জলশক্তি মন্ত্রক

কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা দেশব্যাপি ১০ হাজার ২১১ কোটি টাকা মূল্যের বাঁধ উন্নয়ন ও সংস্কারমূলক প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে

Posted On: 29 OCT 2020 4:33PM by PIB Kolkata
নয়াদিল্লী, ২৯ অক্টোবর, ২০২০
 
 
 
    কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা আজ বাঁধ সংস্কার ও উন্নয়ন প্রকল্প  (ডিআরআইপি)-র দ্বিতীয় ও তৃতীয় পর্যায়ের অনুমোদন দিয়েছে। এই প্রকল্পের আওতায় প্রাথমিকভাবে ১৯টি রাজ্য এবং ৩টি কেন্দ্রীয় সংস্থা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। ১০ বছরের জন্য এই প্রকল্পে বাজেট বরাদ্দ করা হয়েছে ১০ হাজার ২১১ কোটি টাকা। এই প্রকল্প দুটি পর্যায়ে বাস্তবায়িত হবে। ২ বছর ব্যবধানে  ৬ বছরের সময়সীমায় প্রত্যেকটি প্রকল্প শেষ করার লক্ষ্য রাখা হয়েছে। দেশের বাঁধগুলির কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি এবং সংস্কারের লক্ষ্যে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এরফলে দক্ষ ও প্রশিক্ষিত শ্রমিকদের কর্মসংস্থানের সাহায্যে বাঁধগুলির ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। 
 
    ৫ হাজার ৩৩৪টি বৃহৎ বাঁধ পরিচালন করে চীন ও আমেরিকার পরে ভারত বিশ্বের মধ্যে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। এছাড়াও দেশে বর্তমানে প্রায় ৪১১টি বাঁধ নির্মাণাধীন রয়েছে। এছাড়াও কয়েক হাজার ছোট ছোট বাঁধও রয়েছে। এই বাঁধগুলির মাধ্যমে জল সঞ্চয় সুনিশ্চিত করা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। প্রতি বছর প্রায় ৩০০ বিলিয়ন ঘনমিটার জল সঞ্চয় থাকে  ভারতীয় বাঁধ এবং জলাধারগুলি। এটি দেশের অর্থনৈতিক ও কৃষিকাজ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 
 
    এছাড়াও জলবিদ্যুৎ সুরক্ষা  উন্নয়নে পরিকাঠামোগত ব্যবস্থা, জলবিদ্যু- যান্ত্রিক ব্যবস্থাপনা, বাঁধ ভাঙার কারণ বিশ্লেষণ, জরুরি ভিত্তিক কর্মপরিকল্পনা ইত্যাদি ক্ষেত্রে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বর্তমানে চালু ডিআরআইপি-র ক্ষেত্রে গতি আনতে এবং ডিআরআইপি-র দ্বিতীয় পর্যায়ে নতুন প্রকল্পের জন্য বিশ্ব ব্যাঙ্ক এবং এশীয় পরিকাঠামোগত বিনিয়োগ ব্যাঙ্ক প্রতি ক্ষেত্রেই ২৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করবে। ১৯টি রাজ্যে বৃহৎ বাঁধ সংস্কারে এই অর্থ খরচ করা হবে।
 
    এই প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের বাঁধগুলির ক্ষয়ক্ষতি হ্রাস এবং সুরক্ষা সুনিশ্চিত করা হবে। পাশাপাশি বাঁধ সংস্কার এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হবে। বাঁধের উন্নতি সম্ভব হলে সেচ, পানীয় জলের ক্ষেত্রে লাভ মিলবে। একইসঙ্গে বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও জলবিদ্যু ক্ষেত্রের উন্নয়নে সাধারণ মানুষের দীর্ঘদিনের চাহিদা পূরণ করাও সম্ভব হবে। যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় রাজ্য সরকারগুলির সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে বাঁধগুলি সংস্কারের কাজ চালানো হবে। রাজ্যগুলি তাদের বাঁধগুলি সংস্কারের ক্ষেত্রে বাইরের বিভিন্ন সংস্থার কাছ থেকে ঋণ নিতে পারবে। প্রশিক্ষিত ও দক্ষ লোকের মাধ্যমে এই সংস্কারের কাজ চালানো হবে। যারফলে কর্মসংস্থানও সুনিশ্চিত হবে। ভারতে বাঁধের আকার এবং পরিস্থিতি বিচার করে সরকার বাঁধগুলির সংস্কারের ক্ষেত্রে সবরকম ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এরজন্য প্রয়োজনে দেশের আইআইটি, আইআইএসসি-র মতো সংস্থাগুলির থেকেও সাহায্য নিতে পারবে। এতে আত্মনির্ভর ভারত গঠনের পথ আরও প্রশস্ত হবে। 
 
    এই কর্মসূচি সম্পূর্ণ করার জন্য ২০১৯এ বাঁধ সুরক্ষা বিল নিয়ে আসা হয়েছে। এর মাধ্যমে বাঁধগুলির সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় নিয়ম তৈরি করা হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে এই কর্মসূচির আওতায় প্রায় ১০ লক্ষ অদক্ষ শ্রমিক এবং আড়াই লক্ষ দক্ষ শ্রমিকের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে। একইসঙ্গে দেশে জলের সুরক্ষা সুনিশ্চিত হবে এবং সুস্থায়ী উন্নয়নেও সাহায্য মিলবে।
 
 
 
CG/SS/NS


(Release ID: 1668642) Visitor Counter : 143