অর্থমন্ত্রক

প্রায়শই যে সমস্ত প্রশ্ন জিজ্ঞেস করা হয় : আরবিআই টার্ম লোনের ওপর ব্যাঙ্কগুলিকে মোরাটোরিয়াম ঘোষণার অনুমতি দিয়েছে

Posted On: 01 APR 2020 6:42PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি০১ এপ্রিল, ২০২০

 

 

ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক গত সপ্তাহের পয়লা মার্চ পর্যন্ত যাবতীয় বকেয়া টার্ম লোন সহ কার্যকরী মূলধনের ওপর তিন মাসের মোরাটোরিয়াম ঘোষণা করতে ব্যাঙ্কগুলিকে অনুমতি দেয়।

ইন্ডিয়ান ব্যাঙ্ক অ্যাসোসিয়েশন এই মোরাটোরিয়ামের বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে প্রায়শই যে সমস্ত প্রশ্ন করা হয়, তার উত্তর দিয়েছে।

 

প্রশ্ন) আরবিআই কখন এবং কি সম্পর্কে ঘোষণা করেছে?

উত্তর - ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক গত সপ্তাহের পয়লা মার্চ পর্যন্ত যাবতীয় বকেয়া টার্ম লোন সহ কার্যকরী মূলধনের ওপর তিন মাসের মোরাটোরিয়াম ঘোষণা করতে ব্যাঙ্কগুলিকে অনুমতি দেয়।

 

প্রশ্ন) আরবিআই কেন রিলিফ প্যাকেজ ঘোষণা করেছে?

উত্তর -  কোভিড-১৯ মহামারীর প্রেক্ষিতে ঋণের ওপর বোঝা খানিকটা লাঘব করতে ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক সুনিয়ন্ত্রণমূলক ব্যবস্থার কথা ঘোষণা করেছে। উদ্দেশ্য, বাণিজ্যিক কাজকর্মের প্রবাহ অব্যাহত রাখা। আরবিআই এটা মনে করেছে যে, নগদ প্রবাহের ক্ষেত্রে সাময়িক কিছু বিপত্তি হতে পারে। এমনকি, ব্যবসায়িক কাজকর্মে বা ব্যক্তি-বিশেষের ক্ষেত্রেও আয়ের ওপর লোকসানের সম্ভাবনা রয়েছে। 

 

 

প্রশ্ন) আরবিআই – এর কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণমূলক প্যাকেজের আওতায় লাভবান হওয়ার ক্ষেত্রে কি ধরনের সুবিধা রয়েছে এবং এই সুবিধা কি সবধরনের ঋণদাতাদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য?

 

উত্তর - সবধরনের টার্ম লোন (কৃষি টার্ম লোন, খুচরো, শস্য ঋণ এবং পুল পার্চেসের আওতায় নেওয়া লোন সহ) এবং ক্যাশ ক্রেডিট বা ওভার ড্রাফট্‌ – এর ক্ষেত্রে এই প্যাকেজের আওতায় সুবিধা গ্রহণ করা যেতে পারে। এই সুবিধা সবধরনের অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রেই বৈধ, যে অ্যাকাউন্টগুলি ২০২০’র পয়লা মার্চ পর্যন্ত স্ট্যান্ডার্ড অ্যাসেট হিসাবে গণ্য। এছাড়াও, অপ্রয়োজনীয় কাগজপত্রের লেনদেন এড়াতে প্যাকেজের সুবিধা সমস্ত ঋণদাতাদের ক্ষেত্রেই কার্যকর করা হয়েছে। টার্ম লোনের ক্ষেত্রে (সুদ সহ) বকেয়া প্রদানের সময় ৯০ দিন বাড়ানো হয়েছে।

 

প্রশ্ন) বকেয়া মেটানোর সংশোধিত তারিখ কি সবধরনের টার্ম লোনের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য?

