স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক

আজ লোকসভায় ভারতীয় ন্যায় (দ্বিতীয়) সংহিতা, ২০২৩, ভারতীয় নাগরিক সুরক্ষা (দ্বিতীয়) সংহিতা, ২০২৩ এবং ভারতীয় শক্তি (দ্বিতীয়) বিল, ২০২৩ এর উপর আলোচনা করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সমবায় মন্ত্রী শ্রী অমিত শাহ এবং পরে বিলগুলি পাস করেন

প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে প্রথমবারের মতো ভারতীয়ত্ব, ভারতীয় সংবিধান এবং ভারতের জনগণ সম্পর্কিত প্রায় ১৫০ বছরের পুরানো ফৌজদারি বিচার ব্যবস্থা পরিচালনাকারী তিনটি আইনে পরিবর্তন আনা হয়েছে

Posted On: 21 DEC 2023 11:06AM by PIB Agartala

নয়াদিল্লি, ২১ ডিসেম্বর ২০২৩৷৷ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সমবায় মন্ত্রী শ্রী অমিত শাহ আজ লোকসভায় ভারতীয় ন্যায় (দ্বিতীয়) সংহিতা, ২০২৩, ভারতীয় নাগরিক সুরক্ষা (দ্বিতীয়) সংহিতা, ২০২৩ এবং ভারতীয় শক্তি (দ্বিতীয়) বিল, ২০২৩ এর উপর আলোচনার উত্তর দিয়েছেন। আলোচনার পর বিলগুলো সংসদে পাস হয়ে যায়৷

আলোচনার জবাবে শ্রী অমিত শাহ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে প্রথমবারের মতো প্রায় ১৫০ বছরের পুরানো ফৌজদারি বিচার ব্যবস্থা পরিচালনাকারী তিনটি আইনে ভারতীয়ত্ব, ভারতীয় সংবিধান এবং ভারতের জনগণ সম্পর্কিত পরিবর্তন আনা হয়েছে। তিনি বলেন, ১৮৬০ সালে প্রণীত ভারতীয় দণ্ডবিধির উদ্দেশ্য ন্যায়বিচার দেওয়া নয়, শাস্তি দেওয়া। তিনি বলেন, এখন ভারতীয় ন্যায় সংহিতা, ২০২৩ ভারতীয় দণ্ডবিধির (আইপিসি) পরিবর্তে, ভারতীয় নাগরিক সুরক্ষা সংহিতা ফৌজদারি কার্যবিধি (সিআরপিসি) এর পরিবর্তে এবং ভারতীয় শক্তি বিল ভারতীয় সাক্ষ্য আইন, ১৮৭২ এর স্থলাভিষিক্ত হবে এবং এই সংসদের অনুমোদন পাওয়ার পরে এই আইনগুলি সারা দেশে প্রয়োগ করা হবে। তিনি বলেন, ভারতীয়ত্বের ভাবনা নিয়ে তৈরি এই তিনটি আইন আমাদের ফৌজদারি বিচার ব্যবস্থায় ব্যাপক পরিবর্তন আনবে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ৩৫ জন সাংসদ এই বিলগুলি নিয়ে তাদের মতামত ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী দাসত্বের মানসিকতা ও প্রতীকগুলি নির্মূল করার এবং যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নতুন আত্মবিশ্বাসের সাথে একটি মহান ভারত গঠনের পথ প্রশস্ত করার আহ্বান জানিয়েছেন। শ্রী শাহ বলেন, প্রধানমন্ত্রী মোদীজি লালকেল্লার প্রাচীর থেকে পরামর্শ দিয়েছিলেন যে এই দেশকে শীঘ্রই ঔপনিবেশিক আইন থেকে মুক্তি পেতে হবে এবং সেই অনুযায়ী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক এই তিনটি পুরানো আইনে পরিবর্তন আনার জন্য ২০১৯ সাল থেকে নিবিড় আলোচনা শুরু করেছে। শ্রী শাহ বলেন, এই আইনগুলি একজন বিদেশী শাসক তার শাসন পরিচালনা এবং তার দাস প্রজাদের শাসন করার জন্য তৈরি করেছিলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের সংবিধানের তিনটি মৌলিক চেতনা- ব্যক্তির স্বাধীনতা, মানবাধিকার এবং সবার প্রতি সমান আচরণের নীতির ভিত্তিতে এই নতুন আইনগুলি আনা হচ্ছে। তিনি বলেন, বর্তমান তিনটি আইনে ন্যায়বিচার কল্পনা করা হয়নি এবং শুধু শাস্তিকে ন্যায়বিচার হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। তিনি বলেন, শাস্তি দেওয়ার উদ্দেশ্য হচ্ছে ভুক্তভোগীকে ন্যায়বিচার দেওয়া এবং সমাজে এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন করা যাতে অন্য কেউ এ ধরনের ভুল না করে। শ্রী শাহ বলেন, স্বাধীনতার এত বছর পর এই প্রথম এই তিনটি নতুন আইন কে মানবিক করা হচ্ছে।

