স্বাস্থ্যওপরিবারকল্যাণমন্ত্রক

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায় ডঃ হর্ষবর্ধনের ভাষণ

Posted On: 07 APR 2021 11:38AM by PIB Kolkata
নয়াদিল্লি, ০৭ এপ্রিল, ২০২১

 

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে ডঃ হর্ষবর্ধন আজ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)-র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া আঞ্চলিক কার্যালয়ে ভাষণ দেন। তিনি বলেন, এবারের বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস সমগ্র বিশ্ববাসীর পক্ষ থেকে এক বছরেরও বেশি সময় ধরে মহামারীর বিরুদ্ধে অদম্য লড়াইকেই সূচিত করে। স্বাভাবিকভাবেই এবারের স্বাস্থ্য দিবসের মূল ভাবনা প্রত্যেকের জন্য এক স্বাস্থ্যকর ও অনুকূল বিশ্ব গড়ে তোলা। তাই, আমাদের সকলের সমবেত দায়িত্ব হ’ল নীতি-পরিকল্পনা ও কর্মসূচিগুলি রূপায়ণে উদ্যোগী হওয়া। 
ডঃ হর্ষবর্ধন আরও বলেন, সাধারণ মানুষের সুস্বাস্থ্যের বিষয়টি সামাজিক কল্যাণ ও পরিষেবার ওপর অনেকাংশে নির্ভরশীল, তা বারবার প্রমাণিত হচ্ছে। আর এই কারণেই সকলের সুস্বাস্থ্য ও সামাজিক ন্যায় বিচার পরস্পরের সঙ্গে যুক্ত। সদ্যসমাপ্ত বছরটি সর্বজনীন স্বাস্থ্য পরিষেবা পৌঁছে দেওয়ার বিষয়টি যেন অজান্তেই নিশ্চিত করেছে। তাই, আর্থ-সামাজিক অবস্থান-নির্বিশেষে প্রত্যেক মানুষের কাছে প্রতিকারমূলক স্বাস্থ্য পরিষেবা পৌঁছে দেওয়া জরুরি হয়ে উঠেছে। 
বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে আজকের এই অনুষ্ঠান ‘সকলের জন্য সুস্বাস্থ্য’ সুনিশ্চিত করে এক নমনীয় স্বাস্থ্য ব্যবস্থা গড়ে তোলার লক্ষ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রক এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার যৌথ উদ্যোগের ফসল। প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিষেবার মজবুত ভিত্তির ওপর নির্ভর করে সর্বজনীন গুণগতমানের স্বাস্থ্য পরিষেবা মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে এক সুসংবদ্ধ ব্যবস্থার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে বলে উল্লেখ করে ডঃ হর্ষবর্ধন বলেন, এই উদ্দেশ্যকে সামনে রেখেই ভারতে আয়ুষ্মান ভারত কর্মসূচির সূচনা হয়েছে। কর্মসূচির মাধ্যমে দেড় লক্ষ স্বাস্থ্য ও রোগী কল্যাণ কেন্দ্র নির্মাণ করে প্রাথমিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে আরও সুবিন্যস্ত করে তোলার ওপর গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে, স্বাস্থ্য পরিষেবার প্রসার, রোগ-ব্যাধি প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ তথা সামাজিক উন্নয়নের জন্য বহুক্ষেত্রীয় কর্মসূচি গ্রহণ করা হচ্ছে। 
ডঃ হর্ষবর্ধন বলেন, প্রধানমন্ত্রী জন আরোগ্য যোজনার মাধ্যমে সেকেন্ডারী ও টার্সিয়ারী চিকিৎসা পরিষেবার জন্য প্রতি বছর প্রত্যেক পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকার নগদবিহীন চিকিৎসার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। এই কর্মসূচির মাধ্যমে ভারতে ৫০ কোটিরও বেশি মানুষ গুণগত মানের স্বাস্থ্য পরিষেবা পাচ্ছেন। এক সুস্থ-সবল ভারত গড়ে তুলতে স্বাস্থ্য পরিষেবা ক্ষেত্রে ঘাটতিগুলি দূর করে আমাদের সকলের আরও আন্তরিক প্রয়াস গ্রহণের প্রয়োজনীয়তার কথাও তিনি উল্লেখ করেন। ইতিমধ্যেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সকলকে একযোগে কাজ করার, বিশ্বাসযোগ্য তথ্য সংগ্রহ, ঘাটতি দূরীকরণ এবং ভৌগোলিক সীমানার বাইরে গিয়েও পরিষেবা পৌঁছে দেওয়ার ব্যাপারে অগ্রাধিকার দিয়েছে। এই প্রেক্ষিতে কোভিড-১৯ সংক্রমণ প্রতিরোধ ও মোকাবিলায় ভারতের অগ্রণী ভূমিকা বিশ্ব সহযোগিতার ক্ষেত্রে এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে উঠেছে। তিনি বলেন, কোভিড-১৯ থেকে আমাদের শিক্ষা অদূর ভবিষ্যতে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নীতিগুলির আরও কার্যকর রূপায়ণে সুদূরপ্রসারী ভূমিকা নেবে। 
এবারের বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবসে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে আমি আরও একবার বলতে চাই যে, আমরা গুণগতমানের স্বাস্থ্য পরিষেবা সাধারণ মানুষের জন্য যখন যেখানেই প্রয়োজন, তা পৌঁছে দিতে এবং এক সুস্থ-সবল ও উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে অঙ্গীকারবদ্ধ।

CG/BD/SB


(Release ID: 1710168) Visitor Counter : 268