কৃষিমন্ত্রক

গ্রামীণ ভারত ও কৃষি ক্ষেত্রের বিকাশে দুটি অধ্যাদেশ জারি করলেন রাষ্ট্রপতি

Posted On: 05 JUN 2020 8:48PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ০৫ জুন, ২০২০

 

 


আত্মনির্ভর ভারত অভিযানের অঙ্গ হিসাবে কৃষকদের আয় বাড়াতে কেন্দ্রীয় সরকার কৃষি ক্ষেত্রে সংস্কারের জন্য যে ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেছে, তার প্রেক্ষিতে রাষ্ট্রপতি কৃষি ও সহযোগী ক্ষেত্রে যুক্ত কৃষকদের কল্যাণে গ্রামীণ ভারতের সার্বিক অগ্রগতির জন্য দুটি অধ্যাদেশ জারি করেছেন। এই অধ্যাদেশ দুটি হ’ল –


১) কৃষিজ পণ্যের ব্যবসা ও বাণিজ্য (প্রসার ও সুবিধা) অধ্যাদেশ ২০২০


২) মূল্য নিশ্চয়তা সংক্রান্ত কৃষক সমঝোতা (ক্ষমতায়ন ও সুরক্ষা) এবং কৃষি পরিষেবা অধ্যাদেশ ২০২০


কেন্দ্রীয় সরকার কৃষিজ পণ্যের বিপণনের জন্য সুসংবদ্ধ ও সুচিন্তিত পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এর উদ্দেশ্য হ’ল –কৃষকদের আয় বাড়ানো। কৃষিজ পণ্যের বিপণনে পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধার ক্ষেত্রে বাধা-বিপত্তিগুলিকে স্বীকার করে নিয়ে সরকার ২০১৭ সালে আদর্শ কৃষিজ পণ্য ও গৃহ পালিত পশু বিপণন সংক্রান্ত খসড়া আইন নিয়ে আসে। সেই সঙ্গে, ২০১৮ সালে রাজ্যগুলির সুবিধার জন্য একই ধরনের একটি আইন কার্যকর করার কথা বলা হয়।


কোভিড-১৯ সঙ্কটের সময় যখন সমগ্র কৃষি ও সহযোগী ক্ষেত্র বিভিন্ন বিপত্তির সম্মুখীন হয়েছে, তখন সংশ্লিষ্ট এই দুটি ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকারের সংস্কারমূলক গতিকে ত্বরান্বিত করার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। এই প্রেক্ষিতে কৃষিজ পণ্যের আন্তঃরাজ্য ও রাজ্যের বাইরে বিপণনের উপযুক্ত পরিবেশ গড়ে তোলার জন্য জাতীয় স্তরে একটি আইন কার্যকর করার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। সরকার এ বিষয়টিও স্বীকার করে নেয় যে, উৎপাদিত পণ্য ভালো দামে নিজেদের পছন্দ মতো জায়গায় বিক্রির অধিকার কৃষকদের রয়েছে। এই বিষয়গুলিকে বিবেচনায় রেখেই কেন্দ্রীয় সরকার সম্প্রতি ঐ দুটি অধ্যাদেশ জারির সিদ্ধান্ত নেয়।


কৃষিজ পণ্যের ব্যবসা-বাণিজ্য (প্রসার ও সুবিধা) অধ্যাদেশ ২০২০ – এই অধ্যাদেশ এমন এক অনুকূল বাতাবরণ গড়ে তুলবে, যা কৃষক ও ব্যবসায়ী উভয় পক্ষই সমান লাভবান হবেন। বিশেষ করে, বিকল্প বিপণন ব্যবস্থার মাধ্যমে কৃষিজ পণ্যের বিপণন প্রতিযোগিতা যেমন বাড়বে, তেমনই কৃষকরাও লাভজনক দাম পাবেন। একই সঙ্গে, কৃষিজ পণ্যের আন্তঃরাজ্য ও রাজ্যের বাইরে পরিবহণ ও বিপণনে আরও সুবিধা সৃষ্টি হবে। এছাড়াও, এই অধ্যাদেশের ফলে কৃষিজ পণ্যের বৈদ্যুতিন উপায়ে বিপণনের উপযুক্ত কাঠামো গড়ে উঠবে। এর ফলে, দুর্ঘটনাবশত যে কোনও কারণে কৃষিজ পণ্যের দাম পড়ে গেলে তা নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হবে।


মূল্য নিশ্চয়তা সংক্রান্ত কৃষক সমঝোতা (ক্ষমতায়ন ও সুরক্ষা) এবং কৃষি পরিবেষা অধ্যাদেশ ২০২০ – এই অধ্যাদেশ জাতীয় স্তরে কৃষি ক্ষেত্রের সার্বিক অগ্রগতিতে এমন এক কাঠামো গড়ে তুলবে, যার ফলে কৃষকদের সুরক্ষা ও ক্ষমতায়ন সুনিশ্চিত হবে। একই সঙ্গে, কৃষি-বাণিজ্য ফার্ম, প্রসেসর, হোলসেলর, রপ্তানিকারক বা বড় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কৃষকদের সরাসরি সংযোগ স্থাপন করা সহজ হবে। এই অধ্যাদেশের উদ্দেশ্য হ’ল – স্বচ্ছ ও ন্যায্য মূল্যে লাভজনক মূল্য কাঠামো গড়ে তোলার জন্য কৃষক ও সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রের বিক্রেতাদের মধ্যে এক পারস্পরিক স্বার্থবাহী সমঝোতা গড়ে তোলা, যাতে ভবিষ্যতে কৃষিজ পণ্যের বিক্রয় সুনিশ্চিত করা যায়।


উপরোক্ত এই দুই অধ্যাদেশের ফলে, কৃষিজ পণ্যের অবাধ বাণিজ্য সুনিশ্চিত হবে এবং কৃষি ক্ষেত্রে পৃষ্ঠপোষকদের বিনিয়োগে উৎসাহিত করে কৃষকদের ক্ষমতায়ন ঘটানো যাবে। সর্বোপরি, কৃষক সমাজের স্বাধীনতাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।


এই দুই অধ্যাদেশের বিস্তারিত বিবরণ কৃষি, সহযোগিতা এবং কৃষক কল্যাণ দপ্তরের ওয়েবসাইটে (agricoop.nic.in) দেওয়া রয়েছে।


এই অধ্যাদেশ জারির প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র সিং তোমর আজ সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের চিঠি লিখে অধ্যাদেশ জারির বিষয়টি সম্বন্ধে অবগত করে কৃষি ক্ষেত্রে সংস্কারের লক্ষ্যে এই অধ্যাদেশ কার্যকর করার জন্য তাঁদের আন্তরিক সহযোগিতা চেয়েছেন।

 



CG/BD/SB



(Release ID: 1629890) Visitor Counter : 102