উত্তর - সবধরনের লোনের ক্ষেত্রেই, সেগমেন্টস্‌ এবং টার্ম লোনের মেয়াদ নির্বিশেষে এটি প্রযোজ্য।

 

প্রশ্ন) টার্ম লোনের ক্ষেত্রে যে বকেয়া মেটানোর সময়সীমা সংশোধন করা হয়েছে, তা কি কেবল প্রিন্সিপাল অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য, এতে কি সুদের বিষয়টিকেও ধরা হয়েছে?

উত্তর - ২০২০’র পয়লা মার্চ থেকে ২০২০’র ৩১শে মে’র মধ্যে বকেয়া মেটানোর ক্ষেত্রে প্রিন্সিপাল অ্যাকাউন্টের বকেয়া মেটানোর সময়সীমা তিন মাস ধার্য করা হয়েছে। উদাহরণ-স্বরূপ বলা যায়, টার্ম লোনের ক্ষেত্রে পয়লা মার্চের মধ্যে প্রদেয় বকেয়া আগামি পয়লা জুন পর্যন্ত মেটানো যাবে।

ইএমআই-ভিত্তিক টার্ম লোনের ক্ষেত্রে ২০২০’র পয়লা মার্চ থেকে ২০২০’র ৩১শে মে পর্যন্ত প্রদেয় বকেয়া তিনটি কিস্তিতে মেটানো যাবে। সেই সঙ্গে, ইন্সস্টলমেন্টের মেয়াদও তিন মাস বাড়বে।

অন্যান্য টার্ম লোনের ক্ষেত্রে ২০২০’র পয়লা মার্চ থেকে ৩১শে মে পর্যন্ত প্রদেয় বকেয়াতেও কিস্তি ও সুদ ছাড়ের সুবিধা মিলবে। বকেয়া মেটানোর ধরণ মাসিক, ত্রৈমাসিক, ষান্মাসিক বা বার্ষিক যাই হোক না কেন, এই সুবিধা মিলবে।

 

প্রশ্ন) টার্ম লোনের বকেয়া মেটানোর বর্ধিত সীমা যদি সর্বাধিক সময়সীমা পেরিয়ে যায়, তা হলে কি হবে?

উত্তর – আরবিআই ঘোষিত রিলিফ প্যাকেজের সুবিধা সবধরনের টার্ম লোনের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। তাই এ ধরনের লোনে মেয়াদ বৃদ্ধির আগাম অনুমোদনের প্রয়োজন নেই।

 

প্রশ্ন) কার্যকরি মূলধনের ওপর সুদের বিষয়টি কি হবে?

উত্তর – ক্যাশ ক্রেডিট ও ওভার ড্রাফট্‌ – এর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য সুদ মেটানোর পূর্ব নির্ধারিত তারিখ পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে, সময়সীমা পিছিয়ে দেওয়া হলেও ৩০শে জুন পর্যন্ত প্রযোজ্য সুদের ওপর বাকি তিনটি কিস্তির সুদ মেটাতে হবে। অবশ্য, মাসিক-ভিত্তিতে সুদ মেটানোর বিধি আর থাকছে না।

 

প্রশ্ন) ঋণদাতাদের ওপর আরবিআই – এর এই সুবিধা ঘোষণার ফলে কি প্রভাব পড়বে?

উত্তর – বকেয়া মেটাতে বিলম্ব হলে তা ক্রেডিট ব্যুরোকে জানাতে হবে। ৫ কোটি বা তার বেশি ব্যবসায়িক ঋণের ক্ষেত্রে বকেয়ার বিষয়টি আরবিআই-কে জানানো হবে। আরবিআই – এর রিলিফ প্যাকেজ ঘোষণার ফলে পয়লা মার্চ পরবর্তী সময়ে বকেয়ার বিষয়ে আগামী তিন মাস ক্রেডিট ব্যুরোকে না জানালেও হবে। এমনকি, এজন্য ব্যাঙ্কগুলির ওপর কোনোরকম জরিমানা বা শুল্ক আরোপ করা হবে না।

 

প্রশ্ন) তা হলে কি কোনও ব্যবসায়ী ব্যক্তির এই সুবিধা নেওয়া প্রয়োজন?

