নির্বাচনকমিশন

বিধানসভা কেন্দ্রগুলিতে শূন্য পদে নির্বাচন এবং বিলম্বিত ভোটের দিনক্ষণ জারি

Posted On: 04 SEP 2021 1:53PM by PIB Kolkata

নতুন দিল্লি, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১

 

নির্বাচন কমিশন গত তেসরা মে প্রেস বিবৃতি জারি করে পশ্চিমবঙ্গের জঙ্গিপুর ও সামসেরগঞ্জ সহ ওড়িশার পিপলি বিধানসভার নির্বাচন পিছিয়ে দেয়। এই বিধানসভা কেন্দ্রগুলিতে ১৬ মে ভোটগ্রহণের পূর্ব নির্ধারিত সূচি ছিল। এনডিএমএ / এসডিএমএ-র পক্ষ থেকে জারি করা ২০০৫-এর বিপর্যয় ব্যবস্থাপনা আইনের আওতায় লকডাউন / বিধিনিষেধ কার্যকর হওয়ার প্রেক্ষিতে কমিশন এই তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এরপর গত ৫ মে কমিশন আরও একটি প্রেস বিবৃতি দিয়ে মহামারীজনিত পরিস্থিতির বিষয়টি বিবেচনায় রেখে বিভিন্ন রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে উপনির্বাচনের দিনক্ষণ আরও পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। সংশ্লিষ্ট রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির মুখ্য-নির্বাচনী আধিকারিকদের কাছ থেকে পাওয়া মহামারীজনিত পরিস্থিতি সম্পর্কিত প্রতিবেদন বিবেচনা করে কমিশন এই সিদ্ধান্ত নেয়। 

পশ্চিমবঙ্গে দুটি ও ওড়িশায় একটি সহ মোট ৩টি বিধানসভা নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। এদিকে, বিভিন্ন রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে উপনির্বাচন আয়োজনের বিষয়টি মূল্যায়ণে গত পয়লা সেপ্টেম্বর সংশ্লিষ্ট রাজ্য  ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির মুখ্যসচিব, স্বাস্থ্য ও স্বরাষ্ট্র দপ্তরের উচ্চপদস্থ আধিকারিক এবং রাজ্য পুলিশ প্রধানদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে একটি বৈঠক আয়োজিত হয়। এই বৈঠকে উপস্থিত মুখ্য সচিব / মুখ্যনির্বাচনী আধিকারিকরা কোভিড-১৯ মহামারীর প্রেক্ষিতে উপনির্বাচন আয়োজনের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে নিজেদের বক্তব্য পেশ করেন। বৈঠকে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি ছাড়াও বন্যা ও আসন্ন উৎসবের বিষয়টিকে বিবেচনায় রেখে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ব্যাপারে কথা হয়। সংশ্লিষ্ট রাজ্যগুলির মুখ্যসচিবরা লিখিত ভাবে তাদের মতামত কমিশনকে জানিয়েছেন। উপনির্বাচন হতে চলা কয়েকটি রাজ্যের পক্ষ থেকে কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলা হয়, অক্টোবর থেকে কোভিড-১৯-এর তৃতীয় ঢেউয়ের সম্ভাবনার বিষয়টিকে বিবেচনায় রাখতে, যাতে সুষ্ঠু ভাবে নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা যায়। এদিকে, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক গত ২৮ আগস্ট কোভিড-১৯ প্রতিরোধ সম্পর্কিত বিস্তারিত নীতি-নির্দেশিকা জারি করে। 

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব, কমিশনকে জানিয়েছে, রাজ্যে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে। তিনি আরও জানান, ভোট হতে চলা বিধানসভা এলাকাগুলিতে বন্যা পরিস্থিতির কোন প্রভাব পড়বে না। এদিক থেকে রাজ্য উপনির্বাচন আয়োজনে সম্পূর্ণ প্রস্তুত রয়েছে। তিনি আরও উল্লেখ করেন, সংবিধানের ১৬৪(৪) ধারার আওতায় একজন মন্ত্রী যিনি টানা ৬ মাস রাজ্য বিধানসভার সদস্য নন, সেক্ষেত্রে বিধানসভার সদস্য হিসেবে নির্বাচিত না হলে মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পর তার মন্ত্রীপদ খারিজ হয়ে যায়। এই প্রেক্ষিতে মন্ত্রী পরিষদে সাংবিধানিক সঙ্কট দেখা দেয় এবং সরকারে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদ শূন্য হয়ে পড়ে। তাই অবিলম্বে বিধানসভার সদস্য মনোনিত হওয়ার জন্য নির্বাচনের প্রয়োজন। তিনি আরও জানান, প্রশাসনিক কাজকর্ম এবং জনস্বার্থের প্রেক্ষিতে রাজ্যে বিধানসভার শূন্যপদ পূরণে ভবানীপুর বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন অবিলম্বে জরুরী। কারণ এই নির্বাচনী ক্ষেত্র থেকে বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী শ্রীমতী মমতা ব্যানার্জী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। এই প্রেক্ষিতে ভবানীপুর বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। 

কমিশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ভবানীপুর কেন্দ্রে উপনির্বাচনের গ্যাজেট বিজ্ঞপ্তি আগামী ৬ তারিখ (সোমবার) জারি করা হবে। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ১৩ সেপ্টেম্বর (সোমবার)। জমাপড়া মনোনয়নপত্রগুলি খতিয়ে দেখা হবে ১৪ সেপ্টেম্বর (মঙ্গলবার) এবং মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ১৬ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার)। এই কেন্দ্রে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) ভোটগ্রহণ করা হবে। ভোট গণনা তেসরা অক্টোবর (রবিবার) এবং যাবতীয় নির্বাচনী প্রক্রিয়া শেষ হবে ৫ অক্টোবর (মঙ্গলবার)। 

অন্যদিকে, রাজ্যের সামসেরগঞ্জ ও জঙ্গিপুর বিধানসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার)। ভোট গণনা হবে ৩ অক্টোবর (রবিবার) এবং যাবতীয় নির্বাচনী প্রক্রিয়া ৫ সেপ্টেম্বরের (মঙ্গলবার) মধ্যে শেষ করতে হবে। ওড়িশার পিপলি বিধানসভা কেন্দ্রেও একই দিনে ভোটগ্রহণ করা হবে। 

 

CG/BD/AS



(Release ID: 1752183) Visitor Counter : 170