শ্রী অমিত শাহ বলেন, প্রধানমন্ত্রী মোদীর এই উদ্যোগ এই তিনটি আইনকে দাসত্বের মানসিকতা ও প্রতীক থেকে মুক্ত করেছে। তিনি বলেন, পুরনো আইনগুলো এ দেশের নাগরিকদের জন্য নয়, ব্রিটিশ শাসনের নিরাপত্তার জন্য তৈরি করা হয়েছিল। শ্রী শাহ আরও বলেন, পুরানো আইনগুলিতে নারী হত্যা এবং দুর্ব্যবহারের মত ঘটনাকে অগ্রাধিকার দেওয়ার পরিবর্তে কোষাগারের সুরক্ষা, রেলপথের সুরক্ষা এবং ব্রিটিশ মুকুটের সুরক্ষাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছিল। তিনি বলেন, নতুন আইনে নারী ও শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধ, মানবদেহের ক্ষতি, দেশের সীমান্তের নিরাপত্তা, সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনী সম্পর্কিত অপরাধ, নির্বাচনী অপরাধ, মুদ্রা, নোট ও সরকারি স্ট্যাম্পের সঙ্গে কারচুপি ইত্যাদিকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। শ্রী শাহ বলেন, মোদীজির নেতৃত্বে এই প্রথম আমাদের সংবিধানের চেতনা অনুযায়ী আইন তৈরি হতে চলেছে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র ও সমবায় মন্ত্রী বলেন, মোদী সরকার এই আইনগুলিতে প্রথমবারের মতো সন্ত্রাসবাদের ব্যাখ্যা দিয়ে তার সমস্ত ফাঁকগুলি বন্ধ করার কাজ করেছেন। তিনি বলেন, এই আইনগুলিতে রাষ্ট্রদ্রোহকে রাষ্ট্রদ্রোহে রূপান্তরিত করার কাজ করা হয়েছে এবং এতে এমন সংকল্প স্থাপন করা হয়েছে যে যে কেউ দেশের ক্ষতি করবে তাকে কখনই ছাড় দেওয়া হবে না। শ্রী শাহ বলেন, আগামী ১০০ বছরে সম্ভাব্য প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনের কল্পনা করে আমাদের বিচার ব্যবস্থাকে সজ্জিত করার জন্য এই আইনগুলিতে সমস্ত বিধান করা হয়েছে। তিনি বলেন, গণপিটুনি একটি জঘন্য অপরাধ এবং এই আইনগুলিতে এর জন্য মৃত্যুদণ্ডের বিধান রয়েছে। শ্রী শাহ বলেন, পুলিশ ও নাগরিকদের অধিকারের মধ্যে একটি ভাল ভারসাম্য বজায় রাখা হয়েছে। এসব আইনে শাস্তির হার বাড়ানো এবং সাইবার ক্রাইম প্রতিরোধের বিধান রাখা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, কারাগারের বোঝা কমাতে প্রথমবারের মতো শাস্তি হিসেবে কমিউনিটি সার্ভিসকেও অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে।

