প্রধানমন্ত্রীরদপ্তর

দুর্যোগ মোকাবিলা পরিকাঠামো সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ

Posted On: 17 MAR 2021 2:58PM by PIB Kolkata
নয়াদিল্লী, ১৭ মার্চ, ২০২১
 
    প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দুর্যোগ মোকাবিলা পরিকাঠামো সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভাষণ দিয়েছেন। অনুষ্ঠানে ফিজি, ইতালী এবং ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রীরা উপস্থিত ছিলেন। পাশাপাশি এই সম্মেলনে বিভিন্ন দেশের সরকারি, আন্তর্জাতিক সংগঠনের সদস্য, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং বেসরকারী ক্ষেত্রের সঙ্গে যুক্ত বিশেষজ্ঞরাও যোগ দেন।
 
    বর্তমান পরিস্থিতিকে নজিরবিহীন বলে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী জানান ‘আমরা এমন এক ঘটনার সাক্ষী যাকে ১০০ বছরের এক বিপর্যয় বলে অভিহিত করা যায়। কোভিড-১৯ মহামারী আমাদের শিখিয়েছে যে আন্তঃসম্পর্ক যুক্ত এবং পরস্পর নির্ভরশীল বিশ্ব, দেশে ধনী অথবা দরিদ্র, পূর্ব অথবা পশ্চিম কিংবা উত্তর অথবা দক্ষিণ যেখানেই হোক না কেন বিশ্ব বিপর্যয়ের প্রভাব সর্বত্র পরেছে।’
 
    প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন যে এই মহামারী শিখিয়েছে বিশ্ব কিভাবে একত্রিত হতে পারে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মহামারী আমাদের শিখিয়েছে  বিশ্বের এই সমস্যা মোকাবিলা ক্ষেত্রে উদ্ভাবনী বিষয় যেকোন প্রান্ত থেকে আসতে পারে।’ এরজন্য শ্রী মোদী একটি বিশ্বব্যাপি ইকো ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছেন। এই ব্যবস্থাপনা বিশ্বের সমস্ত অঞ্চলের উদ্ভাবনী বিষয়কে সমর্থন যোগাবে এবং যেখানে এটির সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন সেখানে প্রেরণ করবে। ২০২১ সাল মহামারী থেকে দ্রুত পুনরুদ্ধারের একটি বছর হিসেবে উঠে আসবে বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন।
 
    প্রধানমন্ত্রী সতর্ক করে দিয়ে জানান যে, মহামারী থেকে প্রাপ্ত শিক্ষা কখনই ভুলে গেলে চলবে না। এই শিক্ষা  শুধুমাত্র জনস্বাস্থ্য ক্ষেত্রে বিপর্যয়ই নয় অন্যান্য দুর্যোগ মোকাবিলা ক্ষেত্রেও প্রয়োগ করত হবে। তিনি জানান জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যা নিরসনে একটি সুস্থায়ী এবং সামগ্রিক প্রয়াস গ্রহণ করতে হবে।
 
    প্রধানমন্ত্রী জোর দিয়ে জানান ভারতের মতো যে দেশগুলি পরিকাঠামো ক্ষেত্রে বৃহৎ বিনিয়োগ করেছে তাদের অবশ্যই সুনিশ্চিত করতে হবে যে, এই বিনিয়োগ প্রতিরোধমূলক ক্ষেত্রে করা হয়েছে  এবং তা কোনোভাবেই ঝুঁকিপূর্ণ নয়। একাধিক পরিকাঠামো ব্যবস্থাপনা যেমন- ডিজিটাল পরিকাঠামো, জাহাজ চলাচল, বিমান যোগাযোগ ব্যবস্থাপনা ইত্যাদি - পুরো বিশ্বজুড়ে এবং বিশ্বের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে দ্রুত বিপর্যয় ছড়িয়ে দিতে পারে। তাই এই ব্যবস্থাপনা ক্ষেত্রে স্থিতিস্থাপকতা সুনিশ্চিত করার জন্য সহযোগিতা অত্যন্ত জরুরি। 
 
    প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন যে ২০২১ সালটি বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ একটি বছর। আমরা এখন সুস্থায়ী উন্নয়নের লক্ষ্যপূরণ, প্যারিস চুক্তি এবং সেন্ডাই পরিকাঠামো গঠনের মাঝামাঝি পর্যায়ে পৌঁছে গেছি। এই বছরের শেষের দিকে ব্রিটেন এবং ইতালীতে সিওপি-২৬ আয়োজিত হবে। এখান থেকে বেশকিছু বিষয় বেরিয়ে আসবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, স্থিতিশীল পরিকাঠামোগত এই অংশীদারিত্ব অবশ্যই বেশকিছু প্রত্যাশা পূরণে সহায়তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। 
 
    প্রধানমন্ত্রী এদিন সম্মেলনে মূল অগ্রাধিকার ক্ষেত্রগুলি বিষয়ে বিশদভাবে বর্ণনা দেন। তিনি বলেন, প্রথমত বিপর্যয় মোকাবিলা পরিকাঠামো ক্ষেত্রে সুস্থায়ী উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রায় অবশ্যই কেন্দ্রীয় প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে হবে। কেউ যাতে এর থেকে পিছিয়ে না থাকে,তা লক্ষ্য রাখতে হবে । এর অর্থ হল আমাদের সবচেয়ে দুর্বল  সম্প্রদায়ের উদ্বেগের বিষয়কে সর্বাগ্রে রাখতে হবে। দ্বিতীয়ত আমাদের কিছু মূল পরিকাঠামো ক্ষেত্র- বিশেষত স্বাস্থ্য পরিকাঠামো এবং ডিজিটাল পরিকাঠামো, যা মহামারী সময়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে তা থেকে শিক্ষা নিতে হবে। কিভাবে আমরা আরও ভালো ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে পারি তা নিয়েও চিন্তা-ভাবনা করা প্রয়োজন। তৃতীয়ত স্থিতিস্থাপকতার জন্য আমাদের অনুসন্ধান ক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত ব্যবস্থাপনাকে কখনই খুব সাধারণ বা খুব উন্নত হিসেবে বিবেচনা করা উচিত নয়। বিপর্যয় মোকাবিলা ব্যবস্থাপনা ক্ষেত্রে অবশ্যই প্রযুক্তির প্রয়োগ বাড়িয়ে তুলতে হবে। পরিশেষে প্রধানমন্ত্রী জানান, ‘স্থিতিস্থাপক পরিকাঠামো’র ধারণা বিষয়ে একটি গণ আন্দোলন গড়ে তুলতে বিশেষজ্ঞদের যুক্ত করতে হবে। কেবলমাত্র তাঁদের সুচিন্তিত মতামত ও সচেতনতা এই ক্ষেত্রে সাফল্য নিয়ে আসতে পারে।  
 
***
 
 
 
 
CG/SS/NS


(Release ID: 1706098) Visitor Counter : 5