উত্তর – আপনি তখনই এই সুবিধা নিতে পারেন, যখন নগদ অর্থ প্রবাহে বিঘ্ন ঘটবে এবং উপার্জনে লোকসানের সম্ভাবনা থাকবে। তবে মনে রাখতে হবে, প্রযোজ্য সুদ জমা করতে হবে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে তা তিন মাস পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

উদাহরণ -স্বরূপ বলা যায়, যদি আপনার বকেয়া ঋণের পরিমাণ ১ লক্ষ টাকা হয় এবং সুদের হার যদি ১২ শতাংশ হয়, তা হলে আপনাকে প্রতি মাসে হাজার টাকা সুদ দিতে হবে। আপনি যদি প্রতি মাসে সুদ প্রদান করতে না চান, তা হলে আপনাকে বার্ষিক ১২ শতাংশ হারে সুদ দিতে হবে এবং সেই অনুসারে তিন মাস শেষে আপনাকে সুদ দিতে হবে মোট ৩ হাজার ৩০ টাকা ১০ পয়সা। একইভাবে, সুদের হার যদি ১০ শতাংশ হয়, তা হলে প্রতি মাসে আপনাকে ৮৩৩ টাকা বা তিন মাস শেষে আপনাকে ২ হাজার ৫২১ টাকা সুদ দিতে হবে।

প্রশ্ন) যদি কোনও ব্যাঙ্ক কর্মী বা কালেকশন এজেন্ট রিপেমেন্টের জন্য যদি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করে, তা হলে আমি কি অবাক হবো?

উত্তর - এক্ষেত্রে আপনি অবাক না হয়ে ব্যাঙ্ক কর্মী বা কালেকশন এজেন্ট’কে বলুন যে, আপনি আরবিআই – এর নিয়ন্ত্রণমূলক প্যাকেজের আওতায় যে সুবিধা দেওয়া হয়েছে, তা নিতে ইচ্ছুক।

 

প্রশ্ন) কিভাবে  অন্য ব্যবসায় সুবিধা দেওয়া হয়েছে?

উত্তর - ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা নগদ অর্থ প্রবাহে বিঘ্ন এবং কার্যকরি মূলধন ব্যবস্থায় বিপত্তির দরুণ ব্যাঙ্কগুলিকে তাঁরা নিজেদের কার্যকরি মূলধনের পুনর্মূল্যায়নের অনুরোধ জানাতে পারেন। এমনকি তাঁরা এনএফবি সুবিধায় বা সিকিউরিটির ক্ষেত্রে করের যে মার্জিন রয়েছে, তা কমানোর অনুরোধ করতে পারেন। এ ব্যাপারে ব্যাঙ্কের শাখাগুলি অনুরোধের ভিত্তিতে প্রতিটি বিষয় খতিয়ে দেখে সিদ্ধান্ত নেবে।

 

প্রশ্ন) ব্যবসায় নন-ফান্ডবেস থেকে ফান্ডবেস বা ফান্ডবেস থেকে নন-ফান্ডবেস ক্ষেত্রে কি ধরনের বিনিময়ের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে?

উত্তর - ২০২০’র পয়লা মার্চ থেকে ৩১শে মার্চ পর্যন্ত সময়ে গৃহীত বিনিময়ের ওপর ফান্ডবেস ক্ষেত্রে প্রযোজ্য সুদে আরবিআই যে রিলিফ প্যাকেজ ঘোষণা করেছে, তার সুবিধা মিলবে। এছাড়াও, পয়লা মার্চ থেকে যে সমস্ত নতুন ঋণ অনুমোদিত হয়েছে, তার ওপর প্রদেয় সুদের ক্ষেত্রেও এই সুবিধা পাওয়া যাবে।

 

প্রশ্ন) আমার ক্রেডিট কার্ডে যে বকেয়া রয়েছে, সে ব্যাপারে কি হবে?

