা নিয়েছে।


গ্রামের সব বাড়িতে যেন পানীয় জলের সংযোগ পৌঁছায়, সেটি নিশ্চিত করতে এই প্রকল্পে বিশেষ জোর দেওয়া হয়েছে। তপশিলী জাতি ও উপজাতি অধ্যুষিত গ্রামে, উচ্চাকাঙ্খী জেলায় এবং খরা প্রবণ ও মরু অঞ্চলের গ্রামগুলিকে এই প্রকল্পে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে।


প্রতিটি গ্রামে পানীয় জলের গুনমানের উপর আঞ্চলিক স্তরে নজরদারী চালানো হবে। এর জন্য পাঁচজন গ্রামবাসীকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। এই কাজে মহিলারা অগ্রাধিকার পাবেন। প্রতি বছর দুবার౼ বর্ষার আগে এবং বর্ষার পরে জল সরবরাহের উৎস স্থলে রাসায়নিক পদ্ধতিতে ১ বার ও ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ হয়েছে কিনা সেই সংক্রান্ত পরীক্ষা ২ বার করা হবে।


আর্থিক সমন্বয়, বাড়ি, রাস্তা, স্বচ্ছ জ্বালানী, বিদ্যুৎ, শৌচাগার সহ গ্রামাঞ্চলে ‘সহজ জীবন যাত্রা’ নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীর স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করার জন্য ঘরে ঘরে জল জীবন মিশনের আওতায় পানীয় জল সরবরাহের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে গ্রামাঞ্চলের মহিলা ও কম বয়সী মেয়েদের দূর দুরান্ত থেকে পানীয় জল নিয়ে আসার সমস্যাও দূর হবে।

 

 


CG/CB



(Release ID: 1639293) Visitor Counter : 6