শ্রী অমিত শাহ বলেন, এই আইনগুলি সম্পর্কে মোট ৩২০০ টি পরামর্শ পাওয়া গেছে এবং তিনি নিজে এই তিনটি আইন বিবেচনা করার জন্য ১৫৮ টি সভা করেছেন। তিনি বলেন, ২০২৩ সালের ১১ আগস্ট এই তিনটি নতুন বিল বিবেচনার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়। শ্রী শাহ বলেন, মোদীজির নেতৃত্বে তিনটি নতুন আইনই ন্যায়বিচার, সমতা ও ন্যায্যতার মৌলিক নীতির ভিত্তিতে আনা হয়েছে। তিনি বলেন, এসব আইনে ফরেনসিক বিজ্ঞানকে অনেক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। এসব আইনের মাধ্যমে দ্রুত ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে পুলিশ, আইনজীবী ও বিচারকদের জন্য নির্ধারিত সময়সীমা রয়েছে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভারতীয় নাগরিক সুরক্ষা সংহিতা, যা সিআরপিসি-র পরিবর্তে মোট ৪৮৪ টি বিভাগ রয়েছে, এখন ৫৩১ টি বিভাগ থাকবে। ১৭৭টি ধারা পরিবর্তন করা হয়েছে, ৯টি নতুন ধারা যুক্ত করা হয়েছে এবং ১৪টি ধারা বাতিল করা হয়েছে। ভারতীয় ন্যায় সংহিতা, যা ভারতীয় দণ্ডবিধির পরিবর্তে আসবে, এখন আগের ৫১১ ধারার পরিবর্তে ৩৫৮ টি ধারা থাকবে। এর মধ্যে ২১টি নতুন অপরাধ যুক্ত হয়েছে, ৪১টি অপরাধে কারাদণ্ডের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে, ৮২টি অপরাধে শাস্তি বৃদ্ধি করা হয়েছে, ২৫টি অপরাধে বাধ্যতামূলক ন্যূনতম শাস্তি চালু করা হয়েছে, ৬টি অপরাধে শাস্তি হিসেবে কমিউনিটি সার্ভিসের বিধান রয়েছে এবং ১৯টি ধারা বাতিল করা হয়েছে। একইভাবে, ভারতীয় স্বাস্থ্য বিল, যা সাক্ষ্য আইনের পরিবর্তে এখন ১৬৭ টি ধারার পরিবর্তে ১৭০ টি ধারা থাকবে, ২৪ টি ধারা সংশোধন করা হয়েছে, ২ টি নতুন ধারা যুক্ত করা হয়েছে এবং ৬ টি ধারা বাতিল করা হয়েছে।

শ্রী অমিত শাহ বলেন, এখন পর্যন্ত আইসিজেএসের মাধ্যমে দেশের ৯৭ শতাংশ থানাকে কম্পিউটারাইজড করার কাজ শেষ হয়েছে। তিনি বলেন, আইসিজেএস, ফরেনসিক সায়েন্স ইউনিভার্সিটি, থানা, স্বরাষ্ট্র বিভাগ, পাবলিক প্রসিকিউটর অফিস, জেল ও আদালতের মাধ্যমে আদালতগুলোও আধুনিকায়ন করা হচ্ছে। পাশাপাশি সাক্ষ্যপ্রমাণের সংজ্ঞায় স্মার্টফোন, ল্যাপটপ, মেসেজ ওয়েবসাইট ও লোকেশনাল সাক্ষ্য-প্রমাণ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এবং অভিযুক্ত ও ভুক্তভোগীদের ইলেকট্রনিক মাধ্যমে আদালতে হাজির হওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র এবং সমবায় মন্ত্রী বলেন, যে কোনও সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের জন্য অপরাধকে এক জায়গায় নথিভুক্ত করা হবে, তবে আজ অবধি সিআরপিসিএ-তে সন্ত্রাসবাদের সংজ্ঞা দেওয়া হয়নি এবং এতে অপরাধীরা পালিয়ে যেত। তিনি বলেন, এই আইনের মাধ্যমে আমরা তাদের পালানোর সব পথ বন্ধ করে দিয়েছি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যারা তাদের কৃতকর্মের জন্য অনুশোচনা করবে, কেবল তাদেরই করুণার অধিকার রয়েছে। তিনি আরও যোগ করেন যে ভারতই একমাত্র দেশ হবে যারা আইনে ফরেনসিক বিজ্ঞানকে এই ধরনের দৃঢ়তার সাথে স্থান দেবে। শ্রী শাহ বলেন, ব্রিটিশ আমলের দাসত্বের সমস্ত চিহ্ন মুছে ফেলার মাধ্যমে এখন এটি সম্পূর্ণ ভারতীয় আইনে পরিণত হতে চলেছে।

*****

SKC/SP/KMD



(Release ID: 1989439) Visitor Counter : 345


Read this release in: English