উত্তর - আরবিআই – এর ঘোষিত রিলিফ প্যাকেজে ক্রেডিট কার্ড পেমেন্টের ক্ষেত্রেও সুবিধা মিলবে।

যদি ক্রেডিট কার্ডে বকেয়া থাকে, তা হলে ন্যুনতম বকেয়া মেটানো প্রয়োজন। যদি তা মেটানো সম্ভব না হয়, তা হলে বিষয়টি সম্পর্কে ক্রেডিট ব্যুরো’কে জানানো যেতে পারে। আরবিআই – এর সার্কুলারের প্রেক্ষিতে ক্রেডিট কার্ডের বকেয়া সম্পর্কে আগামী তিন মাস ক্রেডিট ব্যুরো’কে না জানালেও চলবে।

অবশ্য, ক্রেডিট কার্ডদাতা সংস্থাগুলি বকেয়া অর্থের ওপর সুদ ধার্য করতে পারে। তাই, আপনাকে প্রযোজ্য সুদের ব্যাপারে কার্ডদাতার সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হবে। তবে, আগামী তিন মাস সুদের ক্ষেত্রে কোনও জরিমানা ধার্য হবে না। কিন্তু আপনাকে মনে রাখতে হবে, ক্রেডিট কার্ডের ওপর সুদের হার ব্যাঙ্কের পক্ষ থেকে দেওয়া সাধারণ ক্রেডিট কার্ডের তুলনায় অনেক বেশি।

 

প্রশ্ন) এসআই/ইসিএস/এনএসিএইচ মারফৎ মেটানো কিস্তি বা ইএমআই – এর ব্যাপারে কি হবে? ইন্সটলমেন্ট/ইএমআই – এর ক্ষেত্রে রিফান্ডের প্রণালী কি হবে?

উত্তর - এ ব্যাপারে আপনি আপনার ব্যাঙ্কের সংশোধিত নীতি-নির্দেশিকা সম্পর্কে সচেতন থাকুন।

 

প্রশ্ন) ইজিং অফ ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল ফিনান্সিং – এর আওতায় এনবিএফসি/এমএফআই/এইচএফসিএস প্রতিষ্ঠানগুলি কি বৈধ?

উত্তর - বর্তমানে এই প্রতিষ্ঠানগুলিকে আরবিআই – এর সদ্য ঘোষিত রিলিফ প্যাকেজের আওতায় বিবেচনা করা হচ্ছে না। অবশ্য, আরবিআই এ ধরনের আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলিতে পর্যাপ্ত পরিমাণে লিক্যুইডিটি যোগান দিতে প্রয়োজনীয় সংস্থান করেছে। যে সমস্ত ব্যাঙ্ক লিক্যুইডিটির সুবিধা নিয়েছে, তাদের ইনভেস্টমেন্ট রেট কর্পোরেট বন্ড হিসাবে ঐ অর্থ জমা রাখতে হবে।

ব্যাঙ্কগুলিকে তাদের প্রাইমারি মার্কেট থেকে সংগৃহীত তাদের অংশের অন্তত ৫০% ইনক্রিমেন্টাল হোল্ডিং হিসাবে রাখা প্রয়োজন। বাকি, ৫০% মিউচ্যুয়াল ফান্ড ও নন-ব্যাঙ্কিং ফাইনান্স কোম্পানিগুলির মতো সেকেন্ডারি মার্কেট থেকে সংগ্রহ করতে হবে। ব্যাঙ্কগুলি প্রয়োজনে ব্যাঙ্ক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান, মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মতো প্রতিষ্ঠানগুলিকে সাহায্য করতে পারবে।

 

প্রশ্ন) আরবিআই -এর গৃহীত এই সমস্ত ব্যবস্থাগুলিকে কি পুনর্গঠন হিসাবে গণ্য করা হবে? যদি তাই হয়, তা হলে কি ধারায় প্রযোজ্য হবে?

উত্তর - রিজার্ভ ব্যাঙ্ক গত ২৭শে মার্চ কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণমূলক প্যাকেজ সংক্রান্ত যে সার্কুলার জারি করেছে, তা কোনোভাবেই ‘পুনর্গঠন’ হিসাবে গণ্য করা হবে না। সেই অনুসারে, রিস্ট্রাকচার অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত ধারাগুলি কোনোভাবেই প্রযোজ্য হবে না।

 

 

CG/BD/SB



(Release ID: 1609990) Visitor Counter : 29


Read this release in: English