জাহাজচলাচলমন্ত্রক
azadi ka amrit mahotsav

অভ্যন্তরীণ জলপথের উন্নয়ন এবং অর্থ গঙ্গা প্রয়াস

Posted On: 22 MAR 2022 1:15PM by PIB Kolkata

নতুন দিল্লি, ২২ মার্চ, ২০২২

 

দেশে মোট পণ্য পরিবহণের মাত্র দু শতাংশ অভ্যন্তরীণ জলপথের মাধ্যমে হয়। কিন্তু ৫ হাজার ১৪৯ কিলোমিটার দীর্ঘ ২৬টি জাতীয় জলপথকে যে যাত্রী ও পণ্য পরিবহণের কার্যকর মাধ্যম করে তোলা যায়, তা বিভিন্ন সমীক্ষা ও বিশদ প্রকল্প প্রতিবেদনে বার বার উল্লেখিত হয়েছে। জলযানের সহজলভ্যতা, বাধাহীন যাত্রা, তুলনামূলক ব্যয়, শেষ প্রান্তের সংযোগ সহ বিভিন্ন বিষয়ের উপর জলপথের ব্যবহার নির্ভর করে। বেসরকারি ক্ষেত্রে জলযান পাওয়ার একটা সমস্যা রয়েছে, যার অধিকাংশই বাজার সম্পর্কিত। বাধাবিহীন যাত্রা তখনই সম্ভব হবে, যখন নদী পথের রক্ষণাবেক্ষণ করা হবে এবং নদীগুলিতে পর্যাপ্ত জল থাকবে। 

ভারতে অভ্যন্তরীণ জলপথে পরিবহণের হার বৃদ্ধির একটা প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ২০০১-০২ সালে এমটিপিএ (মিলিয়ন টন পার অ্যানাম) ছিল ১৯.৭৭, ২০২১-২২ সালে (ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত) তা এসে দাঁড়িয়েছে ৯৬.৩১-এ।

২০১৪ সালে আরআইটিইএস (রেল ইন্ডিয়া টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক সার্ভিস) “সংযুক্ত জাতীয় জলপথ পরিবহণ গ্রিড” শীর্ষক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে জলপথের সঙ্গে অন্যান্য মাধ্যমে পণ্য পরিবহণের তুলনামূলক ব্যয় দেখানো হয়। এতে বলা হয়েছিল, প্রতি টন কিলোমিটার পণ্য পরিবহণে রেল পথে ১.৩৬ টাকা, সড়ক পথে ১.৫০ টাকা এবং অভ্যন্তরীণ জলপথে ১.০৬ টাকা খরচ পড়ে। 

জাতীয় জলপথ-১ গঙ্গায় ২০১৬-১৭ সালে পণ্য পরিবহণের পরিমাণ ছিল ৪.৮৯ মিলিয়ন টন। ২০২০-২১ সালে তা ৮৮ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ৯.২১ মিলিয়ন টন। বার্ষিক যৌগিক বিকাশের হার ১৭ শতাংশ। ভারতের অভ্যন্তরীণ জলপথ কর্তৃপক্ষ বিশ্ব ব্যাঙ্কের সহায়তায় জলপথের উন্নয়নে ৪ হাজার ৬৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ে জলমার্গ বিকাশ প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এর মধ্যে ৭৪৬ কোটি টাকার অর্থ গঙ্গা প্রকল্পও রয়েছে। অর্থ গঙ্গা প্রকল্পের ভাবনা অনুসারে ২০২০ সালের জুলাই মাসে জলমার্গ বিকাশ প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ের সূচনা হয়। এর লক্ষ্য হলো গঙ্গার তীরে বসবাসকারী কৃষক, ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন, তাদের অর্থনৈতিক সুবিধা দেওয়া, উৎপাদনের ব্যয় কমানো প্রভৃতি। এই প্রকল্প এখনও তার প্রাথমিক স্তরে। 

জলমার্গ বিকাশ প্রকল্প-২ (অর্থ গঙ্গা)-র আওতায় পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খণ্ড, উত্তর প্রদেশ ও বিহারে মোট ৬২টি জেটি এবং ১০টি রো-রো টার্মিনাল গড়ে তোলার লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে পশ্চিমবঙ্গে ২৩টি জেটি ও একটি রো-রো টার্মিনাল গড়ে তোলা হবে। 

রাজ্যসভায় আজ এক প্রশ্নের লিখিত উত্তরে কেন্দ্রীয় বন্দর, জাহাজ ও জলপথ পরিবহণ মন্ত্রী শ্রী সর্বানন্দ সোনওয়াল এই তথ্য জানিয়েছেন। 

 

CG/SD/SKD/



(Release ID: 1808564) Visitor Counter : 109


Read this release in: English , Urdu